ঢাকা, ২০২২-০৬-২৬ | ১২ আষাঢ়,  ১৪২৯
সর্বশেষ: 
উবার ও লিফট ড্রাইভারদের বেতন বৃদ্ধি নিরাপত্তা নিয়ে শংকিত আমেরিকা -চিকেন ফার্মে বার্ড ফ্লু আতঙ্ক মেডিকেইড হারাচ্ছেন লাখো আমেরিকান পাল্টে যাচ্ছে রাজনীতির হিসাব-নিকাশ! অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় হস্তক্ষেপ না করার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্র বিচার ১২৩ বছর আগে গ্রেপ্তার গাছ, শেকলে বন্দি আজো ফ্রান্স প্রেসিডেন্টকে চড় মারার মাশুল কতটা? কুরআনের আয়াত বাতিলে ‘ফালতু’ রিট করায় আবেদনকারীকে জরিমানা আদালতের দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নতুন রেকর্ড ওয়াক্ত ও তারাবি নামাজের জামাতে সর্বোচ্চ ২০ জন বিদেশে মারা গেছে ২৭০০ বাংলাদেশি আর্থিক ক্ষতি মেনেই সাঙ্গ হলো বইমেলা সুন্দরী মডেলের অপহরণ চক্র ! মোটরসাইকেল উৎপাদনে বিপ্লবে দেশ যুক্তরাজ্যে করোনার আরও মারাত্মক ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত ৮ থেকে ১২ সপ্তাহ বিরতিতে অক্সফোর্ডের টিকা বেশি কার্যকর সবাই সপরিবারে নির্ভয়ে করোনা ভ্যাকসিন নিন: প্রধানমন্ত্রী শেষ রাতে দু’রাকাত নামাজ জীবন পরিবর্তন করে দিতে পারে নতুন করোনাভাইরাস আতঙ্কে ইউরোপ-আমেরিকার শেয়ারবাজারে ধস জুনের মধ্যে আসছে আরও ৬ কোটি করোনার টিকা বাড়িভাড়ায় নাভিশ্বাস, ফের বাড়ানোর পাঁয়তারা অমিতাভের পর অভিষেকও করোনা আক্রান্ত বিশ্ব ধরেই নিচ্ছে বাংলাদেশ জালিয়াতির দেশ : শাহরিয়ার কবির ইরাকে মর্গের পাশে রাত কাটছে বাংলাদেশিদের! বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শক বাংলাদেশের সেঁজুতি সাহা সাহেদর টাকা থাকত নাসির, ইন্ডিয়ান বাবু ও স্ত্রী সাদিয়ার কাছে ‘বাংলাদেশিদের ভোট দিন’ মানবতার সেবায় কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ অনিশ্চিতায় ফেরদৌস খন্দকার কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা থামছেই না বিক্ষোভ অব্যাহত গভর্নরের সিদ্ধান্ত মানছে না মেয়র অভিবাসীরা জিতলেন হারলেন ট্রাম্প করোনার ধাক্কা - মে মাসে রপ্তানি কমেছে ২০ হাজার কোটি টাকার পুলিশ সংস্কার বিল উঠলো মার্কিন কংগ্রেসে লাইফ সাপোর্টে থাকা নাসিমের জন্য মেডিকেল বোর্ড পুনর্গঠন আইসিইউ নিয়ে হাহাকার ঈদের ছুটিতে অনিরাপদ হয়ে উঠছে গ্রামগুলো ঘরে ঘরে ভুতুড়ে বিল, বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে সমন্বয় হবে নিউইয়র্কে ‘ট্রাম্প ডেথ ক্লক’ নিউইয়র্কে জেবিবিএ’র পরিচালক ইকবালুর রশীদ লিটনের মৃত্যু নিজ আয়ে চলা শুরু করলো বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি কবে খুলবে নিউইয়র্ক নিউইয়র্কে এবার নতুন ভাইরাসে শিশুরা আক্রান্ত
ফেসবুকজুড়ে প্রতারণার ফাঁদ

 ৩৫-৪০ হাজার টাকা দামের সাইকেল মিলছে ৪ হাজার ৬০০ টাকায়! ১ হাজার টাকা বাড়িয়ে দিলেই পাওয়া যাবে বাংলাদেশের বাজারে না থাকা অত্যাধুনিক ইউরোপীয় সাইকেল! আবার টাটা কোম্পানির মোটরযুক্ত সাইকেল মিলছে মাত্র ৭ হাজার টাকায়! শুধু তাই নয়, সোয়া লাখ টাকা দামের আইফোন-১৩ প্রো মোবাইল ফোন পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ৪ হাজার টাকায়! সঙ্গে ঘড়ি ফ্রি! তবে এজন্য বিকাশ বা নগদের মাধ্যমে অগ্রিম পাঠাতে হবে মোট মূল্যের একটি অংশ। অবশ্য বিকাশে অগ্রিম ফুল পেমেন্ট করলে কেউ আবার দিচ্ছে ২০% ক্যাশব্যাক! তাতে আইফোনের দাম পড়বে ৩ হাজার টাকার মতো! আর সারা বাংলাদেশে ডেলিভারি হবে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে। ফেসবুকে এমন প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন এখন ঘুরে বেড়াচ্ছে ভূরিভূরি। লোভনীয় বিজ্ঞাপন দিয়ে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে লাখো মানুষের টাকা।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ‘বিকাশ’ বা ‘নগদ’-এর মাধ্যমে অগ্রিম টাকা পাঠিয়ে ফোন দিলেই ব্লক করে দেওয়া হচ্ছে ক্রেতার নম্বর। কখনো আবার টাকা পাঠিয়ে ফোন দিলে করা হচ্ছে গালাগাল। এ নিয়ে ফেসবুকের ওই পেজে অভিযোগ করলে কয়েক মিনিটের মধ্যেই সে মন্তব্য মুছে ফেলা হচ্ছে। আবার কেউ সরেজমিন দেখে পণ্য কেনার কথা বললে ভুলভাল ঠিকানা বলে করছে হয়রানি। অধিকাংশ ক্ষেত্রে বলা হচ্ছে তারা শুধু অনলাইনেই পণ্য বিক্রি করে। লোভনীয় প্রস্তাবগুলো দেওয়া হচ্ছে সীমিত সময়ের জন্য। ফলে সুযোগ হাতছাড়া হওয়ার ভয়ে অনেকেই তাড়াহুড়ো করে টাকা পাঠিয়ে প্রতারিত হচ্ছেন। এসব পেজ কয়েকদিন পর্যবেক্ষণ, পেজে ক্রেতাদের মন্তব্য, নিজে ফোন করে ও তাদের দেওয়া ঠিকানায় সরেজমিন গিয়ে এসব প্রতারণার বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

ফেসবুক ঘেঁটে China chyle.com, China shop BD, China Bicycle Shop Bd, Duronto Express, Duronto bicycle shop, Duronto Bicycle.BD, Bicycle Shop, BiCycle shop, Cycle Bazar, BD Bicycle Shop সহ অসংখ্য অনলাইন পেজ পাওয়া গেছে যারা সাইকেল বিক্রির একই ধরনের বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রতারণা করছে। অধিকাংশ সাইকেলের ছবি নেওয়া হয়েছে বিদেশি ই-কমার্স সাইট থেকে, যার কোনোটির দাম বাংলাদেশি মুদ্রায় ৫০ হাজারের বেশি। তবে ওইসব পেজে দাম দেওয়া হয়েছে ৫ হাজার টাকার কম। Japanish Bicycle Shop  টাটা কোম্পানির বিশেষ সাইকেল (চার্জে, তেলে ও পায়ে চালানো যায়) বিক্রির অফার দিয়েছে ৭ হাজার ১২০ টাকায়। অন্যদিকে Mobile shopping Shop, BD Mobile gallery, Daraz Happy Shop, Daraz Online Mobile Shop BD সহ অসংখ্য পেজে মাত্র ৪-৫ হাজার টাকায় লাখ টাকার ফোন বিক্রির অফার দেওয়া হয়েছে। আইফোন থেকে নোকিয়া, ভিভো, শাওমি- সব কোম্পানির মোবাইলই রয়েছে বিজ্ঞাপনে। দাম ৫ হাজার টাকার নিচে। হরফের ধরন পরিবর্তন করে একই নামে খোলা হয়েছে একাধিক পেজ। প্রতিটি পেজে একই ধরনের পণ্যের ছবি। বিজ্ঞাপনের ভাষাও এক। প্রায় সব পেজই দিয়েছে ৬৫% মূল্যছাড়। আইফোন-১৩ প্রো (৬/২৫৬ জিবি) আনঅফিশিয়াল মূল্য ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা হলেও Mobile shopping Shop নামের পেজে সেটি  মাত্র ৪ হাজার টাকায় বিক্রির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে ঘড়ি ফ্রি। এজন্য নগদ অ্যাকাউন্টে (০১৮৮৯-৬৫৭১৪৭) অগ্রিম পাঠাতে হবে ১ হাজার টাকা। পুরো টাকা অগ্রিম দিলে ৮০০ টাকা ছাড় পাওয়া যাবে। পেজে দেওয়া নম্বরে ফোন করে আইফোন কিনতে চাইলে অবস্থান জানতে চায় ও অগ্রিম পাঠাতে বলে। বাড্ডার কথা বলে সরেজমিন কিনতে চাইলে মিরপুর শাহ আলী মার্কেটের ষষ্ঠ তলায় তাদের দোকান বলে জানায়। অন্য নম্বর দিয়ে ফোন করে বাসার অবস্থান মিরপুর বললে জানায় তাদের দোকান যাত্রাবাড়ী। Daraz happy shop নামের পেজে ভিভো ভি২৩ প্রো ফোনের দাম দেওয়া হয়েছে ৪ হাজার ২০০ টাকা, যার বাজারমূল্য প্রায় ৫০ হাজার টাকা। পেজে দেওয়া নম্বরে ফোন করলে নগদ অ্যাকাউন্টে (০১৮৩১-১৫৮৮২৩) বা বিকাশ অ্যাকাউন্টে (০১৮৮০-৮৬৯৭২২) ৫৫০ টাকা অগ্রিম পাঠাতে বলে। বিক্রেতা নিজের নাম-পরিচয় দেন মেহেদী হাসান অভি। সরেজমিন কিনতে চাইলে জানান, তাদের হেড অফিস চট্টগ্রামে। মোবাইল নারায়ণগঞ্জে রাখা আছে, দেখা যাবে না। ভারত থেকে কালোবাজারে আনা হয়েছে বলে কমে দিতে পারছেন। এদিকে একাধিক সাইকেল বিক্রির পেজে দেওয়া নম্বরে ফোন ও মেসেঞ্জারে যোগাযোগ করলে একই অভিজ্ঞতা পাওয়া যায়। অনেক ক্রেতা নিজে দেখে ২০-২৫টি সাইকেল কেনার প্রস্তাব দিলেও তাতে সাড়া দেয়নি পেজগুলোর অ্যাডমিন। পেজগুলোয় যেসব আকর্ষণীয় সাইকেলের ছবি দেওয়া হয়েছে তার অনেক মডেলই বাংলাদেশের বাজারে নেই বলে জানিয়েছেন বংশালের সাইকেল ব্যবসায়ীরা। এদিকে বিকাশ নম্বর ব্যবহার করে এমন প্রতারণার বিষয়ে জানতে চাইলে বিকাশের হেড অব করপোরেট কমিউনিকেশন শামসুদ্দিন হায়দার ডালিম বলেন, ‘আমরা অভিযোগ পেলেই ওইসব অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ বা বন্ধ করে দিই। নিজেরাও মনিটরিং করি। আসল জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়া বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলা যায় না। তাই এসব প্রতারকের পরিচয় জানা কঠিন নয়। তবে এটা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিষয়।’ এ ব্যাপারে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মোহাম্মদ তারেক বিন রশিদ বলেন, ‘এটা ডিজিটাল প্রতারণা। আমরা সব সময় মনিটরিং করছি। এগুলো চোখে পড়লে বা অভিযোগ পেলে তৎক্ষণাৎ ব্যবস্থা নিই।’ - বাংলাদেশ প্রতিদিন


পরীক্ষামূলক ওষুধে সেরে উঠলেন ক্যানসার রোগীরা

পরীক্ষামূলক ওষুধে সেরে উঠলেন ক্যানসার রোগীরা

ক্যানসারের ওষুধ আবিষ্কারে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে আসছেন। এবার যুক্তরাষ্ট্রে এমনই একটি গবেষণায় উল্লেখযোগ্য সাফল্য পাওয়া গেছে। ক্যানসারে আক্রান্ত কয়েকজন রোগীকে প্রায় ছয় মাস ধরে ডোসটারলিমাব নামের একটি ওষুধ পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হয়। ওষুধটির জেরে পরীক্ষায় অংশ নেওয়া রোগীদের প্রত্যেকেই সুস্থ হয়েছেন। বিশ্বে এবারই প্রথম কোনো ওষুধে ক্যানসারের রোগীদের পুরোপুরি সুস্থ হওয়ার খবর পাওয়া গেল। খবর নিউইয়র্ক টাইমসের।

ডোসটারলিমাব এমন একটি ওষুধ, যেটিতে গবেষণাগারে তৈরি মলিকিউলস রয়েছে। এই মলিকিউলস মানুষের শরীরে বিকল্প অ্যান্টিবডি হিসেবে কাজ করে। গবেষকেরা মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমসকে জানান, পরীক্ষামূলকভাবে ১৮ জন ক্যানসার রোগীর ওপর ওষুধটি প্রয়োগ করা হয়েছিল। সবাই কোলন ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন। ছয় মাস ধরে প্রতি তিন সপ্তাহ পরপর ওষুধটি প্রয়োগের পর তাঁদের শারীরিক পরীক্ষায় দেখা হয় সবাই ক্যানসারমুক্ত হয়েছেন। কারও শরীরে টিউমারের অস্তিত্ব ছিল না ওষুধটি প্রয়োগের পর।

এই বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক মেমোরিয়াল স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যানসার সেন্টারের চিকিৎসক লুইস এ ডিয়াজ জে বলেন, ক্যানসারের চিকিৎসাসংক্রান্ত গবেষণায় এর আগে এমন অর্জন আর দেখা যায়নি। পরীক্ষামূলকভাবে ওষুধ প্রয়োগের ট্রায়ালে অংশ নেওয়া সব রোগীর ক্যানসার মুক্তির ঘটনা ইতিহাসে এটাই প্রথম।

তবে গবেষকেরা বলছেন, শতভাগ সাফল্য পাওয়া গেলেও এই পরীক্ষা খুবই অল্পসংখ্যক মানুষের ওপর চালানো হয়েছে। তাই আরও বড় পরিসরে ওষুধটির ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালাতে হবে।

তবে ক্যানসার নিরাময় নিয়ে এই পরীক্ষা ইতিমধ্যে চিকিৎসাবিজ্ঞানে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার কোলন ক্যানসার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক অ্যালান পি ভেনোক বলেন, ওষুধ প্রয়োগের পর প্রত্যেক রোগীর সুস্থ হয়ে ওঠার ঘটনা অভাবনীয়। এ ছাড়া ট্রায়ালে অংশ নেওয়া রোগীরা উল্লেখযোগ্য কোনো শারীরিক জটিলতার শিকার হননি, এটাও বড় একটি অর্জন।

এই গবেষণার নিবন্ধ নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিনে প্রকাশিত হয়েছে। স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যানসার সেন্টারের ক্যানসার বিশেষজ্ঞ ও গবেষণাপত্রটির সহলেখক চিকিৎসক আন্দ্রেয়া সেরেক বলেন, ট্রায়ালে অংশ নেওয়া রোগীরা যখন তাঁদের ক্যানসার মুক্তির খবর জানতে পারলেন, সেটার চেয়ে আনন্দের মুহূর্ত আর ছিল না। অনেকে খুশিতে কেঁদে ফেলেছিলেন।

বুধবার, ৮ জুন ২০২২, ০৪:৪০

ভ্যারাইজনের বিল ও অ্যাপল অ্যাপসের দাম বাড়ছে

ভ্যারাইজনের বিল ও অ্যাপল অ্যাপসের দাম বাড়ছে

ভ্যারাইজন তাদের ফেনের বিল বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আগামী জুন থেকে তা কার্যকর হবে। এতে প্রতিটি ফোনের ওপর প্রশাসনিক ফি বাড়বে। বর্তমানে এই ফি’র পরিমান ১ ডলার ৩৫ সেন্টস। জুন থেকে তা হবে ৩ ডলার ৩০ সেন্টস। ফোনে যাদের ভয়েস লাইন রয়েছে তাদেও ক্ষেত্রেই এই ফি বাড়ছে বলে জানা গেছে। শুধু ডাটা লাইনের ওপর কোন বৃদ্ধি হবে না। বিজনেস একাউন্টের লাইনের ওপরও ২ ডলার ২০ সেন্টস বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভ্যারাইজন। ফোন কোম্পানী এটিএন্ডটি’ও এডমিনিস্ট্রেটিভও ফি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ০৪:০৪

যে শর্ত না মানলে টুইটার কিনবেন না ইলন মাস্ক

যে শর্ত না মানলে টুইটার কিনবেন না ইলন মাস্ক

নানা জল্পনার পর জনপ্রিয় খুদে ব্লগিং সাইট টুইটার কিনে নেওয়ার ঘোষণা দেন টেসলা মালিক ইলন মাস্ক। তবে হঠাৎ করেই গত শুক্রবার টুইটারের সঙ্গে ৪ হাজার ৪০০ কোটি মার্কিন ডলারে চুক্তি স্থগিতের ঘোষণা দেন তিনি।

এবার এ মার্কিন ধনকুবের জানালেন, শর্ত না মিললে টুইটার কিনবেন না তিনি। এছাড়া যে পরিমাণ অর্থের প্রস্তাব দিয়েছিলেন, তা কমানোর ইঙ্গিতও দেন তিনি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ইলন মাস্কের শর্ত হচ্ছে - টুইটারে স্প্যাম বট (ভুয়া রোবোটিক অ্যাকাউন্ট) মোট ব্যবহারকারীর ৫ শতাংশের কম থাকার বিষয়টির প্রমাণ দিতে হবে। তবেই টুইটার কিনবেন তিনি।

এক টুইটে মাস্ক বলেন, ‘গতকাল (সোমবার) পুঁজিবাজারে টুইটারের শেয়ারের দামের ওপর ভিত্তি করে এটি কেনার জন্য প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। তবে টুইটারের প্রধান নির্বাহী জনসমক্ষে এ প্ল্যাটফর্মে থাকা ভুয়া অ্যাকাউন্টের বিষয়ে তথ্য জানাতে অসম্মতি জানিয়েছেন। প্রতিষ্ঠানটি ৫ শতাংশ ভুয়া অ্যাকাউন্ট থাকার দাবি করেছে। তবে তারা এর প্রমাণ যতক্ষণ না হাজির করবে, ততক্ষণ চুক্তি সামনে এগোবে না।’

গত সপ্তাহে টুইটারের ভুয়া অ্যাকাউন্ট–সম্পর্কিত তথ্য হাতে না পাওয়ায় এটি কেনার বিষয়টি স্থগিত করেন মাস্ক।

সে সময় এক টুইট বার্তায় তিনি লিখেছিলেন, স্প্যাম/জাল অ্যাকাউন্ট প্রকৃতপক্ষে ৫% এরও কম ব্যবহারকারীর প্রতিনিধিত্ব করে এমন হিসাব সমর্থন করে টুইটার চুক্তি সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে।

মাস্কের ওই ঘোষণার পর প্রিমার্কেট ট্রেডিংয়ে টুইটারের শেয়ার ২০% কমে যায়।

এদিকে মঙ্গলবার ইলন মাস্কের টুইটের মধ্যেই টুইটারের শেয়ারের দাম আরও ৩ শতাংশ পড়ে গেছে।

টুইটারের প্রতিটি শেয়ারের দাম দাঁড়িয়েছে ৩৬ দশমিক ৩১ মার্কিন ডলার। এর আগে ইলন মাস্ক টুইটারের প্রতিটি শেয়ারের দাম ৫৪ দশমিক ২০ মার্কিন ডলার দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু শেয়ারের দাম পড়ে যাওয়ায় এখন আর আগের দামে তিনি টুইটার কিনবেন কি না, তা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে।

বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০২:১৯

তিন বছরে আয় ছাড়িয়েছে ৩০০ কোটি টাকা
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১

তিন বছরে আয় ছাড়িয়েছে ৩০০ কোটি টাকা

দেশের প্রথম স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ গত তিন বছর ধরে আয়ের ধারায় রয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড (বিএসসিএল)। বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরুর পর থেকে এরই মধ্যে কোম্পানিটির মোট আয় ৩০০ কোটি টাকা অতিক্রম করেছে। বর্তমানে কোম্পানির মাসিক আয় প্রায় ১০ কোটি টাকা। এ আয়ের পুরোটাই দেশের বাজার থেকে হচ্ছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড (বিএসসিএল)। আজ সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

বিএসসিএল জানিয়েছে, বর্তমানে বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতারসহ মোট ৩৮টি টিভি চ্যানেল এবং দেশের একমাত্র ডিটিএইচ অপারেটর আকাশ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ -এর মাধ্যমে সম্প্রচার করে। দেশের দুটি ব্যাংক এরইমধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ ব্যবহার করে তাদের এটিএম সেবা দেয়া শুরু করেছে। আরো অনেকগুলো সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকের সঙ্গে আলোচনা চলছে। যারা অদূর ভবিষ্যতে চুক্তি স্বাক্ষর সাপেক্ষে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর সেবার আওতায় আসবে। সম্প্রতি সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ (আর্মড ফোর্সেস ডিভিশন) বিএসসিএল’র সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। এর আওতায় বাংলাদেশে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনী এবং ডিজিএফআই বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর সেবার আওতায় আসবে। বাহিনীগুলো সম্মিলিতভাবে তিনটি ট্রান্সপন্ডারের মাধ্যমে সেবা গ্রহণ করবে।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, বাংলাদেশ সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিশ্রুতি পূরণের অংশ হিসেবে বিএসসিএল ৩১টি দুর্গম ও প্রত্যন্ত দ্বীপাঞ্চলের ১১২টি স্থানে টেলিযোগাযোগ সেবা দিচ্ছে। অদূর ভবিষ্যতে আরো বেশি দুর্গম ও প্রত্যন্ত এলাকার সুবিধাবঞ্চিত জনগণকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর সেবার আওতায় আনার কার্যক্রম চলমান আছে।

চাহিদার তুলনায় বৈশ্বিক বাজারে স্যাটেলাইট ব্যান্ডউইথের সরবরাহ বেশি থাকায় এবং কভিড-১৯ মহামারির কারণে বিদেশের বাজারে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর বিপণন কার্যক্রম ব্যাহত হয়। বর্তমানে মহামারি পরিস্থিতির উন্নতি ঘটায় কোম্পানি আন্তর্জাতিক বাজারে বিপণন কার্যক্রম শুরু করেছে। সম্প্রতি বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ ব্যবহার করে যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার শুরুর মাধ্যমে বিএসসিএল বিদেশের বাজারেও ব্যবসায়িক যাত্রা শুরু করেছে। সামনের দিনগুলোতে এটি আরও বাড়বে বলে আশা করে বিএসসিএল। জনপ্রিয় বেশ কয়েকটি বিদেশি চ্যানেল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ ব্যবহার করে বাংলাদেশসহ এসব অঞ্চলে সম্প্রচারের আগ্রহ দেখিয়েছে। তাদের সঙ্গে আলোচনা চলমান আছে বিএসসিএল বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করে।

মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৩:৩১

চাঁদের মাটিতে গাছের চারা

চাঁদের মাটিতে গাছের চারা

বিজ্ঞানীরা প্রথমবারের মতো চাঁদের মাটিতে গাছের চারা জন্মাতে পেরেছেন। এর মধ্য দিয়ে এই উপগ্রহ মানুষের দীর্ঘমেয়াদে অবস্থানে সাফল্যের সম্ভাবনা উজ্জ্বল করেছে। চাঁদে বসবাস করবে মানুষ। সেই স্বপ্ন নিয়েই এগোচ্ছে নাসা। ২০২৫ সালে এই মিশন শুরু হবে তাদের। বিবিসি।

গবেষকরা ১৯৬৯-১৯৭২ অ্যাপোলো মিশনের সময় সংগৃহীত ধূলিকণার ছোট নমুনাগুলোতে এক ধরনের ক্রেস জন্মানোর চেষ্টা করেছিলেন। বিজ্ঞানীদের অবাক করে দিয়ে দুদিন পরই চাঁদের মাটি ফুঁড়ে উঁকি দিল গাছের চারা। এই গবেষণাপত্রের সহলেখক ফ্লোরিডা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আনা-লিসা পল বলেন, ‘আমি আপনাকে বলতে পারব না যে, আমরা কতটা বিস্মিত হয়েছিলাম।’ তিনি জানান, ‘চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে আনা নমুনা হোক বা পৃথিবীর মাটি হোক- প্রত্যেক উদ্ভিদই জন্মানোর প্রায় ছয় দিন পর্যন্ত একরকম দেখায়। এরপর ধীরে ধীরে তার রূপ পালটাতে থাকে। চাঁদের মাটিতে জন্মানো চারাগুলো কিছুটা থিতু ছিল। সেগুলো ধীরে ধীরে বিকাশ লাভ করে এবং শেষ পর্যন্ত স্থবির হয়ে পড়ে।’

এ গবেষণার সঙ্গে জড়িত অন্যরাও বলছেন, এটি একটি যুগান্তকারী সাফল্য, যদিও এর মধ্যে পার্থিব প্রভাব থাকতে পারে। তবে এ প্রভাব কেমন, সেটা উল্লেখ করেননি।

নাসার প্রধান বিল নেলসন বলেন, ‘এই গবেষণা নাসার দীর্ঘমেয়াদি মানব অন্বেষণ লক্ষ্যগুলোর জন্য গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আমাদের ভবিষ্যতের মহাকাশচারীদের বসবাস এবং গভীর মহাকাশে কাজ করার জন্য খাদ্য উৎস বিকাশের জন্য চাঁদ এবং মঙ্গলে পাওয়া সংস্থানগুলোকে ব্যবহার করতে হবে।’ সেই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘এই মৌলিক উদ্ভিদ গবেষণাটি আমাদের বুঝতে সাহায্য করতে পারে, কীভাবে পৃথিবীর খাদ্য-দুষ্প্রাপ্য অঞ্চলে চাপের পরিস্থিতি কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে?’ গবেষকদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হলো, পরীক্ষার জন্য খুব বেশি চন্দ্রমাটি নেই।

১৯৬৯ সাল থেকে তিন বছরের মধ্যে নাসা মহাকাশচারীরা চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩৮২ কেজি (৮৪২ পাউন্ড) শিলা, মূল নমুনা, নুড়ি, বালি এবং ধূলিকণা নিয়ে এসেছিলেন। কয়েক দশক ধরে সংরক্ষিত মাটি থেকে ফ্লোরিডা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক দলকে নমুনাগুলো থেকে পরীক্ষার জন্য প্রতি গাছে মাত্র ১ গ্রাম মাটি দেওয়া হয়েছিল।

শনিবার, ১৪ মে ২০২২, ১৩:১৮

বন্ধ হয়ে গেলো অ্যালেক্সা

বন্ধ হয়ে গেলো অ্যালেক্সা

দীর্ঘ ২৫ বছরের পরিষেবা শেষে বন্ধ হয়ে গেলো অ্যামাজনের মালিকানাধীন অ্যানালাইসিসভিত্তিক ওয়েবসাইট অ্যালেক্সা ডটকম। রোববার (১ মে) থেকে তাদের সব কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে বলে অ্যালেক্সা ডটকম এক নোটিশে জানিয়েছে।

নোটিশে বলা হয়েছে, দুই দশকের বেশি সময় ধরে ডিজিটাল গ্রাহক খুঁজতে, তাদের কাছে পৌঁছাতে সাহায্য করার পর আমরা অবসরে গেলাম। এই দীর্ঘসময়ে বিষয়বস্তু গবেষণা, প্রতিযোগিতামূলক বিশ্লেষণ, কিওয়ার্ড রিসার্চসহ আরও অনেক কিছুর জন্য আমাদেরকে বেছে নেওয়ায় আপনাদের ধন্যবাদ।

ডিজিটাল এই সময়ে অ্যালেক্সা ডটকম এখন সবার কাছেই পরিচিত। ওয়েবসাইটের ট্রাফিকসহ বিভিন্ন বিষয়ে ধারণা পাওয়া যেতো অ্যালেক্সায়। এছাড়াও বিশ্বের ওয়েবসাইটগুলোর মধ্যে কোন সাইটের র‌্যাংক কত তাও দেখা যেতো অ্যালেক্সায়।

তবে অ্যালেক্সা তাদের কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ায় আর সেই সুযোগ থাকছে না।

সূত্র: অ্যালেক্সা ডটকম

মঙ্গলবার, ৩ মে ২০২২, ০৩:৫৯

স্পেসএক্স: বেসরকারি রকেটে মহাকাশে পাড়ি জমালেন চার নভোচারী

স্পেসএক্স: বেসরকারি রকেটে মহাকাশে পাড়ি জমালেন চার নভোচারী

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে চার মহাকাশ পর্যটক নিয়ে ইতিহাসে প্রথমবারের মতো বানিজ্যিকভাকে মহাকাশ অভিযানের উদ্দেশ্যে রওনা হয় স্পেস এক্সের 'ইনস্পিরেশন ৪'। সেই অভিযান সফলভাবে পরিচালনার পর আবারো নেভোচারী নিয়ে মহাকাশ স্পেস স্টেশনে রওনা করলো যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারী মহাকাশ গবেষণা সংস্থাটি। তবে এবার কোন পর্যটক নয় বরং পেশাদার নভোচারীকে নিয়েই যাত্রা শুরু করেছে স্পেসএক্স।   

স্থানীয় সময় বুধবার ভোরে ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে  'ফ্যালকন ৯' রকেটে করে ৪ পেশাদার নভোচারীকে নিয়ে ক্রু ড্রাগন ক্যাপসুল মহাকাশের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়।  

বিভিন্ন গবেষণার জন্য আগামী সাড়ে চার মাসের জন্য স্টেশনের ল্যাব কমপ্লেক্সে অবস্থান করবে নভোচারীর দলটি।

বৃহস্পতিবার, ২৮ এপ্রিল ২০২২, ০১:৪৪

‘টুইটার’ এখন এলন মাস্কের

‘টুইটার’ এখন এলন মাস্কের

অনেক জল্পনা কল্পনার পর শেষ পর্যন্ত জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটার বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটির মালিকানায় থাকা পরিচালনা পর্ষদ। বিড করার ঠিক দুই সপ্তাহ পর ৪৪ বিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে এলন মাস্কের কাছে প্রতিষ্ঠানটি বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয় তারা।  

বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, কোনও বেসরকারি সংস্থা হস্তান্তর হওয়ার ক্ষেত্রে বিশ্বে এটা সবচেয়ে বড় চুক্তি।

বিশ্বের এই ধনকুবের বলে আসছেন, বাকস্বাধীনতার প্রকৃত প্ল্যাটফর্ম হওয়ার জন্য এবং আরও উন্নয়নের জন্য ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান হতে হবে টুইটারকে।

কিছুদিন আগে টুইটারের ৯ দশমিক ২ শতাংশ শেয়ার কিনেছেন বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ধনী এলন মাস্ক। তখন থেকেই গুঞ্জন ছিল, তিনি পুরো টুইটার কিনে নেবেন। এবার সেই গুঞ্জন সত্যি হলো।

মাস্ক টুইটারের পূর্ণাঙ্গ মালিকানা কিনে নিতে ৪ হাজার ৩০০ কোটি ডলারের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। এ নিয়ে টুইটারের পরিচালনা পর্ষদের সঙ্গে মাস্কের বৈঠক বসে। যদিও টুইটারের পর্ষদ এর আগে মাস্কের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিল।

টুইটার বিক্রির খবরে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারের দাম ইতিমধ্যে ৪ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫০ দশমিক ৬২ ডলারে। তবে ইলন মাস্ক শেয়ারপ্রতি ৫৪ দশমিক ২০ ডলার দিতে চেয়েছেন।বিবিসি

টুইটার কেনার বিষয়টির সূত্রপাত হয় এপ্রিলের শুরুর দিকে। মাস্ক প্রথমে টুইটারের ৯ দশমিক ২ শতাংশ শেয়ার কেনেন। রীতিমাফিক তখন তাঁকে পরিচালনা পর্ষদে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়, কিন্তু তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেন। এরপর ১৪ এপ্রিল মাস্ক হঠাৎই পুরো টুইটার কিনে নেওয়ার প্রস্তাব দেন। বলেন, সামাজিক মাধ্যমে যে অমিত সম্ভাবনা আছে, তার অর্গল খুলে দিতে চান তিনি।

মঙ্গলবার, ২৬ এপ্রিল ২০২২, ০৪:৩৯

টুইটার কেনার প্রস্তাব দিলেন ইলন মাস্ক

টুইটার কেনার প্রস্তাব দিলেন ইলন মাস্ক

মার্কিন ধনকুবের ইলন মাস্ক ৪৩ বিলিয়ন ডলারে টুইটার কিনে নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন। তিনি মনে করেন টুইটার পরিবর্তন হওয়া উচিত। বর্তমান কাঠামোয় টুইটারের উন্নতি সম্ভব নয়, তাছাড়া এটি মানুষের চাহিদাও পূরণ করতে পারবে না। এমন কথা জানিয়ে টুইটারের চেয়ারম্যান ব্রেট টেইলরের কাছে চিঠিও দিয়েছেন ইলন মাস্ক।

শনিবার, ১৬ এপ্রিল ২০২২, ০৫:০৮

প্রযুক্তিপণ্যের বাজারে বছরের মাঝামাঝিতে স্বস্তি ফেরার আশা

প্রযুক্তিপণ্যের বাজারে বছরের মাঝামাঝিতে স্বস্তি ফেরার আশা

করোনার কারণে দীর্ঘদিন চীন থেকে প্রয়োজন অনুযায়ী দেশে আসেনি প্রযুক্তিপণ্য। এর মধ্যে আবার জাহাজ ও কন্টেইনার ভাড়া বেড়েছে দ্বিগুণের বেশি। এ অবস্থায় দেশের প্রযুক্তিরপণ্যের বাজার এখনো বেশ চড়া। করোনা স্বাভাবিক হওয়ায় বাজারে মিলছে ক্রেতাদের পছন্দের পণ্য। তবে তাদের বেশি গুনতে হচ্ছে দুই থেকে চার হাজার টাকা। ক্রেতারা সিন্ডিকেটের কথা বললেও, ব্যবসায়ীরা বলছেন চলতি বছরের মাঝামাঝি স্বাভাবিক হতে পারে প্রযুক্তিপণ্যের বাজার।

সরেজমিনে মিরপুর শাহআলী মার্কেট, আগারগাঁওয়ের আইডিবি কম্পিউটার সিটি, সায়েন্সল্যাবের মাল্টিপ্লান সেন্টারে ঘুরে দেখা যায়, পছন্দের পণ্য কিনতে দোকানে দোকানে ঘুরছেন ক্রেতারা। কোথাও পছন্দের ল্যাপটপ পেলেও মিলছে না মেমরি কার্ড। এমন হচ্ছে বিভিন্ন পণ্যের ক্ষেত্রে। পণ্যের দাম আগের চেয়ে কমেছে সামান্য। তবে এখনো চড়া বলে অভিযোগ ক্রেতাদের।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, পণ্যের সংকট কিছুটা কমেছে। তবে দাম এখনো চড়া। বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ল্যাপটপ ও ওয়েবক্যামের দাম বেড়েছে। ল্যাপটপের দাম বেড়েছে আড়াই থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত। দুই বছরে আগেও ওয়ারেন্টিসহ চার জিবি র্যামের মূল্য ছিল এক হাজার টাকার মতো, সেটা এখন ১৬শ থেকে ১৮শ টাকা। ৩২ জিবি ৩.০ পেনড্রাইভের দাম ছিল ৪শ টাকা। সেটা এখন প্রায় ৬শ টাকা। এছাড়া হার্ডডিস্ক ৫০০ জিবির দাম ছিল এক হাজার টাকা, যা বেড়ে প্রায় ১৫শ টাকা হয়েছে। এভাবে মনিটর, এসএসডি হার্ডডিস্ক, গ্রাফিক্স কার্ডসহ প্রত্যেকটা পণ্যের দাম বেড়েছে ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকা পর্যন্ত।

রিয়াসাদ নামে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্র জাগো নিউজকে বলেন, ব্র্যান্ডের ল্যাপটপের গ্লোবাল যে দাম বাংলাদেশে সে রকম হওয়ার কথা। কিছু টাকা বেশি হতে পারে শিপিং খরচের কারণে। কিন্তু বিভিন্ন কনফিগারেশনের ল্যাপটপের যে দাম চাওয়া হচ্ছে তা অনেক বেশি। গত জুলাই-সেপ্টেম্বরে ল্যাপটপের সংকট ছিল। তখন দাম ছিল আরও বেশি। এখন ল্যাপটপ আছে কিন্তু দাম সাড়ে তিন হাজার থেকে চার হাজার টাকা বেশি চাইছে।

তার অভিযোগ, প্রোডাকশন যেহেতু বন্ধ হয়নি সেহেতু ব্যবসায়ীরা পণ্য আনছেন। কিন্তু সিন্ডিকেট করে ব্যবসায়ীরা দাম বাড়িয়ে দিয়েছে।

মাল্টিপ্লান সেন্টারের ব্যবসায়ী হাফিজ রাকিব হাসান দোষারোপ করলেন আমদানিকারকদের। নাহার কম্পিউটারের এই স্বত্বাধিকারী বলেন, ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, প্রসেসর, গ্রাফিক্স কার্ড, এসএসডি, কিবোর্ড, মাউস, প্রিন্টার, ক্যাবলসহ সব পণ্যের দাম বাড়তি। আমদানিকারকরা বলছেন, বছরের মাঝামাঝি দাম কমতে পারে।

দাম বাড়ার পেছনে সিন্ডিকেট বাণিজ্যকে ইঙ্গিত দিয়ে এই ব্যবসায়ী বলেন, প্রত্যেক প্রোডাক্ট ইম্পোর্টারের কাছেই স্টক আছে। তারা বিনা কারণে স্টক করে সেল বন্ধ রাখেন। বলেন প্রোডাক্ট নেই। পরে যখন আমরা বলি খুব প্রয়োজন তখন তারা বলেন দেওয়া যেতে পারে ভাই, দাম তো বাড়তি। আমরা বেশি দামে পণ্য কিনলে ক্রেতাদের কীভাবে কম দামে দেবো।

যদিও সিন্ডিকেটের কথা অস্বীকার করছেন আমদানিকারকরা। তারা বলছেন, ফেব্রুয়ারি মাস পুরোটাই চায়নিজ নিউইয়ারের কারণে বন্ধ ছিল। এছাড়া শিপমেন্ট খরচ দ্বিগুণেরও বেশি বেড়েছে। চলতি মাসে প্রযুক্তিপণ্যের বাজার স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। বাজারে সরবরাহ বেড়েছে ল্যাপটপসহ অন্যান্য পণ্যের। নেটওয়ার্কিং পণ্য, রাউটার, সিকিউরিটি ক্যামেরা, গ্রাফিক্স কার্ড, প্যানেলের সংকট রয়েছে। করোনা কমছে, বাজারও শান্ত হচ্ছে। জুলাই-আগস্টে বাজার অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে আসবে।


বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের সদস্য ও সাইবার কমিউনিকেশনের স্বত্বাধিকারী নাজমুল আলম ভূইয়া জাগো নিউজকে বলেন, করোনার কারণে চায়নার বেশিরভাগ ফ্যাক্টরিই বন্ধ ছিল। তারপর চায়নিজ নিউইয়ার গেলো ফেব্রুয়ারি মাসে। প্রোডাক্টশন কম কিন্তু বিশ্বব্যাপী ডিমান্ড বেশি।

তিনি বলেন, চায়না থেকে ঢাকা ২০ ফুটের কন্টেইনার ভাড়া ছিল ১২ থেকে ১৫শ ডলার। সেটা আট হাজার ডলার হয়েছে। এসব কিছুর জন্য প্রযুক্তিপণ্যের দাম একটু বাড়তি। আগামী জুলাই-আগস্টের আগে আর কমবে না। চায়নার প্রোডক্টশন যদি ঠিক হয়ে যায় বছরের মাঝামাঝি বাজার স্বাভাবিক হতে পারে।

আইটি পার্ক কম্পিউটারের ম্যানেজার মো. শামীম ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, চায়না-দুবাই থেকে ইউজড ল্যাপটপ আসে। সেগুলোর দাম ১৫শ থেকে তিন হাজার টাকা বেশি। এইচপি ব্র্যান্ডের জি থ্রি নামে একটা ল্যাপটপ বহুল প্রচলিত। মার্কেটে এটা অনেক ছিল। কিন্তু এখন একটু কম আসছে। গত বছরও ২৭ হাজার টাকায় এই ব্র্যান্ডের ল্যাপটপ বিক্রি করতে পেরেছি। এটার চাহিদা আছে, কিন্তু আমরা আনতে পারছি না। অনলাইনে দেখা যায় দাম ২৭ হাজারই আছে। কিন্তু ২৯ হাজার টাকায় বিক্রি করলেও আমাদের কিছু থাকছে না।

‘মানুষের জীবনযাত্রা বদলে দিয়েছে অতিমারি করোনা। ঘরে বসেই অফিসের কাজ করতে হয়েছে অধিকাংশ চাকরিজীবীকে। শ্রেণিকক্ষের কাজ ও ক্লাস করতে হয়েছে অনলাইনে। ফলে ডেস্কটপ, ল্যাপটপ, মোবাইল ফোনসেটসহ বিভিন্ন প্রযুক্তিপণ্যের চাহিদা বেড়েছে কয়েক গুণ।’


তিনি আরও বলেন, স্কুল-কলেজ খুলে গেছে। ল্যাপটপসহ, নেটওয়ার্কিং পণ্যের চাহিদাও বেশি ছিল করোনাকালে। ক্রেতাদের বেশি দামে পণ্য কিনতে হয়েছে, কেননা তখন পণ্যের ঘাটতি ছিল। অন্য সময়ের তুলনায় ২৫ শতাংশের বেশি বেচাকেনা হয়েছে। তবে এখন যে সংকট এটা কবে ঠিক হবে তা নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে।

নাজমুল আলম ভূইয়া নামে আরেক ব্যবসায়ী বলেন, করোনার মধ্যে আমাদের ভালো বেচাকেনা হয়েছে। কিন্তু একমাস ধরে সেটা একটু কমেছে। কেননা পরিস্থিতি ধীরে ধীরে সহনশীল অবস্থায় চলে আসছে। এখন যেহেতু অনলাইনে ক্লাস কমে গেছে। আমাদের সেল একটু কমে গেছে।

মঙ্গলবার, ২২ মার্চ ২০২২, ০৪:৫০

কী থাকছে অ্যান্ড্রয়েড ১৩ এই ভার্সনে?

কী থাকছে অ্যান্ড্রয়েড ১৩ এই ভার্সনে?

 ফোনের নিরাপত্তা এবং গোপনীয়তার বিষয়টিকে আরও বেশি গুরুত্ব দিয়ে এবার গুগল নিয়ে এসেছে অ্যান্ড্রয়েড ১৩। এর মাধ্যমে খুব সহজে ফোন ব্যবহারকারীরা নির্দিষ্ট ছবি এবং ভিডিও শেয়ার দিতে পারবেন। অন্যান্য ফাইল সুরক্ষিত থাকবে। এ ছাড়া থিম আইকনেও আনা হয়েছে ভিন্নতা। নতুন অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের নাম দেওয়া হয়েছে টিরামিসু। নতুন এই ভার্সনে ইউজারদের জন্য থাকছে চমকপ্রদ ফিচার। গুগল জানায়, আগামী আগস্ট মাসে অ্যান্ড্রয়েড ১৩-এর ফাইনাল স্টেবল ভার্সন আসতে পারে। যা যা থাকছে অ্যান্ড্রয়েড ১৩-এ...

ফটো পিকার : এর মাধ্যমে অন্য যে কোনো অ্যাপকে পছন্দ অনুযায়ী ছবি অ্যাকসেস দেওয়া যাবে। অন্যান্য মিডিয়া ফাইলগুলোর অ্যাকসেস অ্যাপ নিজের ইচ্ছামতো নিতে পারবে না। ফলে, ফোনের প্রাইভেসি বাড়বে।
ওয়াইফাই সুবিধা : অ্যান্ড্রয়েড ১৩ সাপোর্টেড ডিভাইসে ওয়াইফাই কানেক্ট করার জন্য অ্যাপগুলোকেও অনুমতি নিতে হবে।

কাস্টম কুইক সেটিংস : এর নোটিফিকেশন কুইক সেটিংসে শর্টকাট অপশন থাকবে। ফলে সেখানে ট্যাপ করলেই ফেসবুক, ইনস্টাগ্রামের অ্যাক্টিভ স্ট্যাটাস টার্ন অফ করে রাখা যাবে।

প্রি-অ্যাপ ল্যাঙ্গুয়েজ : এতে অ্যাপগুলোর সিস্টেম ল্যাঙ্গুয়েজে ভিন্ন ল্যাঙ্গুয়েজও থাকতে পারে, যেন কোড বুঝতে সমস্যা না হয়।

প্লে স্টোরের মাধ্যমে অ্যান্ড্রয়েড আপডেট : এবার অ্যান্ড্রয়েডে নতুন ফিচার পেতে আর সিস্টেম আপগ্রেডের প্রয়োজন হবে না। অর্থাৎ অ্যান্ড্রয়েড ১৩-এর যে কোনো পিকার ফিচার প্লে আপডেট থেকে পাবেন অ্যান্ড্রয়েড ১১ বা ১২ ইউজাররা। ফলে সহজেই আপডেট হবে।

শুক্রবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ০২:২৮

ট্রাম্পের ট্রুথ সোস্যাল ডাউনলোড হয়েছে ১ লাখ ৭০ হাজার বার

ট্রাম্পের ট্রুথ সোস্যাল ডাউনলোড হয়েছে ১ লাখ ৭০ হাজার বার

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মালিকানাধীন ট্রুথ সোস্যাল অ্যাপটি ১ লাখ ৭০ হাজার বার ডাউনলোড হয়েছে। গত রোববার মধ্যরাতে অ্যাপ স্টোরে যুক্ত হওয়ার পর এ ডাউনলোড হয়েছে। গবেষণা প্রতিষ্ঠান অ্যাপটোপিয়ার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। খবর রয়টার্স।

অ্যাপল অ্যাপ স্টোরে উন্মুক্ত হওয়ার পর সর্বোচ্চ ডাউনলোড হওয়া অ্যাপ হিসেবে দাঁড়িয়েছিল ট্রুথ সোস্যাল। প্রি-অর্ডার এবং ট্রাম্প সমর্থকদের ব্যাপক আগ্রহ থাকার কারণে শুরুর দিকে উচ্চহারে অ্যাপ ডাউনলোড দেখা যায়।

কিছু ব্যবহারকারী বলছেন, ট্রুথ সোস্যালে অ্যাকাউন্ট খুলতে সমস্যায় পড়ছেন বা অপেক্ষমাণ তালিকায় রাখা হচ্ছে। তাদের কাছে এমন মেসেজ আসছে, একসঙ্গে ব্যাপক অনুরোধ আসার কারণে আপনাকে অপেক্ষমাণ রাখতে হচ্ছে।

আবার ম্যাট ওর্তেগা নামে এক ওয়েব ডেভেলপার বলছেন, ইউজারনেমের কারণে তার অ্যাকাউন্ট বাতিল করা হয়েছে। তার মানে উন্মুক্ত প্লাটফর্ম হওয়ার দাবি করলেও এরই মধ্যে বিভিন্ন সেন্সরশিপ পদক্ষেপ নিচ্ছে ট্রুথ সোস্যাল। ডোনাল্ড ট্রাম্প, তার পরিবার ও শীর্ষ কর্তাদের নিয়ে সমালোচনামূলক পোস্টের ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা বেঁধে দিয়েছে ট্রুথ সোস্যাল কর্তৃপক্ষ। এমনকি পোস্টে অতিরিক্ত ক্যাপিটাল লেটার ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তারা।

টুইটার, ফেসবুক ও ইউটিউবের মতো প্লাটফর্মে নিষিদ্ধ ট্রাম্প। ২০২১ সালের ৬ জানুয়ারি ট্রাম্প সমর্থকদের ক্যাপিটল হিলে হামলায় উসকানিতে তার বিরুদ্ধে এ পদক্ষেপ নিয়েছিল ওই সাইটগুলো। তখন থেকেই নিজস্ব সোস্যাল প্লাটফর্ম আনার ঘোষণা দেন এ আবাসন ব্যবসায়ী।

ট্রুথ সোস্যাল অ্যাপটি বিভিন্ন দিক থেকে টুইটারের নকল বলে মনে করছেন প্রযুক্তিসংশ্লিষ্টরা। ক্ষমতায় থাকাকালে ট্রাম্পের পছন্দের প্লাটফর্ম ছিল টুইটার। প্রতিদিন মাইক্রোব্লগিং প্লাটফর্মটিতে ডজনখানেকবার টুইট করা ছিল নিয়মিত রুটিনের অংশ। ট্রুথ সোস্যাল পরিচালনায় রয়েছে ট্রাম্প মিডিয়া অ্যান্ড টেকনোলজি গ্রুপ (টিএমটিজি)। প্রতিষ্ঠানটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন রিপাবলিকান দলীয় সাবেক প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য ডেভিড নুনেজ।

বৃহস্পতিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ০৪:২৮

অল্প বয়সীদের জন্য বিধিনিষেধ আসছে টিকটকে

অল্প বয়সীদের জন্য বিধিনিষেধ আসছে টিকটকে

অল্প সময়ে বিশ্বজুড়ে কিশোর-কিশোরীসহ সবার কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে টিকটক। তবে বিভিন্ন ভিডিওতে অশ্লীল কনটেন্ট থাকায় সেগুলো কিশোর–কিশোরীদের জন্য উপযোগী নয়। তাই অল্প বয়সীদের সুরক্ষা নিশ্চিতে বয়সভিত্তিক বেশ কিছু বিধিনিষেধ নিয়ে আসছে টিকটক। বিভিন্ন মহল থেকে চাপে পড়ে নতুন এই উদ্যোগ নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

নতুন এ উদ্যোগের আওতায় বয়স বুঝে ব্যবহারকারীদের ভিডিও দেখাবে টিকটক। এ জন্য ভিডিওতে থাকা বিভিন্ন কনটেন্ট পর্যালোচনার উদ্যোগ নিয়েছে অ্যাপটি। এরই মধ্যে কোনো ধরনের ভিডিওকে অশ্লীল হিসেবে বিবেচনা করা হবে, তার মানদণ্ড তৈরির জন্য ছোট পরিসরে একদল ব্যবহারকারীর ওপর পরীক্ষা চালাচ্ছে টিকটক।

এ বিষয়ে টিকটকের গ্লোবাল ইস্যু পলিসি বিভাগের প্রধান ট্রেসি এলিজাবেথ জানান, যখন এ পদ্ধতি পুরোপুরি চালু হবে, তখন প্রাপ্ত বয়সীদের জন্য তৈরি কনটেন্টগুলো কিশোর–কিশোরীদের জন্য সহজলভ্য হবে না। তবে যেসব ভিডিওতে অশ্লীলতার পরিমাণ কম থাকবে সেগুলো ইচ্ছা হলে দেখার সুযোগ মিলবে।

অশ্লীল ভিডিও কোনো মানদণ্ডের ওপর ভিত্তি করে নির্ধারণ হবে, সে বিষয়ে কোনো তথ্য জানায়নি টিকটক। ট্রেসি এলিজাবেথের মতে, এখনো বিষয়টি উদ্ভাবনের পর্যায়ে রয়েছে। সিনেমা, টেলিভিশন বা ভিডিও গেমে বয়সের যে মানদণ্ড অনুসরণ করা হয়, ঠিক একই মানদণ্ড টিকটকেও ব্যবহার করা হতে পারে।

সূত্র: এনডিটিভি

বুধবার, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ০৩:০১

ফেইসবুকের বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ার ধনকুবেরের মামলা

ফেইসবুকের বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ার ধনকুবেরের মামলা

ফেইসবুকের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন অস্ট্রেলিয়ার এক ধনকুবের। সামাজিক যোগাযোগের শীর্ষ মাধ্যমটির বিরুদ্ধে তার অভিযোগ, প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপনে তার ছবির অপব্যবহার ঠেকাতে ব্যর্থ হয়েছে প্ল্যাটফর্মটি।
হালের ক্রিপ্টোকারেন্সি উন্মাদনার মধ্যে ফেইসবুক নিজ প্ল্যাটফর্মে এ সংশ্লিষ্ট প্রতারণামূলক বিজ্ঞাপন প্রচারের সুযোগ দিয়ে অস্ট্রেলিয়ার অর্থ পাচার আইন লঙ্ঘন করেছে বলে মামলায় অভিযোগ করেছেন বিলিওনেয়ার অ্যান্ড্রু ফরেস্ট।

এই মামলার খবর দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, বিশ্বে এটাই ফেইসবুকের বিরুদ্ধে দায়ের করা প্রথম ফৌজদারি মামলা বলে দাবি করেছেন ফরেস্ট।

এই মামলা নিয়ে মুখ না খুললেও ফেইসবুক মালিক প্রতিষ্ঠান মেটা বলছে, “আমাদের প্ল্যাটফর্ম থেকে ওই মানুষদের (প্রতারক) দূরে রাখতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।”

ক্রিপ্টো প্রতারণার বিজ্ঞাপনে তার ছবির ব্যবহার ফেইসবুক ‘অপরাধীদের মতো বেপরোয়াভাবে’ অগ্রাহ্য করে গেছে বলে অভিযোগ করেছেন মাইনিং প্রতিষ্ঠান ‘ফর্টেসকিউ মেটালস’র চেয়্যারম্যান অ্যান্ড্রু ফরেস্ট। ২০১৯ সাল থেকে সামাজিক মাধ্যমে প্রচার হচ্ছিল ওই বিজ্ঞাপনগুলো।

ফরেস্টসহ অন্যান্য সেলিব্রেটিদের ছবিও ব্যবহার হয়েছে ওই বিজ্ঞাপনগুলোতে। ব্যবহারকারীদের বেশি মুনাফার লোভ দেখিয়ে ভুয়া বিনিয়োগে উদ্বুদ্ধ করছিল ওই বিজ্ঞাপনগুলো।

এই প্রতারণা মোকাবেলায় তৎপরতা বাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে ২০১৯ সালের নভেম্বরে ফেইসবুক কাণ্ডারী মার্ক জাকারবার্গের কাছে চিঠি লিখেছিলেন বলে জানিয়েছেন ফরেস্ট।

“সামাজিক মাধ্যমে ক্লিকবেইট বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে প্রতারণার শিকার অস্ট্রেলিয়ার নাগরিকদের নিয়ে শঙ্কিত আমি। আমি এখানে অস্ট্রেলিয়ানদের পক্ষ নিয়ে কাজ করছি। কিন্তু, এমনটা পুরো বিশ্বেই হচ্ছে,” বৃহস্পতিবার দেওয়া এক বিবৃতিতে বলেন ফরেস্ট।

বিবিসি জানিয়েছে, পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ফরেস্টের মামলার প্রথম শুনানি হবে ২৮ মার্চ। ওই শুনানিতে আদালত ফরেস্টের অভিযোগ আমলে নিলে জরিমানার মুখে পড়তে পারে ফেইসবুক, পাল্টাতে হতে পারে প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন নীতিমালা।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়াতেও ফেইসবুকের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন ফরেস্ট। ফেইসবুকের সদর দপ্তরও ক্যালিফোর্নিয়াতে অবস্থিত।

অস্ট্রেলিয়ার স্থানীয় সংবাদপত্রের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, ফেইসবুক “বেআইনি বিজ্ঞাপন থেকে জেনেশুনে মুনাফা তুলেছে,” বলে অভিযোগ করা হয়েছে মামলায়।

অস্ট্রেলিয়ার এক নাগরিক বিজ্ঞাপনে অ্যান্ড্রু ফরেস্টের ছবি দেখে উদ্বুদ্ধ হয়ে প্রতারকদের কাছে ছয় লাখ ৭০ হাজার হারিয়েছেন বলে আদালতের নথির বরাত দিয়ে জানিয়েছে সংবাদপত্রটি।

তবে, এই প্রসঙ্গে মেটা’র এক মুখপাত্র বলছেন, “এ ধরনের বিজ্ঞাপন ঠেকাতে আমরা কয়েক ধাপের পদক্ষেপ নেই। আমরা কেবল বিজ্ঞাপনগুলো চিহ্নিত করে বাতিল করি না, বরং বিজ্ঞাপনদাতাকে আমাদের সেবায় ব্লক করে দেই এবং ক্ষেত্রবিশেষে আমাদের নীতিমালা প্রয়োগের স্বার্থে আদালতের মাধ্যমেও ব্যবস্থা নেই।”

শুক্রবার, ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ০৪:৫১

নিজের তৈরি রকেট মহাকাশে পাঠাতে চান অলি

নিজের তৈরি রকেট মহাকাশে পাঠাতে চান অলি

 ময়মনসিংহের ২৮ বছরের যুবক নাহিয়ান আল রহমান অলি। ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ের ওপর স্নাতক। তিনি তৈরি করেছেন একটি রকেট, যার নাম ‘ধূমকেতু’। এটি এখন মহাকাশের পথে ওড়ার জন্য প্রস্তুত। সরকার অনুমতি দিলেই তিনি এটি মহাকাশে পাঠাবেন।

অলি এই প্রতিবেদককে নিজের সম্পর্কে বলেন, ২০১৯ সাল থেকে ‘ধূমকেতু-১’ নাম দিয়ে চলা এই রকেট প্রজেক্টের কাজ শুরু হয়। টানা তিন বছর ধরে চলতে থাকা গবেষণা আলোর মুখ দেখে ২০২২-এ। এখন শুধু ওড়ার অপেক্ষায়। সরকার অনুমতি দিলেই উৎক্ষেপণ করা হবে। তিনি জানান, ধূমকেতু প্রজেক্টটি শুরু হয় ২০১২ সালে। কিন্তু অর্থায়নের অভাবে থেমে যায়। তবে দমে যাননি অলি। যৎসামান্য নিজস্ব অর্থায়ন আর ব্যাংক ঋণ এই প্রজেক্টের অর্থের উৎস- জানিয়ে এই তরুণ বলেন, আমার এই কাজে সরাসরি সহযোগিতা করেন সাইদুর, নাদিম, লিয়ান, আবরার, রিজু, বিন্দু, নাইম, আশরাফসহ অনেকেই। তিনি বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে তরল জ্বালানির ইঞ্জিন ডিজাইন করা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে অর্থাভাবে ও করোনা মহামারি সংকটে তরল অক্সিজেনের দাম বৃদ্ধিতে প্রজেক্ট চালানো কষ্টকর হয়ে পড়ে। ফলে বিকল্প হিসেবে সলিড ফুয়েলের ৪০০ নিউটন ও ১৫০ নিউটন থ্রাস্টের দুটি ইঞ্জিনের প্রোটোটাইপ তৈরি করা হয় এবং রকেটের আকৃতি কমানো হয়। বর্তমানে ৬ ফুটের দুটি ও ১০ ফুট উচ্চতার আরও দুটি প্রোটোটাইপ রকেট লঞ্চ করার সক্ষমতা তৈরি হয়েছে।’
উল্লেখ্য, অলির সাফল্যের ঝুড়িতে আরও গৌরব রয়েছে। ২০১৯-এর নভেম্বরে অনুষ্ঠিত টেকফেস্ট নির্বাচনী পর্বে চ্যাম্পিয়ন হন তিনি। তারই ধারাবাহিকতায় ভারতের বিখ্যাত আইআইটি-তে অনুষ্ঠিত টেকফেস্টে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্বও করেন অলি। সেখানে শীর্ষ-৫’এ অবস্থান করে সেমিফাইনালিস্ট হন। অলি যে ল্যাবে টানা তিন বছর গবেষণায় লিপ্ত ছিলেন সে ল্যাবটির নাম আলফা সায়েন্স ল্যাব। ময়মনসিংহ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ সংলগ্ন ওই ল্যাবে যাতায়াত ছিল ময়মনিসংহ সিটি করপোরেশনের কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারের কো-অর্ডিনেটর এম এ ওয়ারেছ বাবুর।

অলি আরও বলেন, এরই মধ্যে বিভিন্ন জার্নালেও এই উদ্ভাবিত রকেট নিয়ে লিখছি। ওড়ার অনুমতি মিললে জার্নালটাও সাবমিট করা যেত। হয়তো আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতিও মিলত।

শুক্রবার, ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ০৪:৪৫

প্রতারণার ডিজিটাল হাতিয়ার বিটকয়েন, বাংলাদেশে ভবিষ্যৎ কী?

প্রতারণার ডিজিটাল হাতিয়ার বিটকয়েন, বাংলাদেশে ভবিষ্যৎ কী?

বিশ্বের প্রথম মুক্ত-সোর্স ক্রিপ্টোকারেন্সি বা ডিজিটাল মুদ্রা বিটকয়েন। একটি বিটকয়েনের মূল্য বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩৬ লাখ টাকা। প্রতিদিন এর মূল্য ওঠানামা করে। বিটকয়েন লেনদেনে কোনো প্রতিষ্ঠান বা সংস্থার প্রয়োজন হয় না। পিয়ার টু পিয়ার মানে গ্রাহকের সঙ্গে গ্রাহকের সরাসরি যোগাযোগে অনলাইনে লেনদেন হয় বিটকয়েন। ২০০৯ সালে সাতোশি নাকামোতা নামে কোনো এক ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর মাধ্যমে বিটকয়েনের প্রচলন শুরু হয়। যদিও এই নামে কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের অস্তিত্ব মেলেনি এখন পর্যন্ত।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, জাপানসহ বিশ্বের মোট ৬৯টি দেশে সরকারি স্বীকৃতি নিয়ে চলছে এই মুদ্রার লেনদেন। প্রতিবেশী ভারতও আনুষ্ঠানিকভাবে মেনে নিয়েছে এই মুদ্রার লেনদেনকে। তবে বাংলাদেশ ২০১৪ সালে অবৈধ ঘোষণা করে বিটকয়েন লেনদেনকে। বিটকয়েন নিষিদ্ধ, এমন দেশের তালিকায় বাংলাদেশ ছাড়াও রয়েছে আলজেরিয়া, বলিভিয়া, ইকুয়েডর, মরক্কো, নেপাল ও মেসিডোনিয়া।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, দেশের আইন অনুযায়ী বিটকয়েন বা অন্য কোনো ক্রিপ্টোকারেন্সির লেনদেন বা সংরক্ষণ করা বেআইনি। যেহেতু ভার্চুয়াল মুদ্রা কোনো দেশের বৈধ কর্তৃপক্ষ ইস্যু করে না, সেজন্য এর বিপরীতে আর্থিক দাবির কোনো স্বীকৃতিও থাকে না। ভার্চুয়াল মুদ্রায় লেনদেনের মাধ্যমে অর্থপাচার এবং সন্ত্রাসে অর্থায়ন সম্পর্কিত আইনের লঙ্ঘন হতে পারে। পাশাপাশি এ ধরনের লেনদেনের মাধ্যমে আর্থিক এবং আইনগত ঝুঁকিও রয়েছে।

এসব সতর্কতার কথা জানিয়ে বিটকয়েনে লেনদেনের ব্যাপারে হুঁশিয়ারি দিয়ে ২০১৭ সালে বাংলাদেশ ব্যাংক একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তিও প্রকাশ করে।

jagonews24

বিটকয়েন লেনদেনে জড়িত প্রতারক চক্রের বেশ কজন র‌্যাবের জালে আটকা পড়েছে/ফাইল ছবি

২০২১ সালের ২৯ জুলাই এমন আরেকটি বিজ্ঞপ্তি দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিটকয়েনের মতো ভার্চুয়াল মুদ্রার মালিকানা, সংরক্ষণ বা লেনদেন অবৈধ। তাই আর্থিক ও আইনগত ঝুঁকি এড়াতে বিটকয়েনের মতো ভার্চুয়াল মুদ্রায় লেনদেন বা সহায়তা প্রদান ও এর প্রচার থেকে বিরত থাকতে সতর্ক করা হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবর থেকে জানা যায় যে, দেশে অনলাইনভিত্তিক ভার্চুয়াল মুদ্রার (বিটকয়েন, ইথেরিয়াম, রিপল, লিটকয়) বিনিময় বা লেনদেন হচ্ছে। এসব ভার্চুয়াল মুদ্রা কোনো দেশের বৈধ কর্তৃপক্ষের ইস্যুকৃত বৈধ মুদ্রা নয়। এসব মুদ্রায় লেনদেন বাংলাদেশ ব্যাংক বা অন্য কোনো নিয়ন্ত্রক সংস্থা কর্তৃক অনুমোদিত নয়, তাই এর বিপরীতে কোনো আর্থিক দাবির স্বীকৃতিও থাকে না। ভার্চুয়াল মুদ্রায় এসব লেনদেন অর্থপাচার ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ সম্পর্কিত আইনের লঙ্ঘন হতে পারে। একইসঙ্গে বৈধ কোনো সংস্থার স্বীকৃত না হওয়ায় গ্রাহকরা ভার্চুয়াল মুদ্রার সম্ভাব্য আর্থিক ও আইনগত ঝুঁকিসহ নানা ঝুঁকির সম্মুখীন হতে পারেন। এমতাবস্থায় আর্থিক ও আইনগত ঝুঁকি এড়াতে বিটকয়েনের মতো ভার্চুয়াল মুদ্রায় লেনদেন থেকে বিরত থাকতে সতর্ক করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বিটকয়েন লেনদেনে এ পর্যন্ত যারা ধরা পড়লেন
গত বছরের ১৯ জুন রাজধানীর দারুস সালাম এলাকা থেকে অবৈধ বিটকয়েন ক্রয়-বিক্রয় চক্রের অন্যতম হোতা হামিম প্রিন্স খানসহ চার সদস্যকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-৪। হামিম ২০১৩ সালে ফরিদপুরের একটি কলেজ থেকে ইংরেজিতে বিএ (সম্মান) পাস করেন। এরপর ২০১৩ সালে একটি প্রশিক্ষণকেন্দ্র থেকে কম্পিউটারের ওপর দক্ষতা লাভ করে প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছিলেন। পরে তিনি ক্রিপ্টোকারেন্সির ওপর দক্ষতা লাভ করে প্রায় ৫০ জনের বেশি মানুষকে বিটকয়েন লেনদেনের প্রশিক্ষণ দেন। বিটকয়েন ছাড়াও তিনি লিটকয়েন, ডগকয়েন, ইথারিয়াম, ব্রাস্ট ও ন্যানো লেনদেনের সঙ্গেও জড়িত।

হামিম প্রিন্স খান মূলত যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং কানাডাসহ উন্নত বিশ্বের অন্যান্য দেশে এ কার্যক্রম চালিয়ে দেশের বিপুল পরিমাণ অর্থপাচার করে আসছিলেন। তার বিরুদ্ধে ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতির অভিযোগ রয়েছে। তিনি প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ ব্যবহার করে অন্যের ক্রেডিট কার্ড হ্যাক করে বিটকয়েন কিনে এই অবৈধ কার্যক্রম চালিয়ে আসছিলেন। ভার্চুয়াল জগতে তার ১৫-১৬টি ওয়ালেট রয়েছে।

র‌্যাব জানায়, প্রতি মাসে তারা দেড় কোটি টাকা বিটকয়েনের মাধ্যমে লেনদেন করতেন। তারা ভার্চুয়াল জগতে অবৈধ ডার্ক পর্নোসাইট থেকে পর্নোগ্রাফি ক্রয় করেন। এরপর পর্নোগ্রাফিগুলো বেশি অর্থের বিনিময়ে দেশের বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে ছড়িয়ে দিতেন।

jagonews24

বিশ্বের প্রথম ভার্চুয়াল মুদ্রা বিটকয়েন

গত বছরের ১২ জানুয়ারি রায়হান হোসেন (২৯) নামের এক প্রতারককে গ্রেফতার করে র‌্যাব। তখন বাহিনীর কর্মকর্তারা জানান, বিটকয়েন চক্রকে শনাক্ত করতে গিয়ে রায়হানের নাম উঠে আসে। পরে তাকে গাজীপুরের সফিপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-১। তখন তার একটি অ্যাকাউন্টে ৫৪ লাখ টাকা পাওয়া যায়। এছাড়া ২৭১টি অ্যাকাউন্টে মাত্র এক মাসে ৩৫ হাজার ডলার লেনদেন করেন তিনি। পাকিস্তান, রাশিয়া ও নাইজেরিয়ার বাসিন্দাদের সঙ্গে মিলে বিটকয়েন লেনদেন করতেন রায়হান।

মাত্র অষ্টম শ্রেণি পাস রায়হান ২০০৬ সালে ব্যক্তিগত আগ্রহে কম্পিউটারের ওপর প্রশিক্ষণ নেন। এরপর ওয়েব ডেভেলপমেন্টের কাজ করেন। ২০২০ সালের জুন থেকে পাকিস্তানেরনাগরিক সাইদের (২২) সহায়তায় প্রতারণা করে অর্থ হাতিয়ে নেওয়া শুরু করেন। তিনি বিদেশি পাচারকারী ও হ্যাকারের সহায়তায় ক্রেডিট কার্ড হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে ভার্চুয়াল মুদ্রা বিটকয়েন কিনতেন।

বিটকয়েন বিক্রি ও প্রতারণার মাধ্যমে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিয়ে রায়হান অল্প দিনেই কোটিপতি বনে যান। তিনি এক কোটি সাত লাখ টাকা দামের গাড়িতে চলাফেরা করতেন। থাকতেন দামি ফ্ল্যাটে।

গত বছরের ২ মে রাজধানীর উত্তর বাড্ডা এলাকার বেসিক বিজ মার্কেটিং নামে একটি প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে বিটকয়েন লেনদেনের অন্যতম হোতা ইসমাইল হোসেন সুমন ওরফে কয়েন সুমনসহ (৩২) ১২ জনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

তখন র‌্যাবের তরফ থেকে বলা হয়, ছোট্ট একটি দোকানে বাচ্চাদের কাপড় ও খেলনার ব্যবসা করছিলেন সুমন। সেখানে কম্পিউটার বসিয়ে আস্তে আস্তে গড়ে তোলেন বেসিক বিজ মার্কেটিং নামে একটি প্রতিষ্ঠান। আউটসোর্সিং মার্কেটিংয়ের ওই প্রতিষ্ঠানের আড়ালেই চলছিল তার বিটকয়েন ব্যবসা। তিনি এক পর্যায়ে বানিয়ে ফেলেন একাধিক ভার্চুয়াল ওয়ালেট। যেখানে মজুদ করেন বিটকয়েন লেনদেনে অর্জিত লক্ষাধিক ডলার। শুধু তাই নয়, বিটকয়েন লেনদেনের মাধ্যমে তিনি গড়ে তোলেন ফ্ল্যাট, প্লট, সুপার শপসহ নানা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

শতাধিক প্রভাবশালী বিটকয়েন লেনদেনে, নজরদারিতে গোয়েন্দারা
গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, বিটকয়েনে লোকসানের কোনো রেকর্ড থাকে না। এটি নিয়ে বিভিন্ন ফোরামে আলোচনা চলছে। জি-২০ এর সম্মেলনেও এ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। এই মুদ্রা ব্যবহার করে বিদেশে যে অর্থপাচার করা হচ্ছে তার বেশিরভাগই কালো টাকা। দেশের অন্তত শতাধিক প্রভাবশালী ব্যবসায়ী এর সঙ্গে জড়িত। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা তাদের একটি তালিকা নিয়ে কাজ করছে।

jagonews24

র‌্যাবের মিডিয়া উইং পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন/ফাইল ছবি

এ বিষয়ে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন  বলেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশ স্বীকৃতি দিলেও বাংলাদেশ যেহেতু এখনো বিটকয়েনের স্বীকৃতি দেয়নি তাই আমরা এর বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছি। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে র‌্যাব অন্যায়ের বিরুদ্ধে ও মানবাধিকার সমুন্নত রাখতে কাজ করে চলেছে। গত কয়েক বছরে র‌্যাব অবৈধ বিটকয়েন ব্যবসার সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় এনেছে। তাদের মধ্যে কয়েকজন ছিলেন বাংলাদেশে বিটকয়েন ব্যবসার অন্যতম হোতা। দেশে কিংবা দেশে বসে বিদেশি চক্রের সঙ্গে কেউ বিটকয়েন লেনদেনের সঙ্গে জড়িত কিংবা ব্যবসা পরিচালনা করছে কি না তা নজরদারি করছেন র‌্যাবের গোয়েন্দারা। সাইবার ওয়ার্ল্ডেও র‌্যাবের গোয়েন্দা নজরদারি রয়েছে। বিটকয়েন দিয়ে অবৈধ ব্যবসা করে কেউ পার পাবে না।

বিটকয়েনের বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, এখনো আমরা দেশে বিটকয়েন লেনদেনের অনুমতি দেইনি।

তবে আগামীতে অনুমতি দেওয়া হবে কি না সে বিষয়ে কিছু বলতে চাননি তিনি।

বিটকয়েন চালু হলে অর্থপাচার বেড়ে যাবে
এ বিষয়ে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ও পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর  বলেন, বিটকয়েনের বৈধতা না দেওয়াটাই ভালো। এটির উচ্চমাত্রায় ঝুঁকি আছে। বিটকয়েন কে সৃষ্টি করেছে তা কেউ জানে না, এটির কোনো মালিকানা নেই কিংবা রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের কোনো সাপোর্ট নেই। এ ধরনের জিনিস কিনে মানুষ ঠকবে, তাই সরকারের অনুমতি দেওয়া ঠিক হবে না।

তিনি বলেন, এটি লেনদেনের বৈধতা দিলে তা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জন্য হুমকি স্বরূপ হবে। এছাড়া বিটকয়েন চালু হলে টাকা পাচার বেড়ে যাবে। অবৈধ অর্থ লুকিয়ে রাখার আদর্শ হচ্ছে বিটকয়েন কিংবা এই ধরনের ক্রিপ্টোকারেন্সি। -জাগো নিউজ

মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২২, ০১:০৪

ইউটিউবে আয়ের শীর্ষে ‘মিস্টার বিস্ট’, বছরে আয় ৪৬৩ কোটি টাকা

ইউটিউবে আয়ের শীর্ষে ‘মিস্টার বিস্ট’, বছরে আয় ৪৬৩ কোটি টাকা

২০২১ সালে ইউটিউব থেকে সবচেয়ে বেশি আয় করা ১০ ইউটিউবারের তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস ম্যাগাজিন। এ তালিকায় দেখা গেছে, বিশ্বে ইউটিউবারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আয় করেছেন ২৩ বছর বয়সী ইউটিউবার জিমি ডোনালডসন।

মি. বিস্ট নামে পরিচিত যুক্তরাষ্ট্রের এ তরুণ ২০২১ সালে ইউটিউব থেকে আয় করেছেন ৫ কোটি ৪০ লাখ ডলার। টাকায় দাঁড়ায় ৪৬৩ কোটি। এর মাধ্যমে ইউটিউবের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি আয়ের রেকর্ড গড়েছেন মি. বিস্ট। এমনকি বিশ্বে সবচেয়ে বেশি আয় করা শীর্ষ ১০০ তারকাদের তালিকায় ৪০তম অবস্থান দখল করেছেন এই ইউটিউবার।

১৯৯৯ সালে এবং ২০০০ সালে- টানা দুই বছর সবচেয়ে বেশি আয় করা ইউটিউবারদের তালিকার শীর্ষস্থানে ছিল যুক্তরাষ্ট্রের শিশু রায়ান কাজী। ২০২০ সালে সে আয় করেছিল ২৫১ কোটি টাকা এবং তার আগের বছর ২২১ কোটি টাকা। তবে ২০২১ সালে সবচেয়ে বেশি আয় করা ১০ ইউটিউবারের তালিকায় সপ্তম স্থানে নেমে এসেছে রায়ান কাজী। তার বর্তমান বয়স মাত্র ১০ বছর।

ইউটিউবে গত বছর মি. বিস্টের ভিডিওগুলো এক হাজার কোটিবারের বেশি দেখা হয়েছে। ফলে সবচেয়ে বেশি আয় করা ইউটিউবারের তালিকায় প্রথম স্থানে রয়েছেন তিনি। অবিশ্বাস্য সব স্টান্ট ও প্র্যাঙ্ক ভিডিওর জন্য ব্যাপক জনপ্রিয় মি. বিস্ট ইউটিউব চ্যানেল।

২০২১ সালে সর্বোচ্চ আয় করা ইউটিউবারের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন জ্যাক পল। জনপ্রিয় এই বক্সিং তারকা নিজের বক্সিং লড়াইয়ের ভিডিও পোস্ট করে আয় করেছেন ৪ কোটি ৫০ লাখ ডলার। টাকার হিসাবে ৩৮৬ কোটি।

তৃতীয় স্থানে রয়েছেন মারকিপ্লায়ার চ্যানেলের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক এডওয়ার্ড ফিসবাক। তিনি আয় করেছেন ৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার। টাকার অঙ্কে ৩২৬ কোটি।

দেখে নিন শীর্ষ ১০ ইউটিউবারের তালিকাটি:

১. মি. বিস্ট- ৫ কোটি ৪০ লাখ ডলার।

২. জ্যাক পল- ৪ কোটি ৫০ লাখ ডলার।

৩. মারকিপ্লায়ার- ৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার।

৪. রেট অ্যান্ড লিংক- ৩ কোটি ডলার।

৫. আনস্পিকেবল- ২ কোটি ৮৫ লাখ ডলার।

৬. নাসতিয়া- ২ কোটি ৮০ লাখ ডলার।

৭. রায়ান কাজি- ২ কোটি ৭০ লাখ ডলার।

৮. ডিউড পারফেক্ট- ২ কোটি ডলার।

৯. লোগান পল- ১ কোটি ৮০ লাখ ডলার।

১০. প্রিস্টন আর্সমেন্ট- ১ কোটি ৬০ লাখ ডলার।

রোববার, ১৬ জানুয়ারি ২০২২, ০৩:২৭

ডেটলাইনের মধ্যে সরছে না সব ক্যাশ সার্ভার, গুগল-ফেইসবুককে দোষারোপ

ডেটলাইনের মধ্যে সরছে না সব ক্যাশ সার্ভার, গুগল-ফেইসবুককে দোষারোপ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্থানীয় পর্যায়ে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো ক্যাশ সার্ভার সরানো নিয়ে বিপাকে পড়েছে।

বিটিআরসির নির্দেশনা অনুযায়ী ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে এসব ক্যাশ সার্ভার না সরালে তা বন্ধ করে দেয়া হবে।

অন্যদিকে ইন্টারনেট সেবাদাতারা বলছেন, এই সময়ের মধ্যে সরাতে হবে এমন মোট সার্ভারের অর্ধেকও সরানো সম্ভব হয়ে উঠবে না। এরজন্য তারা দুষছেন গুগল ও ফেইসবুককে।

ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (আইএসপিএবি) সভাপতি মোঃ ইমদাদুল হক টেকশহরডটকমকে বলছেন, বিটিআরসির সবরকম সহযোগিতার পরও গুগল-ফেইসবুকের অসহযোগিতার কারণে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এই ক্যাশ সার্ভার সরানোর কাজটি শেষ হবে না।

‘এখন পর্যন্ত মাত্র ৩০ শতাংশ ক্যাশ সার্ভার সরানো হয়েছে। যা মনে হচ্ছে ক্যাশ সার্ভার সরানোর কাজটি পুরোপুরি শেষ হতে আরও ২০-২৫ দিন সময় লাগতে পারে।’ বলছিলেন তিনি।

আইএসপিএবি’র সভাপতি বলেন, ক্যাশ সার্ভার সরাতে বিটিআরসি ও গুগল বা ফেইসবুকের এনওসি লাগে। বিটিআরসি এক্ষেত্রে এনওসি দেয়াসহ সার্বিক সহযোগিতা করলেও গুগল-ফেইসবুক এই এনওসি দিচ্ছে না।

ইন্টারনেট সেবাদাতারা বলছেন, ৩১ ডিসেম্বরের পর ক্যাশ সার্ভার বন্ধ করে দেয়া হলে স্থানীয় পর্যায়ে গ্রাহকদের সেবায় সাময়িক বিঘ্ন হতে পারে। এরপর এটি ঠিক হতে আরও কিছু সময় লাগবে।

এদিকে গুগল ৩১ তারিখের আগেই কোনো কোনো আইএসপির ক্যাশ সার্ভার ব্যবহার বন্ধ করে দিয়েছে বলে জানিয়েছেন একাধিক ব্যবসায়ী।

ক্যাশ সার্ভার নিয়ে বিটিআরসির নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি), ন্যাশনাল ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ (নিক্স), মোবাইল অপারেটর নেটওয়ার্ক এবং ন্যাশনওয়াইড আইএসপি বিটিআরসির অনুমতি নিয়ে নতুন করে ক্যাশ সার্ভার স্থাপন করতে পারবে। স্থানীয় পর্যায়ে আইএসপিদের কোনো ক্যাশ সার্ভার থাকবে না। যাদের আছে তা বন্ধ করে দিতে হবে।

আর এজন্য স্থানীয় পর্যায়ের আইএসপিদের ক্যাশ সার্ভার সরাতে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় দেয়া হয়। আইএসপিগুলো তাদের ক্যাশ সার্ভার আইআইজিসহ এ বিষয়ে অনুমতিপ্রাপ্ত সেবাদাতার কাছে স্থানান্তর করতে পারবে।

বৃহস্পতিবার, ৬ জানুয়ারি ২০২২, ০২:০৪

নতুন যুগের সূচনা ঘটিয়ে সবচেয়ে ক্ষমতাশালী টেলিস্কোপের যাত্রা

নতুন যুগের সূচনা ঘটিয়ে সবচেয়ে ক্ষমতাশালী টেলিস্কোপের যাত্রা

মহাকাশ গবেষণায় এক নতুন যুগের সূচনা ঘটিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাশালী একটি দূরবীক্ষণ যন্ত্র মহাশূন্যে উৎক্ষেপণ করা হয়েছে।

জেমস ওয়েব নামে এক মহাশূন্য টেলিস্কোপটি শনিবার গ্রেনিচ মান সময় দুপুর ১২টা বেজে ২০ মিনিটে ফ্রেঞ্চ গায়ানার কোউরু মহাকাশ কেন্দ্র থেকে যাত্রা শুরু করে।

ইউরোপিয়ান আরিয়েন রকেট দিয়ে এটিকে মাত্র আধঘণ্টারও কম সময়ের মধ্যে কক্ষপথে স্থাপন করা হবে।

 

নতুন এই টেলিস্কোপের মূল বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, একটি প্রতিফলক আয়না-যা ৬.৫ মিটার চওড়া। বিশালাকৃতির এই আয়নার পেছনে সোনার প্রলেপ লাগানো রয়েছে। বর্তমানে হাবল নামে যে মহাশূন্য টেলিস্কোপটি কাজ করছে-তার চেয়ে এটি প্রায় তিনগুণ বড় এবং ১০০ গুণ বেশি শক্তিশালী।

এটির নামকরণ করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের এপোলো চন্দ্রাভিযানের অন্যতম স্থপতির নামে।
মহাশূন্যে এখন হাবল নামে যে টেলিস্কোপটি রয়েছে-তার জায়গা নেবে এই জেমস ওয়েব এবং এটি দিয়ে মহাশূন্যের এমন দূরত্ব পর্যন্ত দেখতে পাওয়া যাবে-যা আগে কখনও সম্ভব হয়নি।

নতুন এই টেলিস্কোপ দিয়ে যা দেখা যাবে

বিশাল আয়না এবং চারটি অতি-সংবেদনশীল যন্ত্রের কারণে এই জেমস ওয়েব টেলিস্কোপ দিয়ে মহাকাশবিজ্ঞানীরা মহাশূন্যের অনেক গভীর পর্যন্ত দেখতে পাবেন।

এর ফলে তাত্ত্বিকদের মতে প্রথম যে তারাগুলোর আলোয় সাড়ে ১৩শ কোটি বছর আগেকার বিগ ব্যাং বা মহাবিস্ফোরণের পর নেমে আসা অন্ধকার কেটে গিয়েছিল-তার অনুসন্ধান এখন করা যাবে।

বিজ্ঞানীরা বলেন, সেই সময় ঘটা পারমাণবিক প্রতিক্রিয়ার ফলে প্রথমবারের মত কার্বন, নাইট্রোজেন, অক্সিজেন, ফসফরাস এবং সালফারের মত 'ভারী পরমাণু'গুলো গঠিত হয়েছিল - যা প্রাণ সৃষ্টির জন্য ছিল অত্যাবশ্যক।

জেমস ওয়েবের আরেকটি লক্ষ্য হচ্ছে, বহু দূরের গ্রহগুলোর পরিবেশ কেমন তা পর্যবেক্ষণ করা-যার ফলে তারা অনুমান করতে পারবেন যে সেগুলোতে আদৌ প্রাণীর বসবসের মত পরিবেশ আছে কিনা।

এ টেলিস্কোপটি যে কক্ষপথে স্থাপিত হবে তা পৃথিবী থেকে ১৫ লাখ কিলোমিটার দূরে। সেখানে মহাশূন্যের তাপমাত্রা হচ্ছে মাইনাস ২৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস অর্থাৎ শূন্যের ২৩৩ ডিগ্রি নিচে।

ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সির ঊর্ধ্বতন উপদেষ্টা মার্ক ম্যাককফরিয়ান জানান, সেই চরম শীতল তাপমাত্রাতে তার ইনফ্রারেড তরঙ্গদৈর্ঘ্যগুলো আর জ্বলজ্বল করবে না এবং তার ফলেই জেমস ওয়েব সেই বহুদূরের জগতের ছবি তুলতে পারবে যেখানে প্রথম গ্যালাক্সিগুলো সৃষ্টি হয়েছিল।

তিনি আরো বলেন, তখন অন্যান্য তারার চারদিকে যেসব গ্রহ ঘুরছে-সেগুলোরও ছবি তোলা সম্ভব হবে।

রোববার, ২৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:০৮

ইন্টারনেট সেবায় তলানিতে বাংলাদেশ

ইন্টারনেট সেবায় তলানিতে বাংলাদেশ

ডিজিটাল সেবা সূচকে এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে পিছিয়ে, ডিজিটাল জীবনযাত্রার সূচকে ১১০ দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১০৩তম। সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে সবার নিচে

 

ইন্টারনেট গতির বৈশ্বিক সূচকে ১৪০ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৩৬তম। এক্ষেত্রে পৃথিবীর সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া ক্ষুধা, দারিদ্রপীড়িত দেশ সোমালিয়া ও ইথিওপিয়াও বাংলাদেশকে পেছনে ফেলেছে। শুধু তাই নয়, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যেও বাংলাদেশে ইন্টারনেটের গতি ও সেবার মান সর্বনিম্ন। নেপাল, পাকিস্তান, মিয়ারনমারও এগিয়ে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, এক্ষেত্রে মোবাইল অপারেটরগুলোই নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে (বিটিআরসি) প্রভাবিত করতে থাকে। যার ফলে সেবার মান ও গতি বাড়ে না। অবশ্য মোবাইল অপারেটরগুলো বলছে, ইন্টারনেটের গতি ও সেবার মান বাড়াতে যে পরিমাণ তরঙ্গ (স্পেকট্রাম) প্রয়োজন সেটা বিটিআরসি সরবরাহ করে না। এ নিয়ে মোবাইল অপারেটর, ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার ও বিটিআরসির মধ্যে টানাপোড়েন রয়েছে। বিশ্বের অন্যতম প্রধান সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান সার্ফশার্ক, বিটিআরসি সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
সূত্র জানায়, ডিজিটাল সেবায় এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে পিছিয়ে বাংলাদেশ। ডিজিটাল জীবনযাত্রার সূচকে ১১০ দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১০৩তম। সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যেও সবার নিচে। ডিজিটাল দেশ গড়ার ঢাকঢোল পেটালেও সেবার মান বাড়ে না বছরের পর বছর। মোবাইল ইন্টারনেট গতিতে ১৪০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১৩৬তম। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে মালদ্বীপ। দেশটির অবস্থান ৪৫তম। এরপরই ৮৮তম স্থানে রয়েছে মিয়ানমার। নেপালের অবস্থান ১১৪তম। এর চার ধাপ পিছিয়ে ১১৮তম অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তান। ১২০তম অবস্থানে শ্রীলঙ্কা। ভারত ১৩১তম অবস্থানে। সবচেয়ে নিচে ১৪০তম অবস্থানে রয়েছে আফগানিস্তান। মোবাইল ইন্টারনেটের গতিতে সবচেয়ে এগিয়ে আছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। দেশটির মোবাইল ইন্টারনেটের গতি ১৮৩ এমবিপিএসের বেশি। তার পরই রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া, কাতার, চীন, সৌদি আরব, নরওয়ে, কুয়েত ও অস্ট্রেলিয়া।

ভুক্তভোগীদের বক্তব্য : বেসরকারি ব্যাংক কর্মকর্তা লুৎফর রহমান জানান, তিনি প্রতিদিন দুুপুরে পরিবারের সঙ্গে ভিডিও কলে কথা বলেন। ইন্টারনেটের গতি এতটাই কম থাকে যে, সব সময়ই বাফারিং করে। তবে ব্রডব্যান্ড লাইনে কথা বললে কিছুটা ভালো সেবা পাওয়া যায় বলে তিনি মনে করেন। শুধু তাই নয়, প্রতি মাসে ইন্টারনেটের খরচও অনেক বেশি গুনতে হয়। এ ছাড়া মাস শেষে ক্রয়কৃত প্যাকেজের অব্যবহৃত ডাটা মোবাইল অপারেটর কেটে নিয়ে যায়। আবার সেটা অন্য গ্রাহক কিংবা একই গ্রাহকের কাছে বিক্রি করছে যা রীতিমতো চরম প্রতারণা বলে তিনি মনে করেন। স্কুলশিক্ষক হাসিনা আক্তার বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে একসময় অনলাইনে ক্লাস নিতে হয়েছে। একই সঙ্গে মোবাইল ইন্টারনেট ও ব্রডব্যান্ড সংযোগ রাখতে হয়েছে। তারপরও কাক্সিক্ষত মানের সেবা ও গতি পাওয়া যায়নি। খরচও হয়েছে অনেক বেশি। তার মতে, পাঁচ বছরের ব্যবধানে ইন্টারনেট গতি ও মানের বেলায় তেমন কোনো পরিবর্তন আসেনি। অথচ উচ্চ গতি ও উন্নত সেবার বিজ্ঞাপন প্রচার করা হয় সার্বক্ষণিক। এটা গ্রাহকদের সঙ্গে রীতিমতো প্রতারণা বলে তিনি মনে করেন। মোবাইল অপারেটরগুলো প্রতি বছর শত শত কোটি টাকা খরচ করে তাদের বিভিন্ন প্যাকেজ, সেবার বিজ্ঞাপন প্রচারের ক্ষেত্রে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোম্পানিগুলো ওই টাকা বিজ্ঞাপনের পরিবর্তে যদি নেটওয়ার্ক, ইন্টারনেটের গতি ও সেবার মান উন্নয়নে খরচ করত তাতে বরং গ্রাহকদের উপকার হতো। কেননা নেটওয়ার্কের বেহাল দশা, কলড্রপসহ হয়রানির কোনো অন্ত নেই গ্রাহকদের। মোবাইল অপারেটরগুলো তাদের বিভিন্ন বিজ্ঞাপন ও প্রচারণায় দেশব্যাপী নিরবচ্ছিন্ন ইন্টারনেট সংযোগের দাবি করলেও মাঝে মাঝে ঢাকার ভিতরেই সংযোগ পেতে ঝামেলায় পড়েন গ্রাহকরা।

ডিজিটাল জীবনযাত্রার সূচকেও পিছিয়ে : বিশ্বের অন্যতম প্রধান সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান সার্ফশার্ক ডিজিটাল জীবনমানের বিশ্বসূচক প্রকাশ করেছে গত সেপ্টেম্বরে। সে সূচক অনুযায়ী- ১১০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১০৩তম। এশিয়ার ৩২ দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ৩০তম এবং সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন। ডিজিটাল জীবনমানে সার্বিকভাবে গত বছরের চেয়ে স্কোরও কমেছে বাংলাদেশের। গত বছর শূন্য দশমিক ৩৫ স্কোর ছিল, এ বছর তা হয়েছে শূন্য দশমিক ৩৪।

দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বনিম্নে বাংলাদেশ : ওই প্রতিবেদনের তথ্যমতে, মোবাইল ইন্টারনেটে নিম্নগতির পাশাপাশি নেটওয়ার্ক রেডিনেসে ১১০তম, ই-অবকাঠামোয় ৮৯তম এবং ই-গভর্ন্যান্সে ৮৬তম, ই-নিরাপত্তায় ১০৩তম, ইন্টারনেট ব্যবহারে আর্থিক সক্ষমতায় ৮৪তম বাংলাদেশ। এর আগে আরেক বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠান ওকলার প্রতিবেদন অনুযায়ী বাংলাদেশে মোবাইল ইন্টারনেটের গতিতে অবস্থান ছিল ১৭৬ দেশের মধ্যে ১৩৭তম। ওপেন সিগন্যালের রিপোর্ট অনুযায়ী ফোরজির গতিতে দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের অবস্থান ছিল সর্বনিম্ন। এদিকে মোবাইল ইন্টারনেটের গতি বাড়ানোর বিষয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার গণমাধ্যমকে বলেন, বাংলাদেশের মোবাইল অপারেটরগুলোর যে পরিমাণ গ্রাহক রয়েছে, সে হিসেবে তাদের স্পেকট্রাম বা বেতার তরঙ্গ ব্যবহারের পরিমাণ কম। ফলে সেবার মান বাড়ে না বলে তিনি মনে করেন। এদিকে বাংলাদেশের মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন এমটব-এর তথ্যমতে, প্রায় বছর ধরে চলা করোনাভাইরাস মহামারীতে মোবাইল ইন্টারনেটের ব্যবহার অনেক বেড়ে যাওয়ায় সেবার মানে প্রভাব পড়েছে। তবে বিটিআরসি তাদের চাহিদা অনুযায়ী স্পেকট্রাম বরাদ্দ দিলে সেবার মান বাড়ানো সম্ভব বলে মনে করে সংগঠনটি।

সংশ্লিষ্টদের বক্তব্য : বাংলালিংকের হেড অব করপোরেট কমিউনিকেশন্স অ্যান্ড সাসটেইনেবিলিটি, আংকিত সুরেখা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, বাংলাদেশে তরঙ্গের মূল্য পৃথিবীর অধিকাংশ দেশের তুলনায় অনেক বেশি। তরঙ্গের সঠিক বণ্টন ও অপারেটরদের অ্যাকটিভ শেয়ারিংয়ের অনুমতি দেওয়া হলে গ্রাহকদের আরও উন্নত সেবা দেওয়া সম্ভব।

মঙ্গলবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:২০

চাঁদে ‘রহস্যময় কুঁড়েঘর’

চাঁদে ‘রহস্যময় কুঁড়েঘর’

চাঁদে একটি রহস্যময় বস্তুর সন্ধান পেল চীনা রোভার। যে বস্তুকে ‘রহস্যময় কুঁড়েঘর’ হিসেবে অভিহিত করেছেন চীনা বিজ্ঞানীরা। স্পেসডটকমের একটি প্রতিবেদনে এমনই জানানো হয়েছে।

ভন কারমার ক্রেটারে কাজ চালাচ্ছে চীনা ইউতু ২ রোভার। যা চাঁদের অন্যতম বড় এবং গভীরতম গর্ত বলে দাবি করা হয়েছে।

ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী, চাঁদে পৌঁছানোর প্রায় দু’বছর পর সেই ‘রহস্যময় কুঁড়েঘর’-এর সন্ধান পেয়েছে ইউতু ২ রোভার। আপাতত যেখানে সেই রোভার আছে, তার ৮০ মিটার দূরে সেই রহস্যময় বস্তুর সন্ধান মিলেছে।
আওয়ার স্পেস নামে একটি চীনা ভাষার চ্যানেলে (চীনা জাতীয় মহাকাশ প্রশাসনের অনুমোদন প্রাপ্ত চ্যানেল) নিয়মিত সম্প্রচারিত ইউতু ডায়েরি ২-কে উদ্ধৃত করে স্পেসডটকম জানিয়েছে, হঠাৎ উত্তরের আকাশে একটি রহস্যময় ঘনক দেখা গিয়েছে। সেটা এমনভাবে আছে, দেখে মনে হচ্ছে যে সেটা যেন একটা ‘কুঁড়েঘর’। যা হঠাৎ সামনে এসেছে। ‘ক্র্যাশ ল্যান্ডিংয়ের পর এটা কি ভিনগ্রহের বাসিন্দারা এই বাড়ি তৈরি করেছে? নাকি চাঁদে আসা কোনো রোভার, যা আগে এসেছিল?’

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে চাঁদের উদ্দেশে পাড়ি দিয়েছিল ইউতু ২ রোভার। ২০১৯ সালের ২ জানুয়ারি প্রথমবার চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে ভন কারমার ক্রেটারে অবতরণ (সফট ল্যান্ডিং) করেছিল। যে রোভার তিন মাস কাজ করবে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়েছিল। তবে সেই সীমা ইতিমধ্যে পার করে গিয়েছে এবং চাঁদের সবথেকে বেশিদিন ধরে কাজ চালিয়ে যাওয়া রোভারের তকমা পেয়েছে। যে রোভারের সর্বোচ্চ বেগ ঘণ্টায় ২০০ মিটার।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

মঙ্গলবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:৩৮

প্যান্টের পকেটে স্মার্টফোন বিস্ফোরণ

প্যান্টের পকেটে স্মার্টফোন বিস্ফোরণ

 আবারো বিস্ফোরিত হলো ওয়ানপ্লাসের নর্ড-২ সিরিজের মোবাইল। এবার প্যান্টের পকেটে থাকাকালীনই হঠাৎ শব্দ করে ফেটে যায় বলে অভিযোগ করেছেন ভারতের সুহিত শর্মা নামের এক যুবক। গ্যাজেট ডটকম এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে।

বিস্ফোরণে ওই ব্যক্তির পা গুরুতরভাবে পুড়ে গেছে। তবে এ বিষয়ে তিনি বিস্তারিত কিছু জানাননি। এ ছাড়া বিস্ফোরণের সময় ডিভাইসটির মধ্যে পোর্টেবল ব্যাটারি সংযুক্ত ছিল কি না, তাও জানা যায়নি।  
গ্যাজেট ডটকমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এর আগে ওয়ানপ্লাসের নর্ড-২ বাজারে নিয়ে আসার প্রথম ৫ দিনের মাথায় বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছিল। সেসময় এক নারীর ব্যাগের মধ্যে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছিল।

বিস্ফোরিত হওয়া ওয়ানপ্লাসের একটি ছবি গত ৩ নভেম্বর টুইট করেন সুহিত। ক্যাপশনে লেখেন, ব্যবহারকারীদের সঙ্গে এভাবে খেলা করা বন্ধ করুন। এর ফল আপনাদেরও ভোগ করতে হবে। ভাবতেও পারিনি ওয়ানপ্লাসের ফোন কিনে এই হাল হবে।

সেদিনই টুইটের জবাব দেয় চীনের প্রতিষ্ঠান ওয়ানপ্লাস। ওই ব্যবহারকারীকে যোগাযোগ করতে বলে, যেন তারা ঘটনাটি তদন্ত করতে পারে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে এক বিবৃতিতে ওয়ানপ্লাস জানায়, ‘এমন ঘটনাগুলো আমরা গুরুত্বের সঙ্গে নিই। আমাদের কর্মীরা এরই মধ্যে ওই ব্যবহারকারীর সঙ্গে যোগাযোগ করেছে এবং এখন আমরা তদন্ত এগিয়ে নেওয়ার জন্য বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করছি।’

বৃহস্পতিবার, ১১ নভেম্বর ২০২১, ০২:৪৬

দিন-রাত ইন্টারনেটে বুদ হয়ে থাকে দেশের ৩৫ শতাংশ তরুণ

দিন-রাত ইন্টারনেটে বুদ হয়ে থাকে দেশের ৩৫ শতাংশ তরুণ

বাংলাদেশে ৩৫ শতাংশ তরুণ দিন-রাত সবসময় ইন্টারনেট ব্যবহার করে। ৮৬ শতাংশ তরুণ করোনাকালে বেশি ইন্টারনেট ব্যবহার করছে।

টেলিনর গ্রুপ, গ্রামীণফোন ও প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল পরিচালিত এক জরিপে এসব তথ্য উঠে এসেছে। করোনায় ইন্টারনেটের ব্যবহার ও অনলাইনে হয়রানি (অনলাইন বুলিং) তরুণদের ওপর কী ধরনের প্রভাব ফেলছে, তা নিয়েই টেলিনর অনলাইন সেফটি সার্ভে ২০২১ শীর্ষক জরিপটি করা হয়েছে।

সোমবার, ১ নভেম্বর ২০২১, ০২:০৭

ফেসবুকের নাম পরিবর্তন : নতুন নাম ‘মেটা

ফেসবুকের নাম পরিবর্তন : নতুন নাম ‘মেটা

ফেসবুকের কর্পোরেট কোম্পানির নাম পরিবর্তন করা হয়েছে। নতুন নাম রাখা হয়েছে ‘মেটা’। অপরিবর্তিত থাকবে ফেসবুকের অধীনে থাকা সব অ্যাপগুলোর নাম। বৃহস্পতিবার ফেসবুকের বার্ষিক কনফারেন্সে এ ঘোষণা দেন ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ। ঘোষণায় তিনি বলেন, আমরা বিশ্বাস করি ইন্টারনেটের উত্তরসূরী হতে যাচ্ছে মেটাভার্স। এতে ভবিষ্যৎ বদলে যাবে ইন্টারনেটের।

শনিবার, ৩০ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৪৮

সর্বকালের রেকর্ড ভাঙলো ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন

সর্বকালের রেকর্ড ভাঙলো ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন

সর্বকালের রেকর্ড ভেঙ্গেছে ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন।

বুধবার বাংলাদেশ সময় রাত ৮টার দিকে বিটকয়েনের দাম উঠে যায় ৬৬ হাজার ৩৪২ মার্কিন ডলার।

এর আগে চলতি বছরের এপ্রিলে বিটকয়েনের রেকর্ড দাম উঠেছিলো ৬৪ হাজার ৮৯৫ মার্কিন ডলার। মঙ্গলবার প্রথম মার্কিন বিটকয়েন ফিউচারস বেসড এক্সচেঞ্জ ট্রেড ফান্ড চালু হওয়ার একদিনের মধ্যে এই রেকর্ড হলো।

জানুয়ারিতে ইলন মাস্ক বিটকয়েনে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত জানানোর পর বাজারদর বাড়তে থাকে এই ক্রিপ্টোকারেন্সির ।

অনলাইনে ডলার পাউন্ড ইউরো ও টাকার মতো অন্যান্য মুদ্রা দিয়ে যেমন কেনাকাটা করা যায় তেমনি কেনাকাটা করা যায় বিটকয়েনেও। তবে ডলার পাউন্ড ইউরো ও টাকার মতো মুদ্রাব্যবস্থায় যেমন দেশগুলোর সরকার ও কেন্দ্রীয় ব্যাংক জড়িত থাকে, বিটকয়েনের ক্ষেত্রে তা থাকে না।

বিটকয়েন লেনদেনে কোনো ব্যাংকিং ব্যবস্থা নেই। ইলেকট্রনিক মাধ্যমে অনলাইনে দুজন ব্যবহারকারীর মধ্যে সরাসরি বা পিয়ার-টু-পিয়ার লেনদেন হয়। লেনদেনের নিরাপত্তার জন্য ব্যবহার করা হয় ক্রিপ্টোগ্রাফি ।

বিশ্বের একাধিক দেশে ক্রিপ্টোকারেন্সিতে লেনদেন স্বীকৃত হলেও বাংলাদেশে এই মুদ্রা স্বীকৃত নয়।

বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৪৭

এবার নাম পাল্টাবে ফেইসবুক, ঘোষণা আসছে অক্টোবরেই

এবার নাম পাল্টাবে ফেইসবুক, ঘোষণা আসছে অক্টোবরেই


নাম পাল্টানোর পরিকল্পনা করেছে ফেইসবুক। সংশ্লিষ্ট গোপন সূত্রের বরাত দিয়ে প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ভার্জ জানিয়েছে, মেটাভার্স পরিকল্পনার প্রতিফলন হয় এমন নাম বেছে নেওয়ার পরিকল্পনা করেছে শীর্ষ সামাজিক মাধ্যমটি; ঘোষণা আসছে চলতি মাসেই।

ভার্জ জানিয়েছে, ২৮ অক্টোবর ফেইসবুকের বার্ষিক “কানেক্ট” সম্মেলনে নতুন নাম ঘোষণার পরিকল্পনা করেছেন প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ। তবে আরও আগেই ঘোষণা চলে আসতে পারে-- পুরো বিষয়টির সঙ্গে সরাসরি জড়িত এক গোপন সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে ভার্জ।

অন্যদিকে ভার্জের প্রতিবেদনের প্রতিক্রিয়ায় বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে ফেইসবুক বলেছে, “গুজব বা জল্পনা-কল্পনা” নিয়ে মন্তব্য করে না ফেইসবুক।

সম্ভাব্য নাম পরিবর্তনের খবর এমন সময়ে এলো যখন ব্যবসায়িক কৌশল নিয়ে নানা দিক থেকে মার্কিন সরকারের ব্যাপক চাপের মুখে আছে ফেইসবুক। প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে জোট বেঁধে অনুসন্ধানে নেমেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিরা, যা অনেক হিসেবেই বিরল ঘটনা।

ভার্জের প্রতিবেদন বলছে, নাম পাল্টে “রিব্র্যান্ডিং”-এর ঘটনা ঘটলে নতুন নামের মূল প্রতিষ্ঠানের অধিনস্থ সেবায় পরিণত হবে ফেইসবুকের সোশাল মিডিয়া অ্যাপ। ইনস্টাগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপ এবং অকুলাসের মতো আরেকটি সেবায় পরিণত হবে ফেইসবুকের সামাজিক মাধ্যম নির্ভর ব্যবসা; নতুন নামের মূল প্রতিষ্ঠানের অধীনে থাকবে এর সবগুলো।

ব্যবসা প্রসারণ কৌশলের অংশ হিসেবে নাম পাল্টে নতুন ব্র্যান্ডিং করা সিলিকন ভ্যালির প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য নতুন কিছু নয়। ২০১৫ সালে ‘অ্যালফাবেট ইনকর্পোরেটেড’ নামের হোল্ডিং কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেছিল গুগল। সার্চ আর বিজ্ঞাপন ব্যবসা বাদেও গুগলের স্বচালিত যান প্রকল্প, স্বাস্থ্য প্রযুক্তি এবং দুর্গম অঞ্চলে ইন্টারনেট সেবা প্রচলন প্রকল্পগুলোর দেখভাল ও নিয়ন্ত্রণ করে এখন অ্যালফাবেট।

সিলিকন ভ্যালির আরেকটি প্রতিষ্ঠান স্ন্যাপচ্যাট প্রতিষ্ঠানের নাম পাল্টে স্ন্যাপ ইনকর্পোরেটেড হয়েছে ২০১৬ সালে। ওই বছর থেকে প্রতিষ্ঠানটি নিজেদের পরিচয় দেওয়া শুরু করেছে ‘ক্যামেরা কোম্পানি’ হিসেবে।

ভার্জের প্রতিবেদক জানিয়েছেন, নতুন প্রাতিষ্ঠানিক নামটি গোপন রাখা হয়েছে ফেইসবুকের ভেতরেও; এমনকি প্রতিষ্ঠানটির শীর্ষ কর্মকর্তাদের অনেকেরই জানা নেই এই বিষয়টি।

ফেইসবুক নিজেদের “একটি মেটাভার্স প্রতিষ্ঠান” হিসেবে পাল্টে ফেলতে চাইছে-- জানিয়েছে ভার্জ।

সোজা ভাষায় ব্যাখ্যা করলে, মেটাভার্স হচ্ছে এমন একটি ভার্চুয়াল জগৎ, যেখানে ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন ডিভাইস থেকে যোগ দিতে পারবেন এবং ওই ভার্চুয়াল পরিবেশে একে অন্যের সঙ্গে আলাপচারিতা বা আনুষ্ঠানিক বৈঠকে বসার সুযোগ পাবেন। অংশগ্রহণকারীরা সশরীরে উপস্থিত না থাকলেও ভার্চুয়াল রিয়ালিটি প্রযুক্তির জোরে মনে হবে যেন সবাই সামনাসামনি বসেই আলাপ চালাচ্ছেন।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ভার্চুয়াল রিয়ালিটি (ভিআর) এবং অগমেন্টেড রিয়ালিটি (এআর) খাতে বিশাল বিনিয়োগ করেছে ফেইসবুক। মেটাভার্স প্রকল্পের জন্য সম্প্রতি ইউরোপের বাজারে পাঁচ বছরে ১০ হাজার নতুন কর্মী নিয়োগের ঘোষণাও দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

জুলাই মাসে ভার্জকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জাকারবার্গ বলেছিলেন, আগামী কয়েক বছরের মধ্যে “আমরা কার্যত এমন একটি পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যাবো যাতে মানুষ আমাদের সোশাল মিডিয়া কোম্পানির বদলে মেটাভার্স কোম্পানি হিসেবে দেখে।”

ফেইসবুক নিজেদের নাম পাল্টে নতুন করে ব্র্যান্ডিং শুরু করলে সাম্প্রতিক সমালোচনা ও বিতর্ক থেকে কিছুটা হলেও দুরত্ব সৃষ্টি করতে পারবে বলে মন্তব্য করেছে ভার্জ। সম্প্রতি সাবেক কর্মীদের কারণে বেশ বড় বিপাকে পড়েছে ফেইসবুক।

বিপুল পরিমাণ অভ্যন্তরীণ নথিপত্র সংগ্রহ করে চাকরিতে ইস্তফা দিয়েছিলেন প্রতিষ্ঠানটির সাবেক ডেটা অ্যানালিস্ট ফ্রান্সেস হাউগেন। পরবর্তীতে ওই নথিপত্রের একটা বড় অংশ মার্কিন দৈনিক ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে সরবরাহ করেন তিনি।

নথি বিশ্লেষণ করে সিরিজ প্রতিবেদন প্রকাশ করে ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল। ওই প্রতিবেদনে উঠে এসেছে ফেইসবুকের কর্মকাণ্ড ও বক্তব্যের বিভিন্ন অসংলগ্নতা। সেলিব্রেটি ও রাজনৈতিক পরিচয়ধারীদের আলাদা খাতির করে প্রতিষ্ঠানটি, সাধারণ ব্যবহারকারীদের উপর প্রযোজ্য নীতিমালা খাটে না ওই ‘বিশেষ’ ব্যক্তিদের উপর। কিশোর বয়সীদের উপর ইনস্টাগ্রামের বিরূপ প্রভাব জেনেও চেপে গেছে ফেইসবুক। এমনকি তাদের প্ল্যাটফর্মটি জাতিগত সহিংসতার পরোক্ষ অস্ত্র হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে জেনেও তাতে কোনো মাথা ব্যথা নেই প্রতিষ্ঠানটির শীর্ষ কর্মকর্তাদের।

ফেইসবুকের বক্তব্য আর কর্মকাণ্ডের অসামঞ্জস্যতা নিয়ে মার্কিন সিনেটেও সাক্ষ্য দিয়েছেন হাউগেন। সিনেট সাবকিমিটিতে হাউগেন অভিযোগ তোলেন, মুনাফা ও ব্যবসা প্রসারের লোভে গ্রাহক নিরাপত্তার ধার ধারে না ফেইসবুক, নিজস্ব প্ল্যাটফর্মে সহিংসতার উস্কানি বন্ধে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। এমনকি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে দুর্বল করে ফেলছে প্রতিষ্ঠানটির অ্যালগরিদম।

হাউগেনের দেখাদেখি জনসমক্ষে তৎপর হয়েছেন ফেইসবুকের আরেক সাবেক কর্মী সোফি ঝ্যাং। ইতোমধ্যেই প্রতিষ্ঠানটির অভ্যন্তরীণ নথি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। মার্কিন সিনেটেও সাক্ষ্য দিতে আপত্তি নেই তার। চলতি মাসে যুক্তরাজ্যের আইনপ্রণেতাদের কাছেও সাক্ষ্য দেওয়ার কথা রয়েছে এই দুই সাবেক ফেইসবুক কর্মীর।

 

বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৪১

সৌরমণ্ডল তৈরির ইতিহাস জানতে গেল লুসি

সৌরমণ্ডল তৈরির ইতিহাস জানতে গেল লুসি

সৌরমণ্ডলের যে মুলুকে এর আগে আর ‘পা’ পড়েনি সভ্যতার, নাসার মহাকাশযান এবার গেল সেই গন্তব্যে। সৌরমণ্ডলের বৃহত্তম গ্রহ বৃহস্পতির কক্ষপথে থাকা ট্রোজান গ্রহাণুদের তথ্য সংগ্রহে।

গতকাল শনিবার যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় কেপ ক্যানাভেরাল থেকে স্থানীয় সময় শনিবার সকাল ৫টা ৩৪ মিনিটে ‘অ্যাটলাস ভি’ রকেটে চেপে ট্রোজানপাড়ায় যাওয়ার লক্ষ্যে মহাকাশে পাড়ি জমাল নাসার ‘লুসি’ মহাকাশযান। লুসিই প্রথম কোনো সৌরশক্তিচালিত মহাকাশযান, যা সৌরমণ্ডলে সূর্য থেকে এতটা দূরে যাচ্ছে।

১২ বছর ধরে বৃহস্পতির কক্ষপথে লুসির অভিযান চলবে। কক্ষপথে আটটি ট্রোজান গ্রহাণুকে খুব কাছ থেকে চিনতে, জানতে, বুঝতে; সেগুলোর রং কেন কোনোটা লালচে হলে অন্যটা ধূসর বা কালো অথবা বাদামি, কেন সেই নানা রঙের খেলা ট্রোজানদের মুলুকে, সৌরমণ্ডল তৈরি হওয়ার সময় সোনা, প্লাটিনাম, লোহা, নিকেল, কোবাল্টের মতো কী কী মূল্যবান মৌল দিয়ে সেগুলো গড়ে উঠেছিল, আর সেই সব মূল্যবান অথচ অতিপ্রয়োজনীয় মৌলগুলো ট্রোজান গ্রহাণুগুলোতে কী পরিমাণে রয়েছে, তা জরিপ করবে।

নাসার তরফে জানানো হয়েছে, এই অভিযান সৌরমণ্ডল তৈরির আদত ইতিহাস জানতে সহায়ক তো হবেই; পৃথিবীর প্রাকৃতিক সম্পদ যখন দ্রুত নিঃশেষ হওয়ার মুখে, তখন ওই সব গ্রহাণু থেকে নানা ধরনের মূল্যবান মৌল নিয়ে আসা সম্ভব কি না, তা কী পরিমাণে পৃথিবীতে আনা সম্ভব হতে পারে, তা বুঝতেই লুসি যাচ্ছে ট্রোজান গ্রহাণুদের মুলুকে।

যাত্রাপথে পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণের বাড়তি শক্তি নিতে এই নীলাভ গ্রহটির পাশ দিয়েও তিনবার উড়ে যাবে লুসি। ১২ বছরে। সৌরমণ্ডলের বাইরের প্রান্তে গিয়ে লুসির আগে আর কোনো মহাকাশযানই আবার পৃথিবীর কাছাকাছি ফিরে আসেনি। তাই এই ব্যাপারেও লুসি দৃষ্টান্ত গড়ে তুলতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে নাসা।

নাসার সায়েন্স মিশনের অ্যাসোসিয়েট অ্যাডমিনিস্ট্রেটর টমাস জুরবুচেন বলেন, ‘যে ট্রোজান গ্রহাণুগুলোতে যাচ্ছে লুসি, তার প্রতিটিই সৌরমণ্ডল তৈরির ইতিহাস জানাতে পারবে। আগামী দিনে পৃথিবীর ফুরিয়ে আসা প্রাকৃতিক সম্পদের বিকল্প পথেরও হদিস দিতে পারবে এই ট্রোজান গ্রহাণুগুলো।’

ঠিক চার বছরের মাথায় ২০২৫-এ লুসি প্রথম যে গ্রহাণুটিতে পৌঁছাবে, তার নাম ‘ডোনাল্ড জোহানসন’। এটি বৃহস্পতির কক্ষপথে ট্রোজান গ্রহাণুদের মুলুকে নেই। রয়েছে মঙ্গল ও বৃহস্পতির মাঝখানে যে গ্রহাণুপুঞ্জ, সেখানেই। আদিমতম মানুষের বিশেষ প্রজাতি লুসির আবিষ্কারকের নামেই নামকরণ করা হয়েছে গ্রহাণুটির।

লুসি অন্য সাতটি গ্রহাণুতে যাবে ২০২৭ থেকে ২০৩৩ সালের মধ্যে। সেই সব কয়টিই রয়েছে বৃহস্পতির কক্ষপথে। সেগুলো ট্রোজান গ্রহাণু। সূত্র : এএফপি, আনন্দবাজার পত্রিকা।

রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩৬

২৩তম জন্মদিনে নতুন সাজে গুগলের ডুডল

২৩তম জন্মদিনে নতুন সাজে গুগলের ডুডল

২৩ বছর আগে আজকের দিনে অর্থাৎ, ১৯৯৮ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর তৈরি হয়েছিল এই সার্চ ইঞ্জিন। ১৯৯৮ সালে এই দিনেই স্যান্ডফোর্ডের দুজন ছাত্র তাদের পেপার পাবলিশ করেন। সেখানে ‘লার্জ স্কেল সার্চ ইঞ্জিন’-এর প্রোটোটাইপ সামনে আনেন। ঘরে বসেই ব্যাকরাব নামে সার্চ ইঞ্জিন পোর্টাল তৈরি করেন তারা।। ল্যারি পেজ ও সের্গেই ব্রিনের সেই ধারণা প্রকল্পই আজকের গুগল। এটিই বিশ্বের বৃহত্তম সার্চ ইঞ্জিন এখন।

আজ ২৭ সেপ্টেম্বর গুগল ২৩ তম জন্মবার্ষিকী পালন করছে। বিশ্বের বৃহত্তম ইন্টারনেট প্রতিষ্ঠানটি বিশেষ ডুডল তৈরি করে জন্মদিন উদযাপন করেছে।

এবারের জন্মদিনে ডুডলকে অনেকটাই সাদামাটা রাখার চেষ্টা করা হয়েছে। ডুডলে শোভা পাচ্ছে জন্মদিনের অপরিহার্য একটি জিনিস, আর তা হচ্ছে ‘কেক’। কেকের উপরে জলন্ত মোমবাতি দ্বারা গুগলের ‘এল’বর্ণটি প্রকাশ করা হচ্ছে। ভার্চ্যুয়াল জন্মদিনের বিষয়টি গুগল তাদের ২৩ তম জন্মদিনের ডুডলে প্রদর্শন করছে।

কম্পিউটার বিজ্ঞানের দুই শিক্ষার্থী ল্যারি পেজ ও সের্গেই ব্রিনের প্রকল্প হিসেবে শুরু করেছিল এ সার্চ ইঞ্জিন। এখন সারা বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন ও ইন্টারনেটের গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে গুগল। এই জুটি একটি বড় আকারের অনুসন্ধান ইঞ্জিনের প্রোটোটাইপ তৈরি করা নিয়ে একটি গবেষণা নিবন্ধ প্রকাশ করেন। তাঁরা চেয়েছিলেন এমন একটা ওয়েবসাইট তৈরি করতে, যার মাধ্যমে অন্য ওয়েবপেজগুলোর একটা তুলনামূলক তালিকা করা যাবে। এর ভিত্তি হবে অন্য ওয়েবসাইটগুলোর মধ্যে কতগুলো তাদের সঙ্গে সংযুক্ত হয়েছে ।

গুগল নামটি আসলে এসেছে গাণিতিক হিসাবের গোগল (googol) ভুল করে লেখার মাধ্যমে, যার মানে হলো ১ এর পর ১০০টি শূন্য। এ নিয়ে এখন গল্প প্রচলিত আছে যে, একজন প্রকৌশলী বা ছাত্র আসল নামের বদলে এই ভুল বানানটি লিখেছিলেন। সেই ভুল নামই পুরো দুনিয়ার সামনে চলে আসে। কেন এই নাম বেছে নিয়েছিলেন ল্যারি আর সের্গেই? তাদের ওয়েবসাইট যে বিপুল পরিমাণ উপাত্ত ঘাঁটাঘাঁটি, অনুসন্ধান করবে, সেটা এই নাম দিয়ে বোঝাতে চেয়েছিলেন তারা।

সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:০৬

একযুগ পর সারাদেশে ‘এক রেটে’ ইন্টারনেট সেবামূল্য নির্ধারণ

একযুগ পর সারাদেশে ‘এক রেটে’ ইন্টারনেট সেবামূল্য নির্ধারণ

অবশেষে একযুগ পর সারাদেশে নির্ধারণ হলো ‘এক রেটে’ ইন্টারনেট সেবামূল্য (ট্যারিফ)। এতে এখন থেকে কম দামে ইন্টারনেট পাওয়া যাবে। এই নতুন দাম কার্যকর হবে আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে।

বৃহস্পতিবার (১২ আগস্ট) বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা (বিটিআরসি) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ইন্টারনেটের নতুন এই ট্যারিফ ঘোষণা করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। জুমের মাধ্যমে সংবাদ সম্মেলনটি হয়।

ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) ও ভূগর্ভস্থ ক্যাবল সেবা এনটিটিএন চালু হওয়ার ১২ বছর পর এ সেবামূল্য নির্ধারণ করা হয়।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী জানান, যে সেবামূল্য বেঁধে দেয়া হলো, তা ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের জন্য।

মন্ত্রী বলেন, এ মূল্য নির্ধারণের ফলে ডিজিটাল বাংলাদেশের আরও এক ধাপ অগ্রগতি হলো। আজকের এ ঘোষণার ফলে সারাদেশে ‘এক দেশ এক রেট’ ইন্টারনেট বাস্তবায়ন আরও সহজ হলো। ৬ জুন ‘এক দেশ এক রেট’ ইন্টারনেট ঘোষণা দেয়ার পরে তা বাস্তবায়নে সমস্যা হচ্ছিল। এখন এটা আর থাকবে না।

তিনি জানান, মোবাইল অপারেটরের বিরুদ্ধে কল ড্রপ, নেটওয়ার্ক সমস্যা নিয়ে শত শত অভিযোগ রয়েছে। সাধারণ মানুষের সঙ্গে তার সম্পৃক্ততা বেশি বলে সরাসরি অভিযোগ করেন অনেকে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বিটিআরসি আইআইজির জন্য বিভিন্ন ভলিউমে ১১টি স্ল্যাবে ব্যান্ডউইথের দাম ও এনটিটিএনগুলোর জন্য ট্রান্সমিশন ক্যাপাসিটির ভলিউম অনুযায়ী ১৫টি স্ল্যাবে সেবামূল্য বেঁধে দেয়া হয়।

বলা হচ্ছে, এটি ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা প্রদানে আইআইজি এবং আইএসপিএদের জন্য বেসরকারি এনটিটিএন’র ব্যাকহল (ক্যাপাসিটিভিত্তিক) ট্যারিফ। এছাড়া আগেই আইএসপির দাম তিনটি স্ল্যাবে (৫ এমবিপিএস ৫০০ টাকা, ১০ এমবিপিএস ৮০০ এবং ২০ এমবিপিএস এক হাজার ২০০ টাকা) বেঁধে দেয়া হয়। এর আগেও এ তিনটি প্রতিষ্ঠানের সেবামূল্য ছিল, কিন্তু তা কখনই সরকারিভাবে বেঁধে দেয়া হয়নি। প্রতিষ্ঠানগুলো নিজেরা একটা দাম ঠিক করে তা গ্রাহকের সামনে উপস্থাপন করত।

আইআইজি ফোরামের মহাসচিব আহমদে জুনায়েদ বলেন, ট্যারিফ ঠিক করে দেয়ার ফলে সারাদেশে এখন এক দামে ব্যান্ডউইথ বিক্রি হবে। ঢাকার বাইরে একেক আইএসপি একেক দামে ব্যান্ডউইথ কিনত। এখন থেকে এক রেটে কিনবে। ফলে তা গ্রাহকের দিকেই যাবে।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদারের সভাপতিত্বে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব মো. আফজাল হোসেন, বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র, বিটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. রফিকুল মতিন, এনটিটিএন প্রতিষ্ঠান সামিট কমিউনিকেশন্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরিফ আল ইসলাম, আইএসপিএবির সভাপতি আমিনুল হাকিম, আইআইজি ফোরামের মহাসচিব আহমদে জুনায়েদ প্রমুখ।

শুক্রবার, ১৩ আগস্ট ২০২১, ০৩:১৬

সেটিংসে পরিবর্তন আনছে ফেসবুক

সেটিংসে পরিবর্তন আনছে ফেসবুক

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক। এই মাধ্যমটিকে আরো জনপ্রিয় করতে প্রতিনিয়ত চেষ্টা চালাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। তাই ব্যবহারকারীদের কথা মাথায় রেখে অ্যাপ্লিকেশনের আপডেট করে চলেছে। এবার এই অ্যাপ্লিকেশনের সেটিংসে নতুন আপডেট নিয়ে আসছে ফেসবুক।

জানা গেছে, এবার ফাইন্ড টুলের উন্নতি করে মানুষের মন বুঝে কাজ করা হবে। কে কী চাইছেন সেই হিসেবে রিকমেন্ডেশন আসবে। তবে ফেসবুক জানিয়েছে, এই আপডেট আগের সব সেটিংস বজায় রেখেই করা হবে। ফেসবুকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এবার থেকে ইউজারকে পোস্ট করার পর টার্গেট অডিয়েন্স নিয়ে বেশি একটা ভাবতে হবে না। কে কী রকমের পোস্ট ও বিজ্ঞাপন পছন্দ করেন সে অনুসারে আপডেট আনা হবে।

ফেসবুকের সেটিংস ৬টি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে। তার মধ্যে রয়েছে অ্যাকাউন্ট, প্রিফারেন্সেস, অডিয়েন্স অ্যান্ড ভিজিবিলিটি, পারমিশন্স, ইনফরমেশন এবং কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ডস ও লিগ্যাল পলিসি।

ফেসবুক আরও কিছু পরিবর্তন এনেছে যেমন, আগে নিউজ ফিড একটি ছোট ক্যাটাগরি ছিল কিন্তু পরে এটাকে প্রিফারেন্সেস অনুযায়ী সিমিলার ক্যাটাগরিতে আনা হয়েছে। ফেসবুক সেটিংসে সার্চ টুলেরও আপডেট করা হয়েছে। এর সাহায্যে ইউজারদের সেটিং সংক্রান্ত অনেক সুবিধা হয়েছে।

সংস্থা নিজের অভ্যন্তরীণ গবেষণায় বুঝতে পেরেছে যে সেটিংসের ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট নাম ব্যবহার করা হলে অনেকটা সুবিধা হয়। তাই প্রাইভেসি সেটিংস ক্যাটাগরির সঙ্গে অন্যান্য সেটিংসগুলোকেও সংযুক্ত করা হয়েছে। প্রাইভেসি চেকআপের জন্য সেটিংস পেজের ওপরে একটি শর্টকার্টও রাখা হয়েছে।

শুক্রবার, ১৩ আগস্ট ২০২১, ০২:৪৪

সর্বশেষ
জনপ্রিয়