ঢাকা, ২০২২-০১-২৫ | ১২ মাঘ,  ১৪২৮
সর্বশেষ: 
অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় হস্তক্ষেপ না করার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্র বিচার ১২৩ বছর আগে গ্রেপ্তার গাছ, শেকলে বন্দি আজো ফ্রান্স প্রেসিডেন্টকে চড় মারার মাশুল কতটা? কুরআনের আয়াত বাতিলে ‘ফালতু’ রিট করায় আবেদনকারীকে জরিমানা আদালতের দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নতুন রেকর্ড ওয়াক্ত ও তারাবি নামাজের জামাতে সর্বোচ্চ ২০ জন বিদেশে মারা গেছে ২৭০০ বাংলাদেশি আর্থিক ক্ষতি মেনেই সাঙ্গ হলো বইমেলা সুন্দরী মডেলের অপহরণ চক্র ! মোটরসাইকেল উৎপাদনে বিপ্লবে দেশ যুক্তরাজ্যে করোনার আরও মারাত্মক ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত ৮ থেকে ১২ সপ্তাহ বিরতিতে অক্সফোর্ডের টিকা বেশি কার্যকর সবাই সপরিবারে নির্ভয়ে করোনা ভ্যাকসিন নিন: প্রধানমন্ত্রী শেষ রাতে দু’রাকাত নামাজ জীবন পরিবর্তন করে দিতে পারে নতুন করোনাভাইরাস আতঙ্কে ইউরোপ-আমেরিকার শেয়ারবাজারে ধস জুনের মধ্যে আসছে আরও ৬ কোটি করোনার টিকা বাড়িভাড়ায় নাভিশ্বাস, ফের বাড়ানোর পাঁয়তারা অমিতাভের পর অভিষেকও করোনা আক্রান্ত বিশ্ব ধরেই নিচ্ছে বাংলাদেশ জালিয়াতির দেশ : শাহরিয়ার কবির ইরাকে মর্গের পাশে রাত কাটছে বাংলাদেশিদের! বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শক বাংলাদেশের সেঁজুতি সাহা সাহেদর টাকা থাকত নাসির, ইন্ডিয়ান বাবু ও স্ত্রী সাদিয়ার কাছে ‘বাংলাদেশিদের ভোট দিন’ মানবতার সেবায় কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ অনিশ্চিতায় ফেরদৌস খন্দকার কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা থামছেই না বিক্ষোভ অব্যাহত গভর্নরের সিদ্ধান্ত মানছে না মেয়র অভিবাসীরা জিতলেন হারলেন ট্রাম্প করোনার ধাক্কা - মে মাসে রপ্তানি কমেছে ২০ হাজার কোটি টাকার পুলিশ সংস্কার বিল উঠলো মার্কিন কংগ্রেসে লাইফ সাপোর্টে থাকা নাসিমের জন্য মেডিকেল বোর্ড পুনর্গঠন আইসিইউ নিয়ে হাহাকার ঈদের ছুটিতে অনিরাপদ হয়ে উঠছে গ্রামগুলো ঘরে ঘরে ভুতুড়ে বিল, বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে সমন্বয় হবে নিউইয়র্কে ‘ট্রাম্প ডেথ ক্লক’ নিউইয়র্কে জেবিবিএ’র পরিচালক ইকবালুর রশীদ লিটনের মৃত্যু নিজ আয়ে চলা শুরু করলো বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি কবে খুলবে নিউইয়র্ক নিউইয়র্কে এবার নতুন ভাইরাসে শিশুরা আক্রান্ত

২৪ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর কাছে অস্ত্র জমা দেন কাদের সিদ্দিকী

১৯৭২ সালের ২৪ জানুয়ারি। টাঙ্গাইল তথা স্বাধীন বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন। এ দিনেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নিকট অস্ত্র জমা দেন মুক্তিযুদ্ধে কাদেরীয়া বাহিনীর প্রধান কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম। বিন্দুবাসিনী স্কুল মাঠে বাহিনীর পক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে বঙ্গবন্ধুর কাছে অস্ত্র তুলে দেন তিনি।

কাদের সিদ্দিকী তাঁর লেখা স্বাধীনতা ৭১ গ্রন্থের ৬০৬ নম্বর পৃষ্ঠায় ‘অস্ত্র হস্তান্তর’ শিরোনামে সেদিনের বিষয়াবলী লিপিবদ্ধ করেছেন। তিনি লিখেছেন ঘড়ির কাঁটা ১১টা ৩০ মিনিটের ঘরে। বঙ্গবন্ধুকে বিন্দুবাসিনী স্কুল মাঠে অস্ত্র জমা দেওয়ার মঞ্চে নিয়ে যাওয়া হলো। অস্ত্র জমা দেওয়ার আনুষ্ঠানিকতা হিসাবে নানা ধরনের হাজার দশেক হাতিয়ার বিন্দুবাসিনী স্কুল মাঠে সারি করে দাঁড় করা ছিল। তিন হাজার সশস্ত্র মুক্তিযোদ্ধা মঞ্চের সামনে মাঠের একপাশে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু ও আমি মঞ্চে উঠতেই প্যারেড কমান্ডার মেজর আব্দুল হাকিম মাঠে দাঁড়ানো মুক্তিযোদ্ধাদের সতর্ক করল এবং সশস্ত্র অভিবাদন জানাল। পরে আনুষ্ঠানিকতা সেরে হাঁটু গেড়ে বহুদিনের বহু লড়াইয়ের স্মৃতিবিজড়িত স্টেনগানটি বঙ্গবন্ধুর পায়ের সামনে রাখলাম। ২৪ জানুয়ারির ঐতিহাসিক দিনের চিত্রগুলো মুক্তিযোদ্ধাগণ আজও শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শিক পুত্র কাদের সিদ্দিকী ১৯৪৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মুহাম্মদ আবদুল আলী সিদ্দিকী ও মাতার নাম লতিফা সিদ্দিকী। পৈত্রিক নিবাস টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার নাগবাড়ী ইউনিয়নের ছাতিহাটী গ্রামে।

ছোটবেলা থেকেই কাদের সিদ্দিকী প্রতিবাদী, সাহসী ও অন্যায়ের সঙ্গে আপসহীন। তাঁর ডাক নাম বজ্র। মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদান রাখায় তিনি ‘বাঘা সিদ্দিকী’ হিসেবেও খ্যাতিমান।

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে টাঙ্গাইল তথা দেশকে স্বাধীন করার দৃঢ় প্রত্যয়ে প্রায় ১৭ হাজার মুক্তিযোদ্ধা ও বিপুলসংখ্যক স্বেচ্ছাসেবকের সমন্বয়ে কাদের সিদ্দিকী গঠন করেন একটি গেরিলা বাহিনী। কাদের সিদ্দিকী বাহিনীর সর্বাধিনায়ক হওয়ায় বাহিনীটি ‘কাদেরীয়া বাহিনী’ নামে সুপরিচিত। কাদেরীয়া বাহিনীর মুক্তিযোদ্ধারা ১১নং সেক্টরে কমপক্ষে তিন শতাধিক ভয়াবহ সম্মুখযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন এবং প্রায় ৩০০০ হানাদার সদস্য হত্যা করেন। কাদের সিদ্দিকী নিজে ৩০টিরও বেশি সম্মুখযুদ্ধে সরাসরি নেতৃত্ব দেন। ফলে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীসহ আলবদর, আলশামস, রাজাকারদের নিকট আতংকের নাম ছিল কাদেরীয়া বাহিনী। ১৯৭১ সালের ১০ ডিসেম্বর কাদেরীয়া বাহিনীর সহায়তায় কালিহাতী উপজেলার পৌলীতে ভারতীয় ছত্রীসেনা অবতরণ করে। ১১ ডিসেম্বর কাদেরীয়া বাহিনীর নেতৃত্বে টাঙ্গাইল হানাদারমুক্ত হয়। মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য কাদের সিদ্দিকীকে বঙ্গবন্ধুর সরকার বীরউত্তম খেতাবে ভূষিত করে। খেতাব নং-৬৮ (গণবাহিনী), সেক্টর নং- ১১।

কাদের সিদ্দিকী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা সপরিবারে নিহত হওয়ার পর তিনি হত্যার প্রতিবাদে সশস্ত্র আন্দোলন গড়ে তোলেন। এজন্য তৎকালীন সরকারের রোষানলে পড়ে তিনি দেশ ত্যাগে বাধ্য হন। দীর্ঘদিন ভারতে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন। বঙ্গবীর আব্দুল কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তমকে বঙ্গবন্ধু বাকশাল সরকারের টাঙ্গাইলের গভর্নর নিযুক্ত করেন। ১৯৯৬, ২০০১ সালে তিনি টাঙ্গাইল-৮ (বাসাইল-সখিপুর) আসন থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। আওয়ামী লীগ থেকে বেড়িয়ে গিয়ে কাদের সিদ্দিকী নিজেই প্রতিষ্ঠা করেন রাজনৈতিক দল কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ (গামছা প্রতীক)। সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সাধারণ মানুষের অধিকার আদায়ে তিনি সর্বদাই নিবেদিত।

রাজনীতিবিদের পাশাপাশি তিনি একজন সুলেখক। বিভিন্ন পটভূমিতে তাঁর লেখাগুলো পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে এবং হচ্ছে। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক বেশ কয়েকটি বই প্রকাশ করেছেন তিনি। তার রচিত ‘স্বাধীনতা ৭১’ গ্রন্থটি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এবং কাদেরীয়া বাহিনীর প্রামাণ্য দলিল।

কাদের সিদ্দিকী পারিবারিক জীবনে নাসরিন সিদ্দিকীর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তাঁর এক ছেলে দ্বীপ সিদ্দিকী এবং দুই মেয়ে কুড়ি সিদ্দিকী ও কুশি সিদ্দিকী। তার বড় ভাই মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা ও মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকী।

এ বিষয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদকারী খন্দকার মোখলেছুর রহমান (মণি খন্দকার) বলেন ২৪ জানুয়ারি সত্যি আমাদের জন্য একটি ঐতিহাসিক দিন। কেননা আমরা যে মহান নেতার ডাকে প্রিয় মাতৃভুমিকে স্বাধীন করতে অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছিলাম, আবার সেই নেতার পদতলে আমাদের সবার পক্ষে কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম অস্ত্র জমা দেন। বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি স্বাধীন দেশে ফিরেন। এরপরেই রাজধানী ঢাকার বাইরে প্রথম টাঙ্গাইলে আসেন। দিনটি বিভিন্ন আঙ্গিকে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। আর সেদিনের অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। এ দিনটিকে জাতীয়ভাবে স্বীকৃতি এবং পালন করার দাবি করছি। যাতে নতুন প্রজন্ম জানতে পারে।

মুক্তিযোদ্ধাগণ বলেন, বাংলাদেশ নামের একটি ভূখন্ড যতদিন পৃথিবীর মানচিত্রে থাকবে ততদিন দেশে-বিদেশে স্বর্ণাক্ষরে জ্বলজ্বল করবে কাদেরীয়া বাহিনীর নাম ও ২৪ জানুয়ারির অস্ত্র সমর্পণের ইতিহাস।

সূত্র: কালের কণ্ঠ

০৩:০৪ এএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ মঙ্গলবার

২৮ ঘণ্টা পর শাবিপ্রবি ভিসির বাসভবনে বিদ্যুৎ সংযোগ চালু

বিচ্ছিন্ন করার প্রায় ২৮ ঘণ্টা পর শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদের বাসভবনের বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করে দিয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

সোমবার (২৪ জানুয়ারি) রাত ১২টার দিকে তারা সংযোগ চালু করে দেন।

বিষয়টি মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (গণমাধ্যম) বিএম আশরাফ উল্ল্যাহ তাহের নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে রোববার রাত পৌনে আটটার দিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ওই বাসভবনের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন। একই লাইনে কর্মচারীদের বাসার লাইন থাকায় সেগুলোরও সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

এ কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারী অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা অনুরোধ করেন সংযোগ চালু করে দিতে। তাদের বাসায় অসুস্থ রোগী ও শিশুদের সমস্যার কথা জানালে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বিদ্যুৎ সংযোগটি চালু করে দেন।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থী মোহামিনুল বাশার রাজ বলেন, উপচার্যের বাসভবনের পেছনে অর্ধশতাধিক কর্মচারীর বাসা রয়েছে। তাদের বিভিন্ন সমস্যার কথা জানালে আমরা বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করে দিয়েছি।

এর আগে রোববার সন্ধ্যা থেকে উপাচার্যের বাসভবনে প্রবেশের মূল ফটকের সামনে অবস্থান নেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। রোববার সন্ধ্যা থেকে এখন পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গণমাধ্যমকর্মী ছাড়া উপাচার্যের বাসভবনের ভেতরে আর কাউকে ঢুকতে দিচ্ছেন না তারা।

সোমবার অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের বাসভবনে তার জন্য খাবার ও ওষুধ নিয়ে যেতে দেননি আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। সোমবার সন্ধ্যায় শিক্ষকরা উপাচার্য ও তার পরিবারের জন্য প্রয়োজনীয় খাবার, পানি ও ওষুধ নিয়ে মূল ফটকে প্রবেশ করতে চাইলে শিক্ষার্থীরা ফিরিয়ে দেন। এ সময় শিক্ষকদের সঙ্গে তাদের বাগবিতণ্ডা হয়।

গত ১৩ জানুয়ারি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রভোস্ট কমিটির পদত্যাগসহ তিন দফা দাবিতে আন্দোলনে নামেন শিক্ষার্থীরা। পরে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিও সামনে আসে আন্দোলনে।

পরে ১৬ জানুয়ারি বিকেলে তিন দফা দাবি আদায়ে উপাচার্যকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইআইসিটি ভবনে অবরুদ্ধ করেন শিক্ষার্থীরা। পরে পুলিশ উপাচার্যকে উদ্ধার করতে গেলে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই সময় পুলিশ সাউন্ড গ্রেনেড, টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট ছুড়ে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এতে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। পুলিশ ৩০০ জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে মামলা করে।

১৯ জানুয়ারি বিকেলে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে তার বাসভবনের সামনে আমরণ অনশন শুরু করে ২৩ জন শিক্ষার্থী।

০২:৪০ এএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ মঙ্গলবার

ইরান-সমর্থিত হুতি বিদ্রোহীরা এ হামলা চালিয়েছে

সৌদিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় বাংলাদেশিসহ আহত ২

সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলে হুতি বিদ্রোহীদের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় এক বাংলাদেশিসহ দুই বিদেশি নাগরিক আহত হয়েছে। রবিবার (২৩ জানুয়ারি) এ হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম এসপিএর বরাত দিয়ে জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স। আহত অপর বিদেশি সুদানের নাগরিক।

ইরান-সমর্থিত হুতি বিদ্রোহীদের ছোঁড়া একটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র আহাদ আল মাসারিহা শহরে পড়লে তারা আহত হন।

দক্ষিণ-পশ্চিম জাজানের শিল্প শহরকে লক্ষ্য করে চালানো হামলায় বেশ কয়েকটি কারখানা এবং বেসামরিক যানবাহন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট ২০১৫ সাল থেকে ইয়েমেনে হুতি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে লড়াই করছে।

এদিকে, জোটের সদস্য সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সোমবার উপসাগরীয় এই দেশটি লক্ষ্য করে দু’টি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীরা। তবে ক্ষেপণাস্ত্র দু’টি লক্ষ্যে আঘাত হানার আগেই আকাশে আটকে দেওয়ার পর ধ্বংস করা হয়েছে। এতে হতাহতের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

হামলা প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

০২:৩২ এএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ মঙ্গলবার

টোঙ্গার অগ্ন্যুৎপাত হিরোশিমা বোমার চেয়ে কয়েকশ গুণ শক্তিশালী

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে সময় জাপানের হিরোশিমায় যুক্তরাষ্ট্র যে পারমাণবিক বোমা ফেলেছিল, তার চেয়ে টোঙ্গায় গত সপ্তাহে ঘটে যাওয়া অগ্ন্যুৎপাত কয়েকশ’ গুণ বেশি শক্তিশালী বলে জানিয়েছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশটিতে সেদিন আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণে সুনামির পাশাপাশি ‘নিশ্চিহ্ন’ হয়ে যায় গোটা একটি দ্বীপ।

এটিকে তিন দশকের মধ্যে ‘সবচেয়ে ভয়াবহ অগ্ন্যুৎপাত’ উল্লেখ করে টোঙ্গা সরকার জানিয়েছে, সেখানে পাঁচ ভাগের চার ভাগ মানুষ সুনামি ও আকাশ থেকে পড়া আগ্নেয় ছাইয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মারা গেছেন অন্তত তিনজন।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, গত ১৫ জানুয়ারি হাঙ্গা টোঙ্গা হাঙ্গা হা’পাই আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতে আশপাশের দ্বীপগুলো মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। একটি দ্বীপের সব বাড়িঘর ধ্বংস হয়ে গেছে এবং আরেকটি দ্বীপের মাত্র দুটি অবশিষ্ট রয়েছে।

অগ্ন্যুৎপাতের আগে হুঙ্গা টোঙ্গা-হুঙ্গা হা’পাই ছিল দুটি পৃথক দ্বীপ, যার সঙ্গে ২০১৫ সালে নতুন ভূমি যোগ হয়। নাসা জানিয়েছে, অগ্ন্যুৎপাত এতটাই শক্তিশালী ছিল যে নতুন ভূমি পুরোপুরি গায়েব হয়ে গেছে, হারিয়ে গেছে পুরোনো দুই দ্বীপের বিশাল অংশও।

আগ্নেয়গিরি থেকে নির্গত ছাই, গ্যাস ও বিষাক্তকণা মোকাবিলা টোঙ্গা সরকারের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠেছে। অগ্ন্যুৎপাত ও সুনামির পরপরই ধারণা করা হচ্ছিল, ছাইয়ের পাতলা আস্তরণ পড়ায় সেখানে পানি দূষিত হয়ে গেছে। এতে ডায়রিয়া-কলেরার মতো পানিবাহিত রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দেয়। তবে টোঙ্গার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, প্রাথমিক পরীক্ষায় ভূগর্ভস্থ ও বৃষ্টির পানি পানযোগ্য প্রমাণিত হয়েছে। তবুও জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে রয়েছে আগ্নেয় ছাই। এতে শ্বাসকষ্টসহ হৃদযন্ত্র, ফুসফুস, চোখ ও ত্বকের ক্ষতি হতে পারে।

অগ্ন্যুৎপাত-সুনামিতে ওই এলাকার একমাত্র ক্লিনিক ধ্বংস হয়ে যাওয়ায় অস্থায়ী হাসপাতাল বানিয়ে চিকিৎসাসেবা দিতে হচ্ছে উদ্ধারকারীদের। ধ্বংসলীলার পরপরই টোঙ্গার দিকে সাহয্যের হাত বাড়িয়ে দেয় প্রতিবেশী দেশগুলো। বিমান ও নৌবাহিনী ব্যবহার করে টোঙ্গায় খাবার, পানি, ওষুধ, তাবুসহ ত্রাণ সহায়তা পাঠিয়েছে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড।

অগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণের পর টানা পাঁচদিন যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ছিল টোঙ্গা। বাকি বিশ্বের সঙ্গে যুক্ত করা ফাইবার-অপটিক ক্যাবল ছিঁড়ে যাওয়ায় কোনো ধরনের ইন্টারনেট সংযোগ নেই দ্বীপরাষ্ট্রটিতে। টেলিফোন লাইন মেরামত করে কোনোরকমে যোগাযোগের কাজ চালাতে হচ্ছে।

টোঙ্গা সরকার জানিয়েছে, ইন্টারনেট ক্যাবল সারাতে চলতি সপ্তাহে একটি জাহাজ পৌঁছানোর কথা। তবে সেটি পুরোপুরি সারাতে চার সপ্তাহ পর্যন্ত লেগে যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এদিকে, অগ্ন্যুৎপাতে টোঙ্গার দ্বীপগুলোর ভয়াবহ অবস্থার দৃশ্য ফুটে উঠেছে স্যাটেলাইটের ছবিতে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দেশটির রাজধানী নুকু’আলোফাও। গত ১৮ জানুয়ারি মহাকাশপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ম্যাক্সার টোঙ্গা দ্বীপপুঞ্জের কিছু ছবি প্রকাশ করেছে। এর কয়েকটি তোলা হয়েছে ২০২১ সালের এপ্রিলে এবং বাকিগুলো অগ্ন্যুৎপাতের পরে।

ছবিতে দেখা যায়, আগ্নেয়গিরি থেকে প্রায় ৬৪ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত টোঙ্গার রাজধানী শহর পুরোপুরি ছাইয়ের চাদরে ঢাকা। আর অগ্ন্যুৎপাতের কেন্দ্রে থাকা দ্বীপটি এখন প্রায় পুরোটাই পানির নিচে। এর মাত্র কয়েকটি ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন অংশ পানির ওপরে দেখা যাচ্ছে।

অগ্ন্যুৎপাতে শক্তিশালী বিস্ফোরণে সৃষ্ট ছাইয়ের মেঘ ৬৩ হাজার ফুট পর্যন্ত ওপরে উঠেছিল, এর শকওয়েভ টের পাওয়া গেছে সুদূর আলাস্কাতেও।

সূত্র: বিবিসি, ব্লুমবার্গ

০২:৩১ এএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ মঙ্গলবার

তৈমূর কেন সব হারালেন?

আওয়ামী লীগ সরকারের অধীন কোনো নির্বাচনে যাবে না বিএনপি—দলটির এমন সিদ্ধান্তের পরও ইউনিয়ন, পৌরসভা ও উপজেলা পরিষদসহ স্থানীয় সরকার নির্বাচনে তাদের নেতাকর্মীরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়েছেন। অনেক জায়গায় জিতেও এসেছেন তারা। বিজয়ী প্রার্থীদের দল থেকে বহিষ্কারের তেমন কোনো নজির তৈরি করেনি বিএনপি।

নেতাকর্মীদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে ভোটে নামার ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে লড়েছিলেন চেয়ারপারসনের সাবেক উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারও। কিন্তু ভোটে নাম লেখানোর পরই বিএনপির বিভিন্ন পদ-পদবি থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। আর ভোটে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীর কাছে বিপুল ভোটে হেরে যাওয়ার পর তাকে বিএনপি থেকেই বহিষ্কার করা হয়েছে।

এই বহিষ্কারাদেশের পর এখন আলোচনা উঠছে, ঢাকার প্রবেশমুখ নারায়ণগঞ্জের ময়দানের বর্ষিয়ান রাজনীতিক তৈমূরের ক্যারিয়ার কি এখানেই শেষ? নাকি সংস্কারপন্থিদের মতো ‘শাস্তিভোগ’ শেষে ফিরে আসবেন দলে?

তার প্রতি সহানুভূতিশীল নেতাদের একটি অংশ বলছে, তৈমূর অবস্থাদৃষ্টে বহিষ্কার হলেও ছ’মাস-এক বছরের মধ্যেই ‘প্রমোশন’ নিয়ে দলে ফিরতে পারেন। অবশ্য দায়িত্বশীলদের বক্তব্য, আপাতত তার দলে ফেরার কোনো সম্ভাবনা নেই।

বিএনপির রাজনীতি পর্যবেক্ষকরা বলছেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দল হিসেবে বিএনপি অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও নেতাকর্মীদের স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করার আগ্রহের ক্ষেত্রে তাদের অবস্থান নমনীয় ছিল।

গত ২ নভেম্বর ঠাকুরগাঁয়ে নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছিলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিএনপি থেকে কেউ প্রার্থী হলে দলীয়ভাবে তাকে বাধা দেওয়া হবে না। স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবে করাটা সঠিক নয়। তাই বিএনপি এ নির্বাচনে দলীয়ভাবে অংশ নিচ্ছে না। তবে বিএনপি থেকে কেউ স্বতন্ত্র হয়ে অংশ নিলে সেখানে বাধা নেই।

তৈমূরের সমর্থক নেতাকর্মীদের প্রশ্ন, দলীয় অবস্থান এমন ‘নমনীয়’ হলে কী এমন ঘটলো যে তৈমূরকে প্রথমে দলের গুরুত্বপূর্ণ পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে পরে একেবারে দল থেকেই বহিষ্কার করতে হলো? কেন তিনি সব হারালেন?

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন ভাইস চেয়ারম্যান বলছেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিএনপি প্রতীক না দিলেও নেতাকর্মীদের অংশ নেওয়ার ক্ষেত্রে কোনো বাধা ছিল না। তৈমূর আলম খন্দকার হেরে গেছেন, তাই তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে সরকারের সঙ্গে আঁতাতের অভিযোগে। যদি জিততে পারতেন, তাহলে নিশ্চয়ই দল এ সিদ্ধান্ত নিতো না।

নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনে তৈমূর অংশ নেওয়ার কারণে সেখানকার নেতাকর্মীরা চাঙ্গা হয়েছেন দাবি করে এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, একজন ‘আবাসিক নেতা’র কূটমন্ত্রে তাকে বহিষ্কার করা হলো। ছ’মাস-এক বছরের মধ্যে ওই নেতার যখন পদ বদলি হবে তখন প্রমোশন দিয়ে তৈমূরকে বিএনপি বরণ করে নেবে।

এর আগে অনেককে নির্বাচনজনিত কারণে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে, আবার তারা ফিরেও এসেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, শুধু নির্বাচন নয়, ওয়ান-ইলেভেনের সময় যখন (সংস্কারপন্থিদের) কেউ কেউ দলের সর্বোচ্চ নেতৃত্বের বিরুদ্ধে গিয়েছেন, জিয়া পরিবারকে আক্রমণ করেছেন, দলের নেতাকর্মীদের আক্রমণ করেছেন, তারাও দলে ফিরেছেন। বিএনপি একটি উদার গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল।

অবশ্য পল্টন থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফিরোজ আলম পাটোয়ারীর বক্তব্য, দলের সিদ্ধান্ত যৌক্তিক। তিনি দাবি করেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর থেকেই সামাজিক মাধ্যমগুলোতে বিএনপির বেশ কিছু নেতাকর্মী তৈমূর আলম খন্দকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন। সরকারের পাতানো নির্বাচনে ইভিএমের বৈধতা দিতে অর্থের বিনিময়ে তৈমূর আলম খন্দকার এই নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন এবং ইভিএমের বিরোধিতা না করে নির্বাচনের ফলাফল মেনে নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীকে মিষ্টি খাইয়ে অভিনন্দন জানিয়েছেন, এই কারণে তার বহিষ্কার যৌক্তিক।

সিনিয়র নেতাকে বহিষ্কার করায় দল ক্ষতিগ্রস্ত হয় কি না জানতে চাইলে ফিরোজ আলম বলেন, ব্যক্তির চেয়ে দল বড়, দলের চেয়ে দেশ বড়। দলীয় শৃঙ্খলার চেয়ে ব্যক্তি গুরুত্বপূর্ণ হতে পারেন না।

এ বিষয়ে বিএনপির অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী নেতা সাইদুল ইসলাম মিন্টু ফেসবুকে লিখেছেন, ‘দলীয় সিদ্ধান্ত না মেনে চার কোটি টাকার বিনিময়ে অবৈধ সরকারের কাছে বিক্রি হয়ে ইভিএমকে বৈধতা দেওয়ার জন্য স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে দলের সাধারণ সদস্য পদসহ সকল পদ থেকে বহিষ্কার করেছে বিএনপি। বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্বের এই সিদ্ধান্তকে আমি স্বাগত জানাই।’

বিএনপি নেতাকর্মীদের ‘স্বতন্ত্র’ লড়াই
জানা গেছে, বিএনপি দলীয়ভাবে ভোটে না গেলেও তাদের অনেক নেতাকর্মী স্বতন্ত্র হিসেবে লড়েছেন ইউনিয়ন, পৌরসভা, উপজেলা পরিষদসহ স্থানীয় সরকার নির্বাচনে। এর মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বেশ সাড়া পেয়েছেন তাদের প্রার্থীরা।


হিসাব মতে, রাজশাহী বিভাগের ইউপি ভোটে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র লড়াই করে জয়ী হয়েছেন বিএনপির ২৬ জন। তাদের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জয় এসেছে রংপুর বিভাগে, সেখানে ১৮ জন ইউপি চেয়ারম্যান হয়েছেন। ঢাকা বিভাগে বিএনপির ১৭ জন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। চট্টগ্রাম ও সিলেটে বিজয়ীর এই সংখ্যা ১৩ জন করে। এছাড়া ময়মনসিংহ, খুলনা এবং বরিশালেও তাদের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নেতাকর্মী চেয়ারম্যান হয়েছেন।

এদিকে মেয়র পদে তৈমূর ছাড়াও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের বিভিন্ন ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে লড়াই করেছেন বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। ভোটে এক নারী কাউন্সিলরসহ ১০টি কাউন্সিলর পদে জয় এসেছে তাদের।

দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে গাজীপুরের কালিয়াকৈর পৌরসভা নিবাচনে অংশ নেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য মজিবুর রহমানও। তিনি কালিয়াকৈর পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এবং জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়কও। মোবাইল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে জিতে এসেছেন মজিবুর। তিনিসহ বিজয়ী কোনো নেতার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়নি বিএনপি।

তৈমূর যা ভাবছেন
আনীত সব অভিযোগ শুরু থেকেই অস্বীকার করছেন তৈমূর আলম খন্দকার। দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ নাকচ করার পাশাপাশি তিনি বলছেন, বিজয়ী প্রার্থীকে মিষ্টিমুখ করানোর বিষয়টি সৌজন্যবোধ।

নির্বাচনে অংশগ্রহণে কেউ বাধা দেয়নি দাবি করে তৈমূর বলেন, নির্বাচনের কারণে অন্য কোথাও কাউকে বহিষ্কার না করা হলেও আমাকে কোনো কারণ দর্শানোর (শোকজ) নোটিশ ছাড়াই বহিষ্কার করা হয়েছে।

তৈমূর আলম বলেন, দল আমাকে রাজপথের আন্দোলন-সংগ্রাম থেকে মুক্তি দিয়েছে। এখন আমার সামনে দুটি কাজই খুঁজে পেয়েছি। একটি হলো যাকে আমি মায়ের মতো শ্রদ্ধা করি, বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য এবং ভোট ডাকাতির মেশিন ইভিএমের বিরুদ্ধে জনমত সৃষ্টি করা। আমি বিএনপির পক্ষেই কাজ করে যাবো।

যা বলছেন দায়িত্বশীলরা
তৈমূর আলম খন্দকারকে বহিষ্কারের কারণ হিসেবে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থি কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও এ টি এম কামালকে (নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট) প্রাথমিক সদস্য পদসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ পদধারী কেউ নির্বাচন করলে তাকে বহিষ্কার করা হবে।

শিগগির তৈমূর আলম খন্দকারকে দলে ফেরানোর কোনো সম্ভাবনা রয়েছে কি না জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, আপাতত দলের এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেই।

০২:৩০ এএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ মঙ্গলবার

১৫ দিনের জন্য কঠোর লকডাউন দেওয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে অত্যন্ত উদ্বেগজনক হারে। এক সপ্তাহের ব্যবধানে করোনা রোগীর পরিমাণ বেড়েছে প্রায় তিন গুণ। হাসপাতালগুলোতে রোগীর চাপ বাড়ছে। ধীরে ধীরে কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালগুলো পুরনো রূপে ফিরতে শুরু করেছে।

রাজধানীর তিনটি হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, দুই সপ্তাহের ব্যবধানে রোগী বেড়েছে দশ গুণ। ল্যাবএইড হাসপাতালের জেনারেল ম্যানেজার ইফতেখার আহমেদ জানিয়েছেন, যেকোনো সময়ে পরিস্থিতি জটিল হওয়ার আশঙ্কায় তারা ইতোমধ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছেন। আগের অভিজ্ঞতা এবার কাজে লাগাতে চান তারা। তাদের দুটি হাসপাতালে ৪২টি করোনা বেডের বিপরীতে এখন রোগী আছে ৩৫ জন।

রাজধানীর বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালের সিইও আল এমরান চৌধুরী জানান, মানুষ ঠিকমতো মাস্ক পরে না, স্বাস্থ্যবিধি মানে না। এজন্য প্রতিদিনই করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। তার হাসপাতালে করোনার ৬০ বেডের বিপরীতে রোগী আছেন ৪৫ জন।

দ্রুততম সময়ের মধ্যে এক সপ্তাহ থেকে ১৫ দিনের জন্য কঠোর লকডাউন দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন আল এমরান চৌধুরী। রাইজিংবিডি

করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের সংক্রমণ দ্রুত বাড়ছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তাদের তথ্য অনুযায়ী, ২১ ডিসেম্বরের পর থেকে দেশে করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। গত ১৪ জানুয়ারি ৪ হাজার ৩৭৮ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়। ১৫ জানুয়ারি ৩ হাজার ৪৪৭ জনের, ১৬ জানুয়ারি ৫ হাজার ২২২ জনের, ১৭ জানুয়ারি ৬ হাজার ৬৭৬ জনের, ১৮ জানুয়ারি ৮ হাজার ৪০৭ জনের, ১৯ জানুয়ারি ৯ হাজার ৫০০ জনের, ২০ জানুয়ারি ১০ হাজার ৮৮৮ জনের এবং ২১ জানুয়ারি ১১ হাজার ৪৩৪ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়।


এদিকে, সংক্রমণের পাশাপাশি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালগুলোতে দিন দিন রোগী বাড়ছে। ৫০০ শয্যার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, সোমবার (২৪ জানুয়ারি) হাসপাতালটিতে কোভিড রোগীদের জন্য নির্ধারিত ২৭৫টি সাধারণ শয্যার মধ্যে রোগী আছে ২১৯ জন। শয্যা খালি ৫৬টি। ১০টি আইসিইউ’র মধ্যে আটটিতেই রোগী আছে। ১৫টি এইচডিইউ শয্যার মধ্যে ১০টিতে রোগী আছে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ইউনিট-২ ও বার্ন ইউনিটে গত মাসের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত তেমন রোগী দেখা না গেলেও বর্তমান অবস্থা ভিন্ন। ক্রমে পুরনো অবস্থায় ফিরছে হাসপাতালটি। সোমবার (২৪ জানুয়ারি) পর্যন্ত এই হাসপাতালের কোভিড সাধারণ শয্যার বিপরীতে রোগী আছে ৩২৪ জন। ৪৮৫টি সাধারণ শয্যার মধ্যে এখনও খালি রয়েছে ১৬৪টি। এখানে ২০টি আইসিইউর মধ্যে খালি আছে ৩টি। ৪০টি এইচডিইউ শয্যার মধ্যে ১৪টি খালি আছে।

প্রতিদিন যে হারে করোনা রোগী বাড়ছে, তা ঠেকাতে আবারও লকডাউন দেওয়ার প্রয়োজন আছে কি না? এ বিষয়ে জানতে চাইলে মেডিসিন ও হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. নুর মোহাম্মদ বলেন, ‘আগেরবার দেখেছি লকডাউন দেওয়াতে সংক্রমণ কমেছে। বর্তমানে যে অবস্থা অন্তত দুই সপ্তাহের জন্য কঠোরভাবে লকডাউন দেওয়া উচিত।’

অপরদিকে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. বরেন চক্রবর্তী বলেন, ‘আমি মনে করি না দেশে লকডাউন দেওয়ার সময় এসেছে। তবে, সবাইকে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। এর বিকল্প নেই।’

লকডাউন প্রশ্নে ডা. আ প ম সোহরাবুজ্জামান বলেন, ‘লকডাউনের চেয়ে বড় কথা, দেশের মানুষকে স্বাস্থ্য বিষয়ে শিক্ষিত করতে হবে। লকডাউন দিয়ে সাময়িকভাবে সংক্রমণ আটকানো যাবে, কিন্তু সচেতন না করা গেলে আবারও সংক্রমণ বাড়বে।’

ডা. মাহমুদা হোসেন মিমি বলেন, ‘আরও অন্তত ১৫ দিন আগেই লকডাউন দেওয়া উচিত ছিল। মানুষ যেহেতু স্বাস্থ্যবিধি মানছে না, তাই অবশ্যই ন্যূনতম দুই সপ্তাহের জন্য লকডাউন দেওয়া দরকার।’

অধ্যাপক ডা. ফরহাদ মনজুর বলেন, ‘সংক্রমণ গাণিতিক হারে বাড়ছে। বেশিরভাগই ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হচ্ছেন। এটা ততটা ক্ষতিকারক না। তবে, কেউ ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হলে কিন্তু তার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়বে। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে বাধ্য করতে হবে। সেটা নিশ্চিত করার জন্য মোবাইল কোর্ট বসিয়ে জরিমানা ও শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। তাতেও কাজ না হলে লকডাউনের কোনো বিকল্প নেই।’

০২:২৭ এএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ মঙ্গলবার

গৃহবধূকে ইভটিজিংয়ের অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতাসহ ৫ জনকে গণপিটুনি

মুন্সিগঞ্জে এক গৃহবধূকে ইভটিজিংয়ের অভিযোগে শহর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সিফাত সরকারসহ ৫ যুবককে গণপিটুনি দিয়েছে উত্তেজিত জনতা। সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে সদর উপজেলার চরাঞ্চলের আধারা ইউনিয়নের বকুলতলা এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

পিটুনিতে আহত হন মুন্সীগঞ্জ শহর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সিফাত সরকার (২৪), তার সহযোগী মো. রিফাত (২২), শাওন (২৩), নাঈম হাসান (২৩) ও মুন্না (২৪)। তাদের মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সন্ধ্যা ৭টার সিফাত সরকার তার ১০-১২ জন সহযোগীসহ ৮টি মোটরসাইকেল নিয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় তারা এক গৃহবধূকে অশালীন ভাষায় ইভটিজিং করেন। এতে ঘটনাস্থলে উপস্থিত স্থানীয়রা ক্ষিপ্ত হন। তারা ইভটিজারদের আটক করে পিটুনি দেন। এরপর তাদের মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠান তারাই। তাদের ব্যবহৃত মোটরসাইকেলও এ সময় ভাঙচুর করা হয়েছে।

তবে ইভটিজিংয়ের বিষয়টি অস্বীকার করে পূর্বশত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষ এই হামলা ও মারধর করেছে বলে দাবি করেছেন অভিুযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা সিফাত।

এ বিষয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, ঘটনার পরই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে এখনো কোনো পক্ষ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
জাগো নিউজ

০২:২২ এএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ মঙ্গলবার

যুক্তরাষ্ট্রের ইঙ্গেলহুডে বন্দুকধারীর হামলায় দুই নারীসহ নিহত ৪

যুক্তরাষ্ট্রে আবার বন্দুক হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে প্রাণ হারিয়েছেন দুই নারীসহ চারজন। হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন একজন। তাকে নিকটবর্তী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

পুলিশ সূত্রের বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, হামলা হয়েছে, লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে ইঙ্গেলহুডে একটি বাড়ি লক্ষ্য করে। ওই বাড়িতে একটি পার্টি চলছিল। অজ্ঞাতপরিচয় এক হামলাকারী ওই বাড়ি লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি চালান। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান চারজন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আহত ব্যক্তিকে হাসপাতালে পৌঁছে দেয়ার ব্যবস্থা করে।

১৯৯০ সালের পর ইঙ্গেলহুডে এ নিয়ে দ্বিতীয়বার হামলা হলো। কী কারণে হামলা, সে ব্যাপারে পুলিশ কিছু জানাতে পারেনি।

হামলাকারী সংখ্যায় একজন ছিল না একাধিক, সে ব্যাপারেও তারা কিছু জানাতে পারেনি। ঘটনাস্থলের পাশে থাকা সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে তাকে বা তাদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে।

প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, জেনেশুনে হামলার জন্য বাড়িটিকে চিহ্নিত করে আততায়ী। পুলিশ এর পেছনের ঘটনা জানার চেষ্টা করছে।

ইঙ্গেলহুডের মেয়র জেমস বাট জানিয়েছেন, স্থানীয় সময় রাত দেড়টায় পুলিশকে ফোন করে হামলার খবর দেয়া হলে পুলিশ সেখানে পৌঁছায়। ঘটনাস্থল থেকে চারজনকে মৃত উদ্ধার করা হয়েছে। একজনের আঘাত গুরুতর। নিকটবর্তী হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছে। হামলার কারণ জানতে পুলিশ উচ্চপর্যায়ের তদন্ত করছে। আশা করা যায়, হামলাকারী শিগগির ধরা পড়বে। পুলিশ হতাহতদের নাম প্রকাশ করেনি।

গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রের ডেনভার ও লেকউডে এক বন্দুকধারীর গুলিতে চারজন নিহত হন। পুলিশ জানায়, অন্তত চারটি স্থানে এ হামলা চালানো হয়। প্রথমে ডেনভারে ওই বন্দুকধারীর গুলিতে দুই নারী ও এক পুরুষ নিহত হন। আহত হন এক পুরুষ। পরে বন্দুকধারী পাশের লেকউডে গিয়ে গুলি চালায়। সেখানে মারা যান একজন। তখনও পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে পুলিশের গুলিতে মারা যায় বন্দুকধারী। দুই পক্ষের গোলাগুলিতে এক পুলিশ কর্মকর্তা আহত হয়েছেন। তবে তখনও হামলাকারীর পরিচয় জানা যায়নি।

সূত্র: বিবিসি

০২:২১ এএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ মঙ্গলবার

তৈমূর কেন সব হারালেন?

আওয়ামী লীগ সরকারের অধীন কোনো নির্বাচনে যাবে না বিএনপি—দলটির এমন সিদ্ধান্তের পরও ইউনিয়ন, পৌরসভা ও উপজেলা পরিষদসহ স্থানীয় সরকার নির্বাচনে তাদের নেতাকর্মীরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়েছেন। অনেক জায়গায় জিতেও এসেছেন তারা। বিজয়ী প্রার্থীদের দল থেকে বহিষ্কারের তেমন কোনো নজির তৈরি করেনি বিএনপি।

নেতাকর্মীদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে ভোটে নামার ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে লড়েছিলেন চেয়ারপারসনের সাবেক উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারও। কিন্তু ভোটে নাম লেখানোর পরই বিএনপির বিভিন্ন পদ-পদবি থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। আর ভোটে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীর কাছে বিপুল ভোটে হেরে যাওয়ার পর তাকে বিএনপি থেকেই বহিষ্কার করা হয়েছে।

এই বহিষ্কারাদেশের পর এখন আলোচনা উঠছে, ঢাকার প্রবেশমুখ নারায়ণগঞ্জের ময়দানের বর্ষিয়ান রাজনীতিক তৈমূরের ক্যারিয়ার কি এখানেই শেষ? নাকি সংস্কারপন্থিদের মতো ‘শাস্তিভোগ’ শেষে ফিরে আসবেন দলে?

তার প্রতি সহানুভূতিশীল নেতাদের একটি অংশ বলছে, তৈমূর অবস্থাদৃষ্টে বহিষ্কার হলেও ছ’মাস-এক বছরের মধ্যেই ‘প্রমোশন’ নিয়ে দলে ফিরতে পারেন। অবশ্য দায়িত্বশীলদের বক্তব্য, আপাতত তার দলে ফেরার কোনো সম্ভাবনা নেই।

বিএনপির রাজনীতি পর্যবেক্ষকরা বলছেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দল হিসেবে বিএনপি অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও নেতাকর্মীদের স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করার আগ্রহের ক্ষেত্রে তাদের অবস্থান নমনীয় ছিল।

গত ২ নভেম্বর ঠাকুরগাঁয়ে নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছিলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিএনপি থেকে কেউ প্রার্থী হলে দলীয়ভাবে তাকে বাধা দেওয়া হবে না। স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবে করাটা সঠিক নয়। তাই বিএনপি এ নির্বাচনে দলীয়ভাবে অংশ নিচ্ছে না। তবে বিএনপি থেকে কেউ স্বতন্ত্র হয়ে অংশ নিলে সেখানে বাধা নেই।

তৈমূরের সমর্থক নেতাকর্মীদের প্রশ্ন, দলীয় অবস্থান এমন ‘নমনীয়’ হলে কী এমন ঘটলো যে তৈমূরকে প্রথমে দলের গুরুত্বপূর্ণ পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে পরে একেবারে দল থেকেই বহিষ্কার করতে হলো? কেন তিনি সব হারালেন?

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন ভাইস চেয়ারম্যান বলছেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিএনপি প্রতীক না দিলেও নেতাকর্মীদের অংশ নেওয়ার ক্ষেত্রে কোনো বাধা ছিল না। তৈমূর আলম খন্দকার হেরে গেছেন, তাই তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে সরকারের সঙ্গে আঁতাতের অভিযোগে। যদি জিততে পারতেন, তাহলে নিশ্চয়ই দল এ সিদ্ধান্ত নিতো না।

নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনে তৈমূর অংশ নেওয়ার কারণে সেখানকার নেতাকর্মীরা চাঙ্গা হয়েছেন দাবি করে এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, একজন ‘আবাসিক নেতা’র কূটমন্ত্রে তাকে বহিষ্কার করা হলো। ছ’মাস-এক বছরের মধ্যে ওই নেতার যখন পদ বদলি হবে তখন প্রমোশন দিয়ে তৈমূরকে বিএনপি বরণ করে নেবে।

এর আগে অনেককে নির্বাচনজনিত কারণে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে, আবার তারা ফিরেও এসেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, শুধু নির্বাচন নয়, ওয়ান-ইলেভেনের সময় যখন (সংস্কারপন্থিদের) কেউ কেউ দলের সর্বোচ্চ নেতৃত্বের বিরুদ্ধে গিয়েছেন, জিয়া পরিবারকে আক্রমণ করেছেন, দলের নেতাকর্মীদের আক্রমণ করেছেন, তারাও দলে ফিরেছেন। বিএনপি একটি উদার গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল।

অবশ্য পল্টন থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফিরোজ আলম পাটোয়ারীর বক্তব্য, দলের সিদ্ধান্ত যৌক্তিক। তিনি দাবি করেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর থেকেই সামাজিক মাধ্যমগুলোতে বিএনপির বেশ কিছু নেতাকর্মী তৈমূর আলম খন্দকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন। সরকারের পাতানো নির্বাচনে ইভিএমের বৈধতা দিতে অর্থের বিনিময়ে তৈমূর আলম খন্দকার এই নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন এবং ইভিএমের বিরোধিতা না করে নির্বাচনের ফলাফল মেনে নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীকে মিষ্টি খাইয়ে অভিনন্দন জানিয়েছেন, এই কারণে তার বহিষ্কার যৌক্তিক।

সিনিয়র নেতাকে বহিষ্কার করায় দল ক্ষতিগ্রস্ত হয় কি না জানতে চাইলে ফিরোজ আলম বলেন, ব্যক্তির চেয়ে দল বড়, দলের চেয়ে দেশ বড়। দলীয় শৃঙ্খলার চেয়ে ব্যক্তি গুরুত্বপূর্ণ হতে পারেন না।

এ বিষয়ে বিএনপির অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী নেতা সাইদুল ইসলাম মিন্টু ফেসবুকে লিখেছেন, ‘দলীয় সিদ্ধান্ত না মেনে চার কোটি টাকার বিনিময়ে অবৈধ সরকারের কাছে বিক্রি হয়ে ইভিএমকে বৈধতা দেওয়ার জন্য স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে দলের সাধারণ সদস্য পদসহ সকল পদ থেকে বহিষ্কার করেছে বিএনপি। বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্বের এই সিদ্ধান্তকে আমি স্বাগত জানাই।’

বিএনপি নেতাকর্মীদের ‘স্বতন্ত্র’ লড়াই
জানা গেছে, বিএনপি দলীয়ভাবে ভোটে না গেলেও তাদের অনেক নেতাকর্মী স্বতন্ত্র হিসেবে লড়েছেন ইউনিয়ন, পৌরসভা, উপজেলা পরিষদসহ স্থানীয় সরকার নির্বাচনে। এর মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বেশ সাড়া পেয়েছেন তাদের প্রার্থীরা।


হিসাব মতে, রাজশাহী বিভাগের ইউপি ভোটে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র লড়াই করে জয়ী হয়েছেন বিএনপির ২৬ জন। তাদের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জয় এসেছে রংপুর বিভাগে, সেখানে ১৮ জন ইউপি চেয়ারম্যান হয়েছেন। ঢাকা বিভাগে বিএনপির ১৭ জন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। চট্টগ্রাম ও সিলেটে বিজয়ীর এই সংখ্যা ১৩ জন করে। এছাড়া ময়মনসিংহ, খুলনা এবং বরিশালেও তাদের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নেতাকর্মী চেয়ারম্যান হয়েছেন।

এদিকে মেয়র পদে তৈমূর ছাড়াও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের বিভিন্ন ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে লড়াই করেছেন বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। ভোটে এক নারী কাউন্সিলরসহ ১০টি কাউন্সিলর পদে জয় এসেছে তাদের।

দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে গাজীপুরের কালিয়াকৈর পৌরসভা নিবাচনে অংশ নেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য মজিবুর রহমানও। তিনি কালিয়াকৈর পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এবং জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়কও। মোবাইল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে জিতে এসেছেন মজিবুর। তিনিসহ বিজয়ী কোনো নেতার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়নি বিএনপি।

তৈমূর যা ভাবছেন
আনীত সব অভিযোগ শুরু থেকেই অস্বীকার করছেন তৈমূর আলম খন্দকার। দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ নাকচ করার পাশাপাশি তিনি বলছেন, বিজয়ী প্রার্থীকে মিষ্টিমুখ করানোর বিষয়টি সৌজন্যবোধ।

নির্বাচনে অংশগ্রহণে কেউ বাধা দেয়নি দাবি করে তৈমূর বলেন, নির্বাচনের কারণে অন্য কোথাও কাউকে বহিষ্কার না করা হলেও আমাকে কোনো কারণ দর্শানোর (শোকজ) নোটিশ ছাড়াই বহিষ্কার করা হয়েছে।

তৈমূর আলম বলেন, দল আমাকে রাজপথের আন্দোলন-সংগ্রাম থেকে মুক্তি দিয়েছে। এখন আমার সামনে দুটি কাজই খুঁজে পেয়েছি। একটি হলো যাকে আমি মায়ের মতো শ্রদ্ধা করি, বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য এবং ভোট ডাকাতির মেশিন ইভিএমের বিরুদ্ধে জনমত সৃষ্টি করা। আমি বিএনপির পক্ষেই কাজ করে যাবো।

যা বলছেন দায়িত্বশীলরা
তৈমূর আলম খন্দকারকে বহিষ্কারের কারণ হিসেবে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থি কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও এ টি এম কামালকে (নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট) প্রাথমিক সদস্য পদসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ পদধারী কেউ নির্বাচন করলে তাকে বহিষ্কার করা হবে।

শিগগির তৈমূর আলম খন্দকারকে দলে ফেরানোর কোনো সম্ভাবনা রয়েছে কি না জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, আপাতত দলের এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেই।

০২:১৯ এএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ মঙ্গলবার

শাবিপ্রবিতে ফেনসিডিলসহ আটক দুই গার্ড

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে চলছে শিক্ষার্থীদের টানা আন্দোলন। ক্যাম্পাসে এ উত্তেজনার মধ্যেই নতুন একটি ঘটনা চাঞ্চল্যের জন্ম দিল।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদের ‘ঘনিষ্ঠ’ হিসেবে পরিচিত এক শিক্ষকের জন্য ফেনসিডিল আনতে গিয়ে জাহিদুর রহমান নামে এক নিরাপত্তাকর্মীসহ দুই ব্যক্তি আটক হয়েছেন।

০১:৫৯ এএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২২ মঙ্গলবার

সোমবার থেকে ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অর্ধেক জনবল নিয়ে চলবে অফিস

নতুন ধরন ওমিক্রনসহ করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যে সরকারি-বেসরকারি অফিসের ক্ষেত্রে নতুন নির্দেশনা জারি করেছে সরকার। সোমবার (২৪ জানুয়ারি) থেকে আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অর্ধেক জনবল নিয়ে চলবে অফিস।

রোববার (২৩ জানুয়ারি) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

এতে বলা হয়, করোনাভাইরাসজনিত রোগ (কোভিড-১৯) সংক্রমণের পরিস্থিতি বিবেচনায় আগের সিদ্ধান্তের ধারাবাহিকতায় আগামী ২৪ জানুয়ারি থেকে ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত নতুন তিনটি শর্ত সংযুক্ত করে সার্বিক কার্যাবলি/চলাচলে বিধি-নিষেধ আরোপ করা হলো।

১. সব সরকারি/আধাসরকারি/স্বায়ত্তশাসিত/বেসরকারি অফিসসমূহ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণপূর্বক অর্ধেক সংখ্যক কর্মকর্তা/কর্মচারী নিয়ে পরিচালনা করতে হবে। অন্যান্য কর্মকর্তা/কর্মচারীরা নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করবেন এবং দাপ্তরিক কার্যক্রম ভার্চুয়ালি (ই-নথি, ই-টেন্ডারিং, ই-মেইল, এসএমএস, হোয়াটসঅ্যাপসহ অন্যান্য মাধ্যম) সম্পন্ন করবেন।

২. বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আদালতসমূহের বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা জারি করবে।

৩. ব্যাংক/বীমা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করবে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় গত ১৩ জানুয়ারি থেকে ১১টি বিধি-নিষেধ দিয়েছে সরকার। এরপরও ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণে প্রভাব না পড়ায় গত শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়াসহ নতুন করে ৬টি নির্দেশেনা দেয়া হয়। ওই নির্দেশনায় আরও বলা হয়েছে- রাষ্ট্রীয়, সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় সমাবেশ ও অনুষ্ঠানসমূহে ১০০ জনের বেশি মানুষের সমাবেশ করা যাবে না। এ সবক্ষেত্রে যারা যোগদান করবেন তাদের অবশ্যই করোনা টিকার সনদ অথবা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে করা পিসিআর টেস্টের নেগেটিভ সনদ থাকতে হবে।

সর্বশেষ রোববারের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় (শনিবার সকাল ৮টা থেকে রোববার সকাল ৮টা পর্যন্ত) করোনায় আরও ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে আক্রান্ত রোগী হিসেবে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন আরও ১০ হাজার ৯০৬ জন। শনাক্তের হার ৩১ দশমিক ২৯।

০৩:৫৪ এএম, ২৪ জানুয়ারি ২০২২ সোমবার

উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে শাবিপ্রবিতে মশাল মিছিল

 

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগ দাবিতে মশাল মিছিল করেছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

রোববার (২৩ জানুয়ারি) রাত ১০টার দিকে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে থেকে মিছিলটি শুরু হয়। ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পরে একই জায়গায় এসে মিছিলটি শেষ হয়।

মশাল মিছিলে প্রায় দুই শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন। উপাচার্য পদত্যাগ না করা পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা কর্মসূচি অব্যাহত রাখবেন বলে জানিয়েছেন।

এদিকে, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের হামলার ঘটনায় উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে শাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি। পাশাপাশি নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠন করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তারা।

রোববার (২৩ জানুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের মিনি অডিটোরিয়ামে আয়োজিত শিক্ষকদের এক সভায় এই সিদ্ধান্ত নেন সমিতির নেতারা। সভায় চলমান সংকট নিরসনে চার দফা দাবি জানানো হয়।

অন্যদিকে শাবিপ্রবির চলমান সংকট নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা। রোববার বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক ১০৫ নেতা বিবৃতি দেন। এতে বর্তমান পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে দ্রুত সমাধানের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তিন দফা দাবি তুলে ধরা হয়।

গত ১৩ জানুয়ারি থেকে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রভোস্ট কমিটির পদত্যাগসহ তিন দফা দাবিতে আন্দোলনে নামেন শিক্ষার্থীরা। পরে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিও সামনে আসে।

এরপর ১৬ জানুয়ারি বিকেলে তিন দফা দাবি আদায়ে উপাচার্যকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইআইসিটি ভবনে অবরুদ্ধ করেন শিক্ষার্থীরা। পরে পুলিশ উপাচার্যকে উদ্ধার করতে গেলে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই সময় পুলিশ সাউন্ড গ্রেনেড, টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট ছুড়ে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এতে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। পুলিশ ৩০০ জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে মামলা করে।

১৯ জানুয়ারি বিকেলে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে তার বাসভবনের সামনে আমরণ অনশন শুরু করেন ২৩ জন শিক্ষার্থী। একই দাবিতে পরদিন বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে কয়েকশো শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসে মশাল মিছিল বের করেন। অনশনে অসুস্থ ১৬ শিক্ষার্থী বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

 

০৩:৪২ এএম, ২৪ জানুয়ারি ২০২২ সোমবার

সন্তানদের সহায়তায় কংগ্রেসে আপোস

জনপ্রতি আবারও ৩০০ ডলার প্রদানের উদ্যোগ

ডেমোক্র্যাটরা নতুনভাবে সন্তান প্রতি ৩০০ ডলার প্রদানের উদ্যোগ নিচ্ছে। এই কর্মসূচির অন্যতম বিরোধিতাকারী দলীয় সিনেটর জো ম্যানচিনের সাথে আপোষ রফার পথ খোঁজা হচ্ছে। তারা মনে করেন, এটি মধ্যবিত্ত ও নি¤œ মধ্যবিত্ত আমেরিকান পরিবারে সবচেয়ে জনপ্রিয় কর্মসূচি। গত ১৫ ডিসেম্বর থেকে তা বন্ধ হয়ে গেছে। অনেক আমেরিকান পরিবার এই চেকের ওপর ছিল নির্ভরশীল্ তাদেও হাত খরচ ও মাসিক গ্রোসারীর যোগান হতো এ অর্থ থেকে। বিল্ড ব্যাক ব্যাটার ১.৮ ট্রিলিয়ন ডলারের বিলে এ কর্মসূচি আরও ১ বছরের জন্য বাড়ানোর প্রস্তাব ছিল। কিন্তু ডেমোক্র্যাট দলীয় ভারজেনিয়ার সিনেটর  ম্যানচিন ও আরিজোনার সিনেটর সিনেমার নেতিবাচক অবস্থানের কারনে তা মৃতপ্রায়। হাউজে বিলটি পাস হবার পরও তাদের জন্যই সিনেটে এখনও ঝুলে আছে।

০২:৫২ এএম, ২২ জানুয়ারি ২০২২ শনিবার

বি এবং জি ট্রেন চালু

সাবওয়েতে অপরাধ বেড়েছে

আবার চালু হলো বি ও জি ট্রেইন। ওমিক্রন করোনা ও এমটিএ স্টাফ স্বল্পতায় গেল বছর বি,জি এবং ডব্লিউ ট্রেন সার্ভিস স্থগিত করা হয়েছিল। ডব্লিউ ট্রেন এখনও চালু না হলেও গত বুধবার ১৯ জানুয়ারি যাত্রী সেবা নিয়ে ট্রেন ট্রাকে ফিরে এসেছে বি ও জি সাবওয়ে। এ ছাড়া এমটিএ কর্তৃপক্ষ সিটির ব্যস্ত সময়ে ৬, ৭ ও এ ট্রেনের এক্সপ্রেস সার্ভিস আবার পুর্নবহাল করেছে। করোনার কারনে তা এতদিন বন্ধ ছিল। এখনও এমটিএ এর শতকরা ১৪ ভাগ কর্মচারি করোনায় ছুটিতে রয়েছেন।

০২:৪৪ এএম, ২২ জানুয়ারি ২০২২ শনিবার

বাড়ি মালিকদের জন্য আসছে সুখবর : ৫ বছর কর বাড়বে না

নিউইয়র্কের মধ্যবিত্তদের ইনকাম ট্যাক্স কমছে

নিউইয়র্ক গর্ভনর ক্যাথি হোকল ২১৬ বিলিয়ন ডলারের উচ্চাভিলাসী বাজেট পেশ করলেন। গত মঙ্গলবার আগামী অর্থ বছরের এ বাজেট ঘোষণা করেন। যাতে মধ্যবিত্ত নিউ ইয়র্কারদের ইনকাম ট্যাক্স কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। বাড়ির মালিকদের জন্য থাকছে সুখবর।  কমানো হবে প্রোপার্টি ট্যাক্স। আগামি ৫ বছরের মধ্যে কোন রেসিশন বা করোনার মতো কোন মহামারি আসলে তা মোকাবেলায় ১৬ বিলিয়ন ডলার আলাদাভাবে বরাদ্দ রাখা হয়েছে। বিশাল অংকের এ বাজেটে একটি অংশ আসবে ফেডারেল সরকারে অনুদান থেকে। করোনাকালে কেন্দ্র থেকে প্রাপ্তের প্রায় ৭ বিলিয়ন ডলার উদ্বৃত্ত রয়েছে। তা বাজেটের আয়ের উৎসের সাথে দেখানো হয়েছে। এ ৭ বিলিয়ন ডলারের ১.২ বিলিয়ন মধ্যবিত্ত জনগনের জন্য ইনকাম ট্যাক্স কাট ও ২.২ বিলিয়ন প্রোপার্টি ট্যাক্স রিলিফের।করোনাকালীন সময়ে হেলথ কেয়ার ওয়ার্কারদের অবদানের কথা বিবেচনা করে রাখা হয়েছে বিশেষ বোনাস বরাদ্দ। যার পরিমান ২.৮ বিলিয়ন ডলার।

০২:৪১ এএম, ২২ জানুয়ারি ২০২২ শনিবার

রেষারেষিতে আজমেরীর দুই বাস, ঝরল শিশুর প্রাণ

রাজধানীর মগবাজারে আজমেরী গ্লোরী পরিবহনের দুই বাসের মাঝে চাপা পড়ে রাকিব (১২) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় জড়িত বাস দুটি জব্দ করা হয়েছে।

শিশু রাকিবকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসেন মুদি দোকানদার মো. হারুন রশিদ। তিনি ঢাকা পোস্টকে বলেন, ‘ঘটনার সময় বাসের যাত্রীদের কাছে মাস্ক বিক্রি করছিল রাকিব। আজমেরী পরিবহনের দুটি বাস নিজেদের মধ্যে রেষারেষি করতে গিয়ে একটি অপরটির খুব কাছে চলে আসে। এতে ওই দুই বাসের মাঝে চাপা পড়ে রাকিব। আমি তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে আসি। এখানে আনার পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।’


বিষয়টি নিশ্চিত করে রমনা থানার পরিদর্শক (অপারেশন) ফজলুর রহমান ঢাকা পোস্টকে বলেন, দুর্ঘটনায় জড়িত আজমেরী গ্লোরী পরিবহনের বাস দুটি জব্দ করা হয়েছে। দুটি বাসেরই চালক পালিয়ে গেছেন।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, মগবাজার থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় এক শিশুকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে আসা হয়। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। শিশুটির মরদেহ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের মর্গে রাখা হয়েছে।

০২:৪৭ এএম, ২১ জানুয়ারি ২০২২ শুক্রবার

যুব বিশ্বকাপ: কানাডার বিপক্ষে বাংলাদেশের দাপুটে জয়

 আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে জয়ের দেখা পেল বাংলাদেশের যুবারা। ওপেনার ইফতেখার হোসাইনের অপরাজিত ৬১ রানে ভর করে ১১৯ বল হাতে রেখে ৮ উইকেটের জয় পায় টাইগার যুবারা।

এদিন টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ভালো শুরু করে কানাডা। ধীরগতির ব্যাটিংয়ে এগিয়ে যেতে থাকা কানাডা প্রথম উইকেট হারায় একাদশ ওভারে। তবে বাংলাদেশের যুবাদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে শেষ পর্যন্ত ১৩৬ রানেই গুটিয়ে যায় কানাডা।
বাংলাদেশের হয়ে ৪টি করে উইকেট শিকার করেন রিপন মণ্ডল ও এসএম মেহরব। বাকি ২টি উইকেট পান আশিকুর জামান।

জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দারুণ শুরু করে বাংলাদেশ। পঞ্চম ওভারে খারুদের শিকার হয়ে ব্যক্তিগত ১২ রান সংগ্রহ করে সাঝঘরে ফেরেন ওপেনার মাহফিজুল ইসলাম। তিনে ব্যাট করতে নামা প্রান্তিক নওরোজ নাবিল খেলেন ঝড়ো ইনিংস। ৫২ বরে ৫ চারে ৩৩ রান করে বিদায় নেন তিনি। নাবিল বিদায় নিলেও ওপেনার ইফতিখার ব্যাট হাতে থিতু হয়ে দলের হাল ধরে রেখেছিলেন। চারে ব্যাট করতে নামা আইচ মোল্লার ক্যামিও ইনিংসে শেষ পর্যন্ত ১১৯ বল হাতে রেখে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।

দুর্দান্ত ইনিংস খেলা ইফতেখার ৮৯ বলে ৬১ রান করে অপরাজিত ছিলেন। তার ব্যাট থেকে এসেছে সাতটি চার। ২০ রানে অপরাজিত থাকেন আইচ মোল্লা।

০২:৪৫ এএম, ২১ জানুয়ারি ২০২২ শুক্রবার

রাসুল (সা.)-এর জীবনী পাঠ করার প্রয়োজনীয়তা

পৃথিবীর ইতিহাস যাকে নিয়ে গর্ব করে। যার আদর্শে মানুষ খুঁজে পায় সঠিক পথের দিশা। হাজার বছর ধরে কোটি কোটি মানুষ যাকে অনুসরণ করে আসছে নির্দ্বিধায়। তিনি আমাদের প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম।
ইতিহাসের পাতায় খোঁজ করলে এমন অনেক বিস্ময়কর মনীষার উদাহরণ পাওয়া যায়, যাদের চিন্তা-চেতনা সারা পৃথিবীতে বিস্তার লাভ করেছে। এমনকি যাদেরকে তাদের স্বতন্ত্র আদর্শ ও কৃতিত্বের কারণে মানুষ আজো শ্রদ্ধা ও ভক্তির সঙ্গে স্মরণ করে থাকে। এসব মহামানবদের কারো কারো জ্ঞান ও প্রতিভা সরাসরি ‘ওহিয়ে এলাহী’ থেকে আহরিত ও উৎসারিত আর কারো গ্রহণযোগ্যতা ও প্রতিভা তার নিজস্ব চিন্তা, দর্শন এবং রুচি ও হিকমতের ফসল।

০২:৩৫ এএম, ২১ জানুয়ারি ২০২২ শুক্রবার

সম্পদের হিসাব: সাড়া মেলেনি কর্মচারীদের, সভায় বসছে মন্ত্রণালয়

বিধি অনুযায়ী সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পদের হিসাব দিতে দেড় বছরের বেশি সময় আগে সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে চিঠি দিয়েছিল জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এরপর মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোর অধীন দপ্তর-সংস্থাসহ নিজেদের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের তাগিদ দিয়েই যাচ্ছে। কিন্তু সম্পদের হিসাব দিতে সাড়া নেই সরকারি চাকরিজীবীদের।

এই প্রেক্ষাপটে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করতে সভায় বসছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। আগামী সপ্তাহের যে কোনো দিন এই সভা হবে। একই সঙ্গে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পদের হিসাব দেওয়া নিয়ে একটি ডাটাবেজও তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সহজে হিসাব জমা দেওয়ার জন্য একটি ফরমও প্রস্তুত করা হচ্ছে বলে মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

আমরা এটা নিয়ে আগামী সপ্তাহে একটি মিটিং ডাকবো। সেই মিটিংয়ে সব কিছু পর্যালোচনা করে পরবর্তী করণীয় ঠিক করা হবে। আমরা এরপর আপনাদের সিদ্ধান্ত জানাবো

সম্পদের হিসাব চেয়েও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাড়া মিলছে না—এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের পরবর্তী পদক্ষেপ কী জানতে চাইলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কে এম আলী আজম জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমরা এটা (সরকারি চাকরিজীবীদের সম্পদের হিসাব দেওয়া) নিয়ে আগামী সপ্তাহে একটি মিটিং ডাকবো। সেই মিটিংয়ে সব কিছু পর্যালোচনা করে পরবর্তী করণীয় ঠিক করা হবে। আমরা আপনাদের সিদ্ধান্ত জানাবো। সভায় আমাদের মন্ত্রণালয়ের লোকজনই থাকবেন। সভার তারিখটি এখনো নির্ধারণ করা হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘চাকরিজীবন পাঁচ বছর পূর্ণ হওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পদের হিসাব দিতে হবে। যার পাঁচ বছরের কম হয়েছে তিনি তো দেবেন না।’

আলী আজম আরও বলেন, ‘আমরা একটা ডাটাবেজ তৈরি করবো, কার কবে পাঁচ বছর পূর্ণ হয়, সেভাবে তাকে হিসাব দিতে হবে। আমরা একটা নতুন ফরমও ডেভেলপ করবো, যাতে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সহজে সম্পদের হিসাব আমাদের কাছে দাখিল করতে পারেন। আগে আমরা সভাটা করি।’


‘সরকারি কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা, ১৯৭৯’ অনুযায়ী পাঁচ বছর পরপর সরকারি চাকরিজীবীদের সম্পদ বিবরণী দাখিল ও স্থাবর সম্পত্তি অর্জন বা বিক্রির অনুমতি নেওয়ার নিয়ম রয়েছে। কিন্তু সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এই নিয়ম মানছেন না। এ বিষয়ে এতদিন সরকারেরও কোনো তদারকি ছিল না।

এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুশাসনের পরিপ্রেক্ষিতে বিধিমালাটি বাস্তবায়নের মাধ্যমে সম্পদ বিবরণী দাখিল ও স্থাবর সম্পত্তি অর্জন বা বিক্রির নিয়ম মানতে সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সিনিয়র সচিব বা সচিবদের কাছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে গত বছরের ২৪ জুন চিঠি পাঠানো হয়।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ওই চিঠির পর মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলো তাদের অধীন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পদের হিসাব দিতে চিঠি পাঠায়। এতে সাড়া না মেলায় ফের তাগাদা দিয়ে চিঠি পাঠানো হয়।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের চিঠির পর গত বছরের ১২ আগস্ট মন্ত্রণালয়ের অধীন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পদের হিসাব চায় সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়। এতে সাড়া না দেওয়ায় গত ৬ জানুয়ারি আবারও তাগিদ দিয়ে চিঠি পাঠায় মন্ত্রণালয়।

সেই চিঠিতে বলা হয়, ‘সরকারি কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা, ১৯৭৯’-এর বিধি ১১, ১২ ও ১৩-তে সরকারি কর্মচারীদের স্থাবর সম্পত্তি অর্জন, বিক্রয় ও সম্পদ বিবরণী দাখিলের বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সুশাসন নিশ্চিতে প্রধানমন্ত্রী উল্লিখিত বিধিগুলো কার্যকরভাবে কর্মকর্তাদের অনুসরণের বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে জোর নির্দেশনা দিয়েছেন।’


জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের চিঠি অনুযায়ী, সম্পদ বিবরণী দাখিল ও স্থাবর সম্পত্তি অর্জন বা বিক্রির ক্ষেত্রে ছক পূরণ করে প্রশাসন-১ শাখায় পাঠানোর জন্য মন্ত্রণালয়ের সব কর্মকর্তা/কর্মচারীকে চিঠি পাঠানো হয়েছে জানিয়ে চিঠিতে বলা হয়, ‘কিন্তু অদ্যাবধি এ বিষয়ে তথ্য পাওয়া যায়নি।’ তাই ছক অনুযায়ী সম্পদের হিসাব মন্ত্রণালয়ের প্রশাসন-১ শাখায় পাঠানোর জন্য অনুরোধ জানানো হয় ওই চিঠিতে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৮ জুলাই কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পদের হিসাব দেওয়ার নির্দেশনা দেয় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

গত বছরের ১৮ আগস্ট দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় অধীনস্থ দপ্তর-সংস্থা ছাড়াও মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পদ বিবরণী দাখিলের বিষয়ে নির্দেশনা দেয়। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ের কমিশনার ও ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির পরিচালকের (প্রশাসন) কাছে এই চিঠি দেওয়া হয়।

পরে ৮ সেপ্টেম্বর দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাদের কাছে সম্পদের হিসাব চেয়ে চিঠি দেয়।

পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ গত বছরের ১৮ আগস্ট সম্পদের হিসাব দিতে কর্মচারীদের চিঠি পাঠায়। গত বছরের ২৫ আগস্ট ভূমি মন্ত্রণালয় সম্পদের হিসাব চেয়ে চিঠি দেয়। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় হিসাব চেয়ে অধীনস্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চিঠি দেয় ১৫ জুলাই। পরে ১২ আগস্ট গণপূর্ত অধিদপ্তরও সংশ্লিষ্টদের চিঠি দেয়।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে যা বলা হয়েছিল
গত বছরের ২৪ জুন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের শৃঙ্খলা-৪ শাখার উপ-সচিব নাফিসা আরেফীন স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, সরকারি কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা, ১৯৭৯’-এর বিধি ১১, ১২ ও ১৩-তে সরকারি কর্মচারীদের স্থাবর সম্পত্তি অর্জন, বিক্রয় ও সম্পদ বিবরণী দাখিলের বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সুশাসন নিশ্চিতে প্রধানমন্ত্রী উল্লিখিত বিধিগুলো কার্যকরভাবে কর্মকর্তাদের অনুসরণের বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়কে জোর নির্দেশনা দিয়েছেন।

এ অবস্থায়, ‘সরকারি চাকরি আইন, ২০১৮’-এর আওতাভুক্তদের তাদের নিয়ন্ত্রণকারী প্রশাসনিক মন্ত্রণালয়/দপ্তর/অধীন সংস্থায় কর্মরত সব সরকারি কর্মকর্তার সম্পদ বিবরণী দাখিল, ওই সম্পদ বিবরণীর ডাটাবেজ তৈরি ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে স্থাবর সম্পত্তি অর্জন ও বিক্রয়ের অনুমতি নেওয়ার বিষয়ে ‘সরকারি কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা, ১৯৭৯’-এর ১১, ১২ ও ১৩ বিধি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে প্রতিপালনের মাধ্যমে জরুরি ভিত্তিতে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে জানানোর নির্দেশনা দেওয়া হয় ওই চিঠিতে।

এছাড়া সরকারি কর্মচারীর জমি/বাড়ি/ফ্ল্যাট/সম্পত্তি ক্রয় বা অর্জন ও বিক্রির অনুমতির জন্য আবেদনপত্রের নমুনা ফরম ও বিদ্যমান সম্পদ বিবরণী দাখিলের ছকও চিঠির সঙ্গে পাঠানো হয়। - জাগো নিউজ

০২:৩২ এএম, ২১ জানুয়ারি ২০২২ শুক্রবার

জাতিসংঘে ১২ মানবাধিকার সংস্থার চিঠি

শান্তিরক্ষা মিশনে র‌্যাব নিষিদ্ধের দাবি

 জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশন থেকে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নকে (র‌্যাব) নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছে ১২টি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা। সংস্থাগুলো এমন দাবি জানিয়ে জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল জ্যাঁ পিয়েরে ল্যাকরোইক্সকে চিঠি দিয়েছে। গতকাল এই চিঠির বিষয়টি হিউম্যান রাইটস ওয়াচের (এইচআরডব্লিউ) ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে। চিঠিতে এই মানবাধিকার সংস্থাগুলো বলেছে, জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রম বিভাগের উচিত র‌্যাবকে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশন থেকে নিষিদ্ধ করা। চিঠির সঙ্গে র‌্যাবের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগগুলো যুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। চিঠিতে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো বলেছে, র‌্যাবের কিছু কিছু সদস্যের বিরুদ্ধে বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড, জোরপূর্বক গুম, নির্যাতনসহ মানবাধিকার লঙ্ঘনের নানা অভিযোগ রয়েছে। এ জন্য আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশন থেকে র‌্যাবকে নিষিদ্ধের দাবি জানিয়েছে। চিঠিতে জাতিসংঘের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে সংস্থাগুলো বলছে, জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে কাউকে নিয়োগ দেওয়ার আগে একটি যাচাই পদ্ধতি চালু করা উচিত, যেখানে বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড, গুম, নির্যাতনের অভিযোগও তদন্ত করে দেখা হবে। চিঠিতে স্বাক্ষর করেছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ, এশিয়ান ফেডারেশন অ্যাগেইন্স ইন-ভলান্টারি ডিসঅ্যাপিয়ারেন্স (এএফএডি), এশিয়ান ফোরাম ফর হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট বা ফোরাম এশিয়া, এশিয়ান হিউম্যান রাইটস কমিশন, এশিয়ান নেটওয়ার্ক ফর ফ্রি ইলেকশনস (এএনএফআরইএল), ওয়ার্ল্ড অ্যালায়েন্স ফর সিটিজেন পার্টিসিপেশন, ক্যাপিটাল পানিশমেন্ট জাস্টিস প্রজেক্ট, ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন ফর হিউম্যান রাইটস, রবার্ট এফ কেনেডি হিউম্যান রাইটস, দ্য অ্যাডভোকেটস ফর হিউম্যান রাইটস, ওয়ার্ল্ড অর্গানাইজেশন অ্যাগেইনস্ট টর্চার (ওএমসিটি)। গত বছরের ৮ নভেম্বর জ্যাঁ পিয়েরে ল্যাকরোইক্সকে এই চিঠি পাঠানো হয়। জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রম বিভাগ এখনো এই চিঠির আনুষ্ঠানিক জবাব দেয়নি। এর আগে গত ১০ ডিসেম্বর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সাবেক ও বর্তমান সাত কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় যুক্তরাষ্ট্র।

র‌্যাবের প্রতি অবিচার হচ্ছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে র‌্যাবকে নিষিদ্ধ করতে ১২ মানবাধিকার সংগঠনের দাবির প্রতিক্রিয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, সরকারি এই বাহিনীর ওপর ‘অবিচার’ হচ্ছে। গতকাল ডিসি সম্মেলনে নিজ মন্ত্রণালয়ের অধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ প্রতিক্রিয়া জানান। র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নকে (র‌্যাব) শান্তিরক্ষা মিশনে নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়ে ১২টি মানবাধিকার সংস্থা জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল জ্যাঁ পিয়েরে ল্যাকরোইক্সকে চিঠি দিয়েছে। এই চিঠির বিষয়টি হিউম্যান রাইটস ওয়াচের (এইচআরডব্লিউ) ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছে গতকাল। আসাদুজ্জামান খান বলেন, যদি পেছনের দিকে তাকান, র‌্যাব কখন তৈরি হয়েছিল? র‌্যাব যারা তৈরি করেছিলেন, এখন তারাই আবার র‌্যাবকে অপছন্দ করছেন। র‌্যাবের বিরুদ্ধে নানা ধরনের অপপ্রচার করছেন। র‌্যাব যে ভালো কাজগুলো করছে, সেগুলো তারা তুলে ধরছেন না। র‌্যাব যে মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করছে, ভেজাল দ্রব্য নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে, তারা যে (সুন্দরবন) জলদস্যুমুক্ত করল, চরমপন্থিদের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে যাচ্ছে, সবসময় জঙ্গি-সন্ত্রাস দমনে কাজ করছে, সে কথাগুলো তারা কখনো তুলে ধরেন না। তারা নানা ধরনের মানবাধিকারের কথা বলেন। র‌্যাবের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তারা মানবাধিকারের কথা বলেন। আমি চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলতে পারি, এমন কোনো দেশ নাই যেখানে এনকাউন্টার বা এ ধরনের ঘটনা না ঘটে। পুলিশ বাহিনীর সামনে কেউ যদি অস্ত্র তুলে কথা বলে, পুলিশ বাহিনী তো তখন নিশ্চুপ হয়ে বসে থাকে না। তখনই এই ফায়ারিংয়ের ঘটনা ঘটে। সবই যদি এলিট ফোর্স র‌্যাবের ঘাড়ে দিয়ে দেওয়া হয়, তাহলে আমি মনে করি, তাদের প্রতি অবিচার করা হচ্ছে।’

০২:১৮ এএম, ২১ জানুয়ারি ২০২২ শুক্রবার

শাবিতে অনশন পেরোলো ৩২ ঘণ্টা, হাসপাতালে ভর্তি ৬ শিক্ষার্থী

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৪ শিক্ষার্থীর আমরণ অনশন চলছে। উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে চলমান এ অনশনে এরই মধ্যে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ছয় শিক্ষার্থী। আজ বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত চিকিৎসকের পরামর্শে তাঁদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আজকের পত্রিকা

সর্বশেষ রাত ১১টার দিকে অসুস্থ হয়ে পড়লে জান্নাতুন নাইম নিশাত নামে এক শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে নেওয়ার চেষ্টা করেন সহপাঠীরা। এ সময় ওই শিক্ষার্থী কাঁদতে কাঁদতে বলেন, ‘আমরণ অনশন করতে এসেছি। হাসপাতালে কেন যাব? আমি হাসপাতালে যাব না। আমি তো বলেই এলাম—আমরণ অনশন করতে এসেছি। হাসপাতালে কেন যাব, আন্দোলনে এসেছি না?’

পরে একপ্রকার জোর করে তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় সেখানে এক হৃদয়বিদারক পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (রাত সাড়ে ১১ টা) অনশনরতদের মধ্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৪ জন, জালালাবাদ রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজে ১ জন এবং মাউন্ট এডোরা হাসপাতালে ১ জন ভর্তি রয়েছেন বলে জানা গেছে।

শিক্ষার্থীদের হাসপাতালে নেওয়ার জন্য প্রস্তুত রয়েছে অ্যাম্বুলেন্সও। কিছুক্ষণ পর পর বাজছে সাইরেন। একজন একজন করে শিক্ষার্থীদের নিয়ে যাওয়া হচ্ছে হাসপাতালে।


অনশনরতদের মধ্যে সবাই কমবেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। ছয়জনকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে আর ১২ জন শিক্ষার্থীকে অনশনস্থলেই স্যালাইন দেওয়া হয়েছে।

অনশনরত এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘আমরা আমাদের দাবি মেনে না নেওয়া পর্যন্ত অনশন চালিয়ে যাব। এতে যদি আমাদের মৃত্যুও হয় তাহলেও আমরা এ স্থান থেকে সরবো না।’

অনশনরত শিক্ষার্থীদের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন মেডিকেল টিমের সদস্য মো. নাজমুল হাসান বলেন, ‘এখানে অনশনরত শিক্ষার্থীদের অবস্থা ক্রমশই খারাপের দিকে যাচ্ছে। অনেক শিক্ষার্থীর অবস্থা গুরুতর। তবে এ সংখ্যাটা আরো বৃদ্ধি পাবে বলে আশংকা করছি। তারা ৩০ ঘণ্টার বেশি কেউ কিছু খায়নি। সবাই পানি স্বল্পতায় ভুগছে।’

তিনি বলেন, ‘এখানে যাদের অবস্থা খারাপের দিকে যাচ্ছে তাদের জন্য স্যালাইনসহ ওষুধের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাদের এখানেই স্যালাইন দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আর যদি কোনো জরুরি অবস্থার সৃষ্টি হয় তাহলে তাদের জন্য অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে এবং ওসমানী মেডিকেল কলেজে বেডের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।’

এর আগে বিকেল ৫টায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে সাত সদস্যের একটি মেডিকেল টিম এসে শিক্ষার্থীদের চিকিৎসা দিয়ে গেছেন।

বিকেলের দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রতিনিধি দল অনশনস্থলে এসে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থী নাফিসা আনজুম বলেন, ‘স্যার, উপাচার্য আসবেন যাবেন। শিক্ষক শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে থেকে যাবেন। উপাচার্যকে বাঁচাতে গিয়ে আপনাদের সঙ্গে যেন আমাদের সম্পর্কের কোনো অবনতি না হয়। আমরা উপাচার্যের পদত্যাগ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাব। আপনারা আমাদের আন্দোলনে সংহতি জানান।’

তবে, শিক্ষকেরা আন্দোলনে সংহতি জানাননি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা এসেছিলাম আমাদের শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙাতে। আমরা তাদের কাছে সে সময়টুকু চেয়েছি যেন এ ঘটনার পেছনে কারা জড়িত সেটা খুঁজে বের করতে পারি। শিক্ষার্থীরা আমাদের ওই সুযোগটা দেয়নি। আমরা আবার চেষ্টা করব, যেন তাদের বোঝাতে পারি।’

সকাল ১০ সংবাদ সম্মেলনে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী নাইম নিশাত বলেন, ‘প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া ক্যাম্পাসের ভেতরে পুলিশ ঢুকতে পারে না। তেমনি প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া পুলিশ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালানোর ক্ষমতা রাখে না। যেহেতু প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া পুলিশ হামলা চালাতে পারে না তাই আমরা মনে করি শিক্ষার্থীদের উপর এ হামলার দায়ভার প্রশাসনকেই নিতে হবে। পুলিশ ওইদিন শিক্ষক, কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীদের ওপর নির্বিচারে হামলা চালিয়েছে। এ হামলায় প্রশাসন পুলিশকে দোষারোপ না করে বরং উল্টো শিক্ষার্থীদেরকে দোষারোপ করছে। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।’

উল্লেখ, শাবিপ্রবির বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রাধ্যক্ষ জাফরিন আহমেদের বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগ তুলে তাঁর পদত্যাগসহ তিন দফা দাবিতে গত বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) আন্দোলন শুরু করেন হলের কয়েকশ ছাত্রী।

শনিবার সন্ধ্যার দিকে ছাত্রলীগ হলের ছাত্রীদের ওপর হামলা চালায়। পরের দিন বিকেলে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি ভবনে উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করেন। তখন পুলিশ শিক্ষার্থীদের লাঠিপেটা ও তাঁদের লক্ষ্য করে শটগানের গুলি ও সাউন্ড গ্রেনেড ছোড়ে।

ওই দিন রাত সাড়ে ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ও শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার ঘোষণা দিলেও শিক্ষার্থীরা তা উপেক্ষা করে উপাচার্যের পদত্যাগ চেয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়েও বিক্ষোভ করছেন শিক্ষার্থীরা।

০২:১৬ এএম, ২১ জানুয়ারি ২০২২ শুক্রবার

ওমিক্রনের নতুন উপধরন ‘বিএ২’ শনাক্ত চট্টগ্রামে

দেশজুড়ে করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যেই চট্টগ্রামে প্রথমবারের মতো ওমিক্রনের সাম্প্রতিকতম উপধরন ‘বিএ২’ (স্টেলথ ওমিক্রন) শনাক্ত হয়েছে। স্থানীয় একদল গবেষক জানান, দু’জন রোগীর শরীরে ধরনটি মিলেছে। চলতি মাসের শুরু থেকে ভারত, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রের টেপাস ও হিউস্টন, চীন এবং ওমানে এ ধরনটি পাওয়া গেছে। সমকাল

‘বিএ২’ সম্পর্কে গবেষকরা জানান, নতুন এই উপধরনটি খুব বেশি বিপজ্জনক নয়। তবে এটির স্পাইক প্রোটিনে বেশকিছু নতুন পরিবর্তন আছে। ফলে এটি শনাক্তকরণ দুরূহ বলে এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোলের (সিডিসি) গবেষকরা জানিয়েছেন। এ উপধরনটিও অতি সংক্রামক। এই জিনোম সিকুয়েন্সিংয়ের নেতৃত্বে ছিলেন চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের চিকিৎসক ডা. এইচএম হামিদুল্লাহ মেহেদী ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের শিক্ষক ড. আদনান মান্নান।

ড. আদনান মান্নান বলেন, ‘ওমিক্রনের খুঁটিনাটিসহ যাবতীয় বিষয় খুঁজে বের করতে আরও বেশি জিনোম সিকুয়েন্স করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। যত বেশি জিনোম সিকুয়েন্স করা যাবে, তত বেশি নতুন ধরনটি সম্পর্কে নতুন নতুন তথ্য উদ্ঘাটন করা সম্ভব হবে। এটা থেকে আগামীতে এই ধরন সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পাওয়ার পাশাপাশি আক্রান্ত রোগীদের সঠিকভাবে চিকিৎসা দেওয়া সহজ হবে।’

এদিকে চট্টগ্রামের দুই হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হওয়া রোগীদের ৭৫ ভাগই নতুন ধরন ‘ওমিক্রনে’ আক্রান্ত হওয়ার তথ্যপ্রমাণ পেয়েছেন এই গবেষকরা। ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত রোগীদের ৯০ ভাগের মধ্যে গলা ব্যথা ও গলার স্বর বিকৃত হয়ে যাওয়ার প্রমাণ পেয়েছেন তারা। ৮৫ ভাগের মধ্যে শরীরের বিভিন্ন অংশে ব্যথা ও মাথাব্যথা এবং ৮০ ভাগের জ্বর পরিলক্ষিত হয়েছে।

চট্টগ্রামের করোনা ডেডিকেটেড জেনারেল হাসপাতাল ও বিশেষায়িত মা ও শিশু হাসপাতালের করোনা আক্রান্ত রোগীদের ওপর গবেষণাটি পরিচালনা করা হয়। এ দুই হাসপাতালে গত নভেম্বর ও ডিসেম্বর এবং চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহের কভিড পজিটিভ রোগীদের জিনোম সিকুয়েন্সিং করে গবেষকরা দেখতে পান, গত বছরের ২৫ ডিসেম্বরের পর থেকে দুই হাসপাতালে আসা কভিড পজিটিভ রোগীদের ৭৫ ভাগই ‘ওমিক্রন’ ধরনে আক্রান্ত।

চট্টগ্রামে সার্স কভ-২ এর জিনোম সিকুয়েন্স নিয়ে করা এই গবেষণাটি জিনোম সিকুয়েন্সের আন্তর্জাতিক ডাটাবেজ জার্মানির ‘গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভ অন শেয়ারিং অল ইনফ্লুয়েঞ্জা ডাটা’তে (জিআইএসএইডি) বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষকরা ৩০ জন রোগীর নমুনার জিনোম সিকুয়েন্স করে দেখতে পান, গত বছরের ১ নভেম্বর থেকে ২৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ওই দুই হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি হওয়া রোগীরা সবাই করোনার ডেলটা ধরনে আক্রান্ত ছিলেন। এর মধ্যে নবজাতক থেকে ৮০ বছর বয়স্ক রোগীও ছিল। কিন্তু ২৫ ডিসেম্বরের পর ভর্তি হওয়া রোগীদের ৭৫ ভাগই ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত।

০২:০৭ এএম, ২১ জানুয়ারি ২০২২ শুক্রবার

করোনা আক্রান্ত বিএনপি নেতা দুদু

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু। বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) তার করোনা পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ আসে।

শামসুজ্জামান দুদু নিজেই করোনা আক্রান্তের বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গতকাল বুধবার তিনি করোনা পরীক্ষা করতে দেন। আজ শনাক্তের বিষয়টি জানতে পারেন। চিকিৎসকের পরামর্শে বর্তমানে তিনি রাজধানীর বাসায় আছেন বলেও জানান এই বিএনপি নেতা।

০২:০৬ এএম, ২১ জানুয়ারি ২০২২ শুক্রবার

চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত ৭৫ শতাংশের দেহে ওমিক্রন

 
চট্টগ্রামে ৭৫ শতাংশ করোনা রোগীর দেহে নতুন ধরন ওমিক্রন পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল এবং মা ও শিশু হাসপাতালে গত বছরের ডিসেম্বর এবং চলতি বছরের জানুয়ারিতে আসা করোনা রোগীদের জিনোম সিকোয়েন্স করে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

০২:০২ এএম, ২১ জানুয়ারি ২০২২ শুক্রবার

সর্বশেষ
জনপ্রিয়