ঢাকা, ২০২২-০৬-২৬ | ১২ আষাঢ়,  ১৪২৯
সর্বশেষ: 
উবার ও লিফট ড্রাইভারদের বেতন বৃদ্ধি নিরাপত্তা নিয়ে শংকিত আমেরিকা -চিকেন ফার্মে বার্ড ফ্লু আতঙ্ক মেডিকেইড হারাচ্ছেন লাখো আমেরিকান পাল্টে যাচ্ছে রাজনীতির হিসাব-নিকাশ! অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় হস্তক্ষেপ না করার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্র বিচার ১২৩ বছর আগে গ্রেপ্তার গাছ, শেকলে বন্দি আজো ফ্রান্স প্রেসিডেন্টকে চড় মারার মাশুল কতটা? কুরআনের আয়াত বাতিলে ‘ফালতু’ রিট করায় আবেদনকারীকে জরিমানা আদালতের দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নতুন রেকর্ড ওয়াক্ত ও তারাবি নামাজের জামাতে সর্বোচ্চ ২০ জন বিদেশে মারা গেছে ২৭০০ বাংলাদেশি আর্থিক ক্ষতি মেনেই সাঙ্গ হলো বইমেলা সুন্দরী মডেলের অপহরণ চক্র ! মোটরসাইকেল উৎপাদনে বিপ্লবে দেশ যুক্তরাজ্যে করোনার আরও মারাত্মক ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত ৮ থেকে ১২ সপ্তাহ বিরতিতে অক্সফোর্ডের টিকা বেশি কার্যকর সবাই সপরিবারে নির্ভয়ে করোনা ভ্যাকসিন নিন: প্রধানমন্ত্রী শেষ রাতে দু’রাকাত নামাজ জীবন পরিবর্তন করে দিতে পারে নতুন করোনাভাইরাস আতঙ্কে ইউরোপ-আমেরিকার শেয়ারবাজারে ধস জুনের মধ্যে আসছে আরও ৬ কোটি করোনার টিকা বাড়িভাড়ায় নাভিশ্বাস, ফের বাড়ানোর পাঁয়তারা অমিতাভের পর অভিষেকও করোনা আক্রান্ত বিশ্ব ধরেই নিচ্ছে বাংলাদেশ জালিয়াতির দেশ : শাহরিয়ার কবির ইরাকে মর্গের পাশে রাত কাটছে বাংলাদেশিদের! বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শক বাংলাদেশের সেঁজুতি সাহা সাহেদর টাকা থাকত নাসির, ইন্ডিয়ান বাবু ও স্ত্রী সাদিয়ার কাছে ‘বাংলাদেশিদের ভোট দিন’ মানবতার সেবায় কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ অনিশ্চিতায় ফেরদৌস খন্দকার কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা থামছেই না বিক্ষোভ অব্যাহত গভর্নরের সিদ্ধান্ত মানছে না মেয়র অভিবাসীরা জিতলেন হারলেন ট্রাম্প করোনার ধাক্কা - মে মাসে রপ্তানি কমেছে ২০ হাজার কোটি টাকার পুলিশ সংস্কার বিল উঠলো মার্কিন কংগ্রেসে লাইফ সাপোর্টে থাকা নাসিমের জন্য মেডিকেল বোর্ড পুনর্গঠন আইসিইউ নিয়ে হাহাকার ঈদের ছুটিতে অনিরাপদ হয়ে উঠছে গ্রামগুলো ঘরে ঘরে ভুতুড়ে বিল, বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে সমন্বয় হবে নিউইয়র্কে ‘ট্রাম্প ডেথ ক্লক’ নিউইয়র্কে জেবিবিএ’র পরিচালক ইকবালুর রশীদ লিটনের মৃত্যু নিজ আয়ে চলা শুরু করলো বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি কবে খুলবে নিউইয়র্ক নিউইয়র্কে এবার নতুন ভাইরাসে শিশুরা আক্রান্ত

মাঝরাতে খিদে পাওয়া যে ভয়ানক রোগের লক্ষণ

মাঝরাতে খিদে পাওয়া যে ভয়ানক রোগের লক্ষণ

নিয়ম করে আমরা সবাই তিনবেলা খেয়ে থাকি। রাতের খাবার সেরে সবাই ঘুমান। কিন্তু আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন, যাদের রাতে খাবার খাওয়ার পরেও রাত গড়াতেই আবার খিদে পেয়ে যায়। এই সমস্যা মূলত দেখা যায় যারা অনিদ্রা বা ঘুম না আসার সমস্যায় ভুগছেন তাদের। মধ্যরাতে খিদে পাওয়ার এই প্রবণতা হালকা ভাবে নিয়ে থাকেন অনেকে। তবে চিকিৎসাবিজ্ঞানের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এটি এক ধরনের শারীরিক সমস্যা। চিকিৎসা পরিভাষায় যার নাম ‘নাইট ইটিং ডিসঅর্ডার’(এনইডি)।

প্রায় একশ জনের মধ্যে একজন এই সমস্যায় ভুগে থাকেন। নাইট ইটিং ডিসঅর্ডারের কারণে স্থূলতা, ডায়াবেটিস, রক্তচাপ এবং বিভিন্ন দীর্ঘস্থায়ী অসুখ হতে পারে। যাদের ওজন বেশি তাদের ওজন কমানো বেশ কঠিন হয়ে পড়ে। বেশি ওজন, দিনে কম ক্যালরি যুক্ত খাবার খাওয়া বা পরিবারে কারো এই সমস্যা থাকলে নাইট ইটিং ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়।

লক্ষণগুলো কী কী

>> প্রতিদিন না হলেও সপ্তাহে অন্তত দুদিন রাতে উঠে কিছু খাওয়ার প্রয়োজন পড়বে।

>> রাতের খাবার খাওয়ার এবং ঘুমিয়ে পড়ার মধ্যে বারে বারে খিদে পেতে পারে।

>> দীর্ঘদিন ধরে অনিদ্রার সমস্যা।

>> সকালে ঘুম থেকে উঠার পর নাস্তা খেতে গেলে খিদে কমে যাওয়া।
 
কীভাবে নিয়ন্ত্রণ করবেন

যান্ত্রিক জীবনে নানা টানাপোড়েন, ক্যারিয়ারের দুশ্চিন্তার মাঝে বিছানায় শুয়েই ঘুমিয়ে পড়েন, এমন ভাগ্যবানদের সংখ্যা দিন দিন কমছে। রাতে জেগে থাকার ফলে খিদে পাওয়ার প্রবণতা বেশি তৈরি হয়। কোনো বিষয় নিয়ে অত্যধিক চিন্তা করা, মানসিক উদ্বেগ ঘুম না আসার অন্যতম কারণ।

তাই রাতে খাওয়ার পর ঘুমনোর আগে মন শান্ত করতে কিছুক্ষণ ধ্যানে বসুন। মন ও মস্তিষ্ক দুই-ই স্থির হবে। এতে ঘুম না আসা বা বারে বারে ঘুম ভেঙে যাওয়ার সমস্যা কমতে পারে। আর ভালো ঘুম হলে রাতে আর খিদে পাবে না।

ডেইলি বাংলাদেশ

শনিবার, ১৪ মে ২০২২, ১৩:১৬

‘মাঙ্কি পক্স’ কতটা ভয়ঙ্কর, এর উপসর্গ কী?

‘মাঙ্কি পক্স’ কতটা ভয়ঙ্কর, এর উপসর্গ কী?

করোনাভাইরাসেএখনো বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে চোখ রাঙাচ্ছে। এরই মধ্যে আবার নতুন এক সংক্রামক ভাইরাসের খোঁজ মিলেছে। যার নাম ‘মাঙ্কি পক্স’। এটি খুবই সংক্রামক ও ভয়ঙ্কর ব্যাধি। যার নেই কোনো চিকিৎসাপদ্ধতি।

সম্প্রতি ইংল্যান্ডের এক বাসিন্দা আক্রান্ত হয়েছেন ‘মাঙ্কি পক্স’ নামক একটি বিরল ভাইরাসে। সরকারিভাবে এই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে ব্রিটেনের স্বাস্থ্য দফতর। সংক্রামক ব্যাধির জন্য বিশেষভাবে নির্মিত একটি বিভাগে চিকিৎসাধীন আছেন ওই রোগী।

জানা গেছে, মাঙ্কি পক্সে আক্রান্ত ব্যক্তি সম্প্রতি নাইজেরিয়ায় গিয়েছিলেন। সেখানেই কোনোভাবে তিনি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

ভাইরাসটি খুবই সংক্রামক বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। নাক, মুখ, চোখের পাশাপাশি আক্রান্তের পোশাক থেকেও সংক্রমিত হতে পারে এই ভাইরাস।

কী এই মাঙ্কি পক্স?

বিশেষজ্ঞদের মতে, এটি এক বিশেষ ধরনের বসন্ত। জলবসন্ত বা গুটিবসন্তের প্রতিকার থাকলেও এই ভাইরাস এতোই বিরল যে, এখনো পর্যন্ত এর নির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসাপদ্ধতি জানা নেই চিকিৎসকদের।

মূলত পশ্চিম ও মধ্য আফ্রিকার কিছু দেশে এই ভাইরাসের খোঁজ মেলে। তবে নাম ‘মাঙ্কি পক্স’ হলেও একাধিক বন্যপ্রাণির মাধ্যমে ছড়াতে পারে এই ভাইরাস। এই ভাইরাস সবচেয়ে বেশি ছড়ায় ইঁদুরের মাধ্যমে।

এই ভাইরাসের উপসর্গ কী কী?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মাঙ্কি পক্সে আক্রান্তদের শরীরে প্রাথমিক উপসর্গের মধ্যে আছে- জ্বর, মাথা যন্ত্রণা, পিঠ ও গায়ে ব্যথার মতো লক্ষণ। এর থেকে হতে পারে কাঁপুনি ও ক্লান্তিও।

এর পাশাপাশি দেহের বিভিন্ন লসিকা গ্রন্থি ফুলে ওঠে। সঙ্গে ছোট ছোট ক্ষতচিহ্ন দেখা দিতে থাকে মুখে। ধীরে ধীরে পুরো শরীরে ছড়িয়ে পড়ে ক্ষত। বিশেষজ্ঞদের দাবি, আক্রান্ত ব্যক্তির আশপাশে থাকা ব্যক্তিদের মধ্যে সহজেই ছড়িয়ে পড়তে পারে এই ভাইরাস।

শ্বাসনালি, ক্ষত স্থান, নাক, মুখ কিংবা চোখের মাধ্যমে এই ভাইরাস প্রবেশ করতে পারে সুস্থ ব্যক্তির দেহে। এমনকি আক্রান্তের ব্যবহার করা পোশাক থেকেও ছড়ায় সংক্রমণ।

সূত্র: গভ.ইউকে/ইউরোনিউজ

বৃহস্পতিবার, ১২ মে ২০২২, ০১:১৫

কর্মীদের সুবিধায় অফিসে ৩০ মিনিট ঘুমের ব্যবস্থা!

কর্মীদের সুবিধায় অফিসে ৩০ মিনিট ঘুমের ব্যবস্থা!

 কর্মীদের সুবিধার কথা চিন্তা করে তাদের জন্য অফিসে ৩০ মিনিট ঘুমানোর অনুমতি দিয়েছে বেঙ্গালুরুভিত্তিক স্টার্টআপ ওয়েকফিট।

গত বৃহস্পতিবার টুইটার পোস্টে এ তথ্য জানিয়েছে ওয়েকফিট সলিউশন।
কর্মীরা বেলা ২টা থেকে ২টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত অফিসে ঘুমাতে পারবেন। এ সময় প্রতিষ্ঠানটি তার সব কর্মীর কার্যসূচি বন্ধ রাখবে।

ওয়েকফিট সলিউশন টুইটার পোস্টে দুটি ছবি প্রকাশ করা হয়েছে। কর্মীদের কিছুটা বিরতি বা অল্প কিছু সময়ের জন্য বিশ্রাম এবং তারা কোন সময়ে এই সুবিধা পাবে সে বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য সেখানে জানানো হয়।

ওয়েকফিটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা চৈতন্য রামালিঙ্গেগৌড়া সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের কাছে একটি অফিশিয়াল ই-মেইল পাঠিয়েছেন। ই-মেইলের শিরোনাম: ‘আপনার ঘুমানোর অধিকার ঘোষণা করা হচ্ছে’।

চৈতন্য রামালিঙ্গেগৌড়া লিখেছেন, আমরা ছয় বছরের বেশি সময় ধরে যেসব ব্যবসা করছি তা ঘুমের সঙ্গে জড়িত। কিন্তু আমরা বিশ্রামের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক অর্থাৎ দুপুরে কিছু সময় ঘুমানোর প্রতি সুবিচার করতে পারিনি। আমরা সব সময় স্বল্প সময়ের ঘুমকে গুরুত্ব সহকারে নিয়েছি।

ঘুমের জন্য অফিশিয়াল সময় ঘোষণার কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে নাসা ও হার্ভার্ডের গবেষণার কথা উল্লেখ করেন চৈতন্য রামালিঙ্গেগৌড়া।

ঘুমের যথাযথ পরিবেশ তৈরির লক্ষ্যে কাজ করার কথা জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এ জন্য তারা অফিসে আরামদায়ক ‘ন্যাপপড’ ও ‘শান্ত কক্ষ’ তৈরিতে কাজ করছে।

শনিবার, ৭ মে ২০২২, ১৮:০৩

ঈদে খান বুঝেশুনে, শেষ হোক আনন্দে

ঈদে খান বুঝেশুনে, শেষ হোক আনন্দে


ঈদে খাবার টেবিলে থাকে মজার মজার খাবার। অনেকেই স্বাভাবিকের চেয়ে খানিকটা বেশিই খেয়ে ফেলেন। তাই অনেক সময় দেখা দেয় নানা ধরনের শারীরিক সমস্যা। ঈদের আনন্দে এসব যাতে বাগড়া দিতে না পারে সে জন্য পরামর্শ দিয়েছেন পুষ্টিবিদ নাহিদা আহমেদ

ঈদে ভিন্ন স্বাদ ও ভিন্ন ভিন্ন রেসিপি দিয়ে তৈরি হয় নানা রকম খাবার।


ফলে অনেকেই অতিরিক্ত খেয়ে ফেলেন। এই অতিরিক্ত খাবার খাওয়াই ডেকে আনে নানা সমস্যা। তাই সুস্থ থাকার জন্য সবারই উচিত স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার মধ্য দিয়ে ঈদ উদযাপন করা। এক মাস রোজা রাখার ফলে দৈনিক রুটিনের পরিবর্তন হয়। তবে ঈদের সময় থেকে আগের স্বাভাবিক রুটিন শুরু হয়ে যায়। তাই অনেক সময় বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়। যেমন—বদহজম, কোষ্ঠকাঠিন্য, এসিডিটি বা গ্যাস, পাতলা পায়খানা ইত্যাদি। তাই ঈদের মেন্যুতে সবারই উচিত পুষ্টি ও স্বাদের সমন্বয় করা। যাঁরা উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, হাইপারকোলেস্টারলেমিয়া, কিডনি বা লিভারের রোগে ভোগেন, তাঁদের অবশ্যই ঈদের খাবারের ব্যাপারে বাড়তি সতর্ক থাকা দরকার।

ঈদ মানেই সেমাই-পায়েসের মতো বিভিন্ন মিষ্টি। মিষ্টান্নর পাশাপাশি চলে বিভিন্ন পদের মাংস। আর এর মধ্যে মুরগির নানা পদসহ গরু, খাসি ও মহিষসহ বিভিন্ন ধরনের লাল মাংসের পদ বেশি প্রাধান্য পায়। লাল মাংস পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। এই লাল মাংস একটানা দীর্ঘদিন গ্রহণে ও অতিভোজনে শরীরের নানা রোগবালাই বাসা বাঁধতে পারে। প্রতিদিন একজন সুস্থ ব্যক্তি কতটুকু প্রোটিন খাবেন সেটা নির্ভর করে ওই ব্যক্তির আদর্শ ওজনের ওপরে।

কারোরই দিনে ৭০ গ্রামের বেশি মাংস খাওয়া উচিত নয়। গরুর মাংস খাওয়ার নিরাপদ মাত্রা হলো সপ্তাহে দুদিন বা সপ্তাহে মোট তিন থেকে পাঁচ বেলা। প্রতি বেলায় ঘরে রান্না করা মাংস ২-৩ টুকরার বেশি খাবেন না।

দীর্ঘ সময় ধরে প্রতিদিন একটানা ১০০ গ্রামের বেশি লাল মাংস খেলে হৃদরোগে মৃত্যুর আশঙ্কা, ব্রেন স্ট্রোকের ঝুঁকি, বৃহদন্ত্র ও প্রস্টেট ক্যান্সারের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়। এ ছাড়া অতিরিক্ত লাল মাংস গ্রহণে কোষ্ঠকাঠিন্য, রক্তের চর্বি বেড়ে যাওয়া ও গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হয়। লাল মাংস থাকা বিশেষ ইনফ্লামেটরি যৌগ পাকস্থলী, ক্ষুদ্রান্ত্র ও বৃহদন্ত্র ক্যান্সারের জন্যও দায়ী। এ ছাড়া ফুসফুস নানা রোগে আক্রান্ত হওয়া,  কোলন ও স্তন্য ক্যান্সারে ভূমিকা রাখে। এমনকি অতিরিক্ত লাল মাংস গ্রহণে আর্থ্রাইটিস, গাউট, পেপটিক আলসার, পিত্তথলিতে পাথর, প্যানক্রিয়াস প্রদাহ ও কিডনি রোগসহ বিভিন্ন জটিলতা তৈরি করে। টাটকা লাল মাংসের চেয়ে প্রক্রিয়াজাতকৃত লাল মাংস আরো বেশি ক্ষতিকারক।

শরীর সুস্থ-সবল রাখার অন্যতম শর্ত হচ্ছে প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণে সুষম খাবার গ্রহণ করা। খাদ্যের একটি বা একটি পুষ্টি উপাদানসমৃদ্ধ খাবার অতিরিক্ত গ্রহণ না করে ৬টি উপাদানসমৃদ্ধ খাবার তালিকায় রাখা। প্রতি মুহূর্তে শরীরের যেসব কোষ ক্ষয় হচ্ছে তা পুনর্গঠনের জন্য প্রয়োজন যথাযথ পুষ্টি। সে জন্য পুষ্টির সব উপাদান থেকে সঠিক পরিমাণে খাবার গ্রহণ করতে হবে।

মাংস শুধু যে ক্ষতিকর তা নয়, এ থেকে প্রোটিন, ভিটামিন-(বি১, বি৩, বি৬ ও বি১২), জিংক, সেলেনিয়াম, ফসফরাস ও আয়রন ভালো পরিমাণে পাওয়া যায়। এই পুষ্টি উপাদানগুলোর স্বাস্থ্যগত উপকারিতাও অনেক।

সব খাবার থেকে উপকার পেতে হলে অবশ্যই রান্না করার ক্ষেত্রে, খাবার নির্বাচন করার ক্ষেত্রে ও পরিমাণ কতটুকু হবে সে বিষয়ে কিছু নিয়ম মানা জরুরি। যেমন—

- মাংস রান্নায় দৃশ্যমান জমানো চর্বি বাদ দিয়ে রান্না করতে হবে। রান্না করতে হবে কম তেলে।

- মাংস রান্নার আগে সম্ভব হলে ৫-১০ মিনিট সিদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে নিলে চর্বির অংশ অনেকটা কমে যায়। উচ্চ তাপে রান্না করতে হবে।

- মাংস রান্নার সময় ভিনেগার, টক দই, পেঁপে বাটা ও লেবুর রস ইত্যাদি ব্যবহার করতে পারেন এতে চর্বির ক্ষতিকর প্রভাব কিছুটা হলেও কমানো সম্ভব।

- যাঁদের উচ্চ রক্তচাপজনিত সমস্যা আছে বা কো-মরবিডিটি আছে তাঁরা একেবারেই না এড়াতে পারলে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে দু-এক টুকরা খেতে পারেন, সে ক্ষেত্রে মাংস রান্নায় সবজি ব্যবহার করতে হবে, যেমন—কাঁচা পেঁপে, লাউ, চালকুমড়া, টমেটো কিংবা মাশরুম। কিংবা তাঁরা মাংসের সঙ্গে সবজি মিশিয়ে কাটলেট বা চপ করে খেতে পারেন।   

- একবারে ভূঁরিভোজ না করে সারা দিনে অল্প অল্প করে বারবার খাওয়া উচিত।

- গুরুপাক খাবারের সঙ্গে শসা, লেবু, টমেটো ইত্যাদির সালাদ রাখা যেতে পারে।

- তিনবেলা ভারী খাবার না খেয়ে যেকোনো একবেলা হালকা খাবার, যেমন—সবজির স্যুপ, সবজি ও রুটি রাখতে পারেন। হপ্রত্যেক প্রধান খাবারের ২০ থেকে ৩০ মিনিট আগে কুসুম গরম পানি পান করতে পারেন, যা বিপাকক্রিয়ার হার বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

- খাবার কিছু সময় পর তালিকায় লেবু পানি বা টক দই রাখলেও তা হজমপ্রক্রিয়া বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

- ঈদে আমরা অনেকে নানা সোডা পানি বা সফট ড্রিংকস পান করি। এগুলোর পরিবর্তে চিনি ছাড়া নানা মৌসুমি ফলের জুস, বোরহানি গ্রহণ উত্তম ।

- ঈদের দিন অবশ্যই মধ্যসকাল বা বিকেলের নাশতায় টকজাতীয় মৌসুমি ফল রাখতে হবে, যা রোগ প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করবে।

- পানীয় হিসেবে ডিটক্স ওয়াটার ঈদের এই সময় খুব কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।

- মাংস খাওয়ার সময় ঝোল বাদে খাওয়া ভালো। আবার ভুনা মাংসের পরিবর্তে কম তেলে গ্রিল, বারবিকিউ করে বা কাবাব করেও মাংস খাওয়া যায়।

- অসম্পৃক্ত উদ্ভিজ্জ তেল ব্যবহার করুন রান্নায়। ঘিয়ের ব্যবহার বাদ দিয়ে দিন একেবারে। ঘ্রাণটুকু রাখতে একেবারে শেষে সামান্য একটুখানি ঘি ওপরে ছড়িয়ে দিতে পারেন। ঘিয়ে ভাজা পরোটার পরিবর্তে সেঁকা রুটি খেতে পারেন।

- ঈদে বাড়িতে নানা রকম খাবার থাকে, তাই বাইরের সব খাবার এড়িয়ে চলুন।

- ঈদে তুলনামূলক বেশি খাওয়া হয়, সে জন্য অবশ্যই সকালে-বিকেলে ব্যায়াম করে বা হেঁটে অতিরিক্ত ক্যালরি বার্ন করার চেষ্টা করুন।

 

ঈদের সকালের খাবার

ঈদের সকালের নাশতায় রুটির পাশাপাশি থাকতে পারে হালকা তেলে ভাজা পরোটা বা সবজির নরম খিচুড়ি। তার সঙ্গে মুরগির তরকারি বা ডিম ভুনা রাখা যায়। তবে সকালের খাবারকে স্বাস্থ্যকর বানাতে একটা সবজি রাখতে হবে অবশ্যই। সব শেষে মিষ্টি খাবারে থাকতে পারে স্বল্প মিষ্টিযুক্ত সেমাই, পায়েস, ফিরনি, পুডিং ইত্যাদি।

মধ্যসকাল ও বিকেলের নাশতা

ঈদের দিনে অনেকে সকাল ও দুপুর, দুপুর ও রাতের মাঝের সময়টাতে হালকা কিছু খান। সে ক্ষেত্রে ফুচকা ছাড়া বা অল্প ফুচকা দেওয়া চটপটি খেতে পারেন। যেহেতু এখন বেশ গরম, তাই এ সময়ের সব থেকে পুষ্টিকর খাবার হলো তাজা ফল বা ফলের সালাদ। এ ছাড়া ফলের জুস, বেলের শরবত, ডাবের পানি খাওয়া যেতে পারে, তাতে শরীরে পানিস্বল্পতা তৈরি হবে না। আবার চিকেন ভেজিটেবল স্যুপ, স্টু জাতীয় খাবারও রাখা যায়।

দুপুরের খাবার

ঈদের দিনে দুপুরের খাবারে খুব হালকা তেলের পোলাউ বা খিচুড়ি খাওয়া যাবে। সবচেয়ে ভালো হয় পোলাউ বা খিচুড়িতে সবজির ব্যবহার থাকলে। এই গরমে ডুবো তেলে ভাজা বা অতিরিক্ত মসলাদার খাবার খাওয়া এড়িয়ে চলা উচিত। লাল মাংসের পরিবর্তে বেক করা কাবাব বা গ্রিল করা মুরগি ভালো খাবার হবে। ঈদের দিনে সুস্থ থাকতে রান্নার কৌশলের পরিবর্তনের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। রান্না পদ্ধতির কিছুটা পরিবর্তনের মাধ্যমে যেকোনো মজাদার খাবারই খাওয়া যায়। মাছ বা মাংস ডুবো তেলে না ভেজে স্বাস্থ্যকর উপায়ে এয়ারফ্রায়ারে তেল ছাড়া ভেজে খেতে পারেন। এ ছাড়া দুপুরের অন্য খাবারের পাশাপাশি কম তেল মসলার চায়নিজ সবজি ও সালাদ খুবই স্বাস্থ্যকর পদ। রান্না করা যেতে পারে সবজির কোর্মাও। কোমল পানীয়ের বদলে বোরহানি বা মাঠা খাওয়াই উত্তম, খাবারের পর রাখতে হবে টক দই।

রাতের খাবার

কেউ যদি মনে করেন, রাতে ভালো খাবার খাবেন, সে ক্ষেত্রে মাছ বা মাংসের ভিন্নধর্মী রান্নার সঙ্গে ভাত খেলে মেন্যুটা অনেক বেশি স্বাস্থ্যকর হবে। ঈদের রাতে দাওয়াতে গেলেও ভালো খাবার, আবার বাড়িতে থাকলেও ভালো খাবার। তাই রাতের খাবারের মেন্যু একটু ভিন্নভাবে করলে ভালো। মাংসের একটি স্বাস্থ্যকর পদ বা বাসায় থাকলে মাছের একটি পদ হতে পারে আদর্শ খাবার। সঙ্গে একটি পদ সবজি রাখতে পারেন। - কালের কণ্ঠ

 

রোববার, ১ মে ২০২২, ০৬:১৭

তারকাদের ত্বক এতো চকচকে হয় কীভাবে?

তারকাদের ত্বক এতো চকচকে হয় কীভাবে?

তারকাদের ত্বকের সাথে নিজের চামড়ার তুলনা করেননি এমন তরুণী খুঁজে পাওয়া মুশকিল। তারকাদের চকচকে ত্বক এবং লাবণ্য দেখে তাদের মতো হতে চাননি এমন নারী পাওয়া কষ্টকর। প্রশ্ন জাগে, কী এমন মাখেন তারা? কেবল দামি ব্রান্ডের কসমেটিক্স ব্যবহার করলেই পাওয়া যাবে এমন মোহনীয় ত্বক?

তারকাদের এমন চকচকে ত্বকের পেছনে বিশেষ খাদ্যাভ্যাস ও জীবনব্যস্থা তো আছেই, তবে কিছু বিষয় মানলে তাদের মতো এমন ত্বক পেতে পারেন আপনিও।

এর জন্য যে বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে-

১) সানস্ক্রিনের গুরুত্ব কখনও উপেক্ষা করলে চলবে না। রোদে বেরোনোর আগে সানস্ক্রিন মাখা অতি জরুরি। তবে ত্বক ভাল থাকবে। তারকারা শুটিং ব্যতীত রোদের কাছাকাছি যান খুব কম। তাই রোদকে পারতপক্ষে এড়িয়ে চলতে হবে। বাইরে বের হলে প্রয়োজনে ছাতা ব্যবহার করতে পারেন।

২) শুধু মুখ নয়, ঘাড়েরও যত্ন নিতে হবে। ঘাড়ের ত্বকও মুখের মতো পাতলা। যত্নের অভাবে তাড়াতাড়ি ভাঁজ পড়ে যায়। তাতে চেহারার জেল্লা কমে।

৩) মাঝেমধ্যেই মুখে বরফের টুকরো ঘষে নিন। তাতে ত্বক নরম হবে। ত্বকের তেলতেলে ভাবও উধাও হবে।

৪) মুখে ক্রিম বা অন্য কোনও কিছু লাগানোর আগে অবশ্যই হাত পরিষ্কার করে নিন। তাতে মুখের ত্বকে জীবণু কম যাবে।

৫) বিছানায় যাওয়ার আগে কয়েকটি নিয়ম পালন করুন। মেকআপ তুলে ঘুমোবেন। হাত-মুখ ভালভাবে পরিষ্কার করবেন। আর হাল্কা-ঢিলা কোনও পোশাক পরবেন।

৬) হাতের যত্ন নেওয়াও খুব জরুরি। সাজগোজ করার পরে মুখ ছাড়া শরীরের যে অংশটি সবচেয়ে বেশি নজর কাড়ে, তা হল হাত। হাত সুন্দর রাখার চেষ্টা করুন।

৭) চোখের তলায় নিয়মিত মাসাজ করুন। তাতে চোখের নীচের চামড়া টানটান থাকবে।

মঙ্গলবার, ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ০৪:০০

সহজেই রান্না করুন মোরগ মোন্তাজান

সহজেই রান্না করুন মোরগ মোন্তাজান

শুক্রবার ছুটির দিনে ভাবছেন কি রান্না করবেন? এর মধ্যে বাসায় এসেছে মেহমান। আপনি চাইলে খুব সহজেই, ঝামেলা ছাড়া তৈরি করতে পারেন একটি ভিন্নধর্মী খাবার। কিছু উপকরণ দিয়ে সহজেই ঘরে তৈরি করতে পারেন এই রেসিপিটি। পরোটা, পোলাও কিংবা নান রুটি, সবকিছুর সঙ্গে যাবে এই রেসিপিটি। রেসিপিটি হলো মজাদার মোরগ মোন্তাজান। চলুন জেনে নেয়া যাক কিভাবে রান্না করবেন মজাদার খাবারটি।

বুধবার, ৩১ মার্চ ২০২১, ০২:৫৯

সহবাসে কি শরীরচর্চা হয়?

সহবাসে কি শরীরচর্চা হয়?

পৃথিবীতে মানব অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে অনস্বীকার্য ভূমিকা রেখে চলেছে নারী-পুরুষের সহবাস বা যৌনমিলন। এটি কেবল আনন্দ নয়, শরীরচর্চার মাধ্যমও হতে পারে। আপনি জেনে বিস্মিত হবেন, ব্যায়ামে যেমন ক্যালরি ক্ষয় হয়, তেমনটি যৌনকর্মে লিপ্ত হলেও ঘটে। কিন্তু প্রশ্ন হলো, এ সময় কতটুকু ক্যালরি পোড়ে?

মঙ্গলবার, ৩০ মার্চ ২০২১, ০৭:০৯

গ্যাস দূর করতে যেসব খাবারগুলো খাবেন

গ্যাস দূর করতে যেসব খাবারগুলো খাবেন

গ্যাসের সমস্যা কমবেশি সবারই আছে। এই সমস্যা থেকেই দেখা দিতে পারে আরও অনেক সমস্যা। অনেক রকম উপায় মেনে চলে, অনেক ওষুধ-পথ্য খেয়েও গ্যাসের সমস্যা থেকে মুক্তি মেলে না।

সোমবার, ১৬ নভেম্বর ২০২০, ০৪:২৩

সুখী দাম্পত্য জীবনের গোপন রহস্য কি?

সুখী দাম্পত্য জীবনের গোপন রহস্য কি?

সব সম্পর্কেই লড়াই বিবাদ আছে। মতের অমিল, ভিন্ন ভিন্ন ইচ্ছার কারণে দুজনের মধ্যে ঝগড়া হতে পারে। দুজনের ভিন্নমতের কারণে সম্পর্কে ভারসাম্য বজায় থাকে না। এজন্য মনোমালিন্য লেগেই থাকে। হতে পারে সেটা সঙ্গী ব্যতিত অন্য কারো সাথে দেখা করা হয়েছে বা আইসক্রিম খাওয়া হয়েছে এই বিষয় নিয়েও।

বুধবার, ৪ নভেম্বর ২০২০, ০৪:২৮

মাস্কে ঢাকা ত্বকে ব্রণ?

মাস্কে ঢাকা ত্বকে ব্রণ?

করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে আপনি নিয়মিতই মাস্ক পড়ছেন। কিন্তু মাস্ক পড়া শুরু করার পর হতে আপনি হয়তো প্রায়ই দেখছেন, মাস্কে ঢাকা থাকা মুখের অংশে ব্রণ হচ্ছে।

বিভিন্ন কারণে নিয়মিত যে ব্রণ হয় এটি আসলে সেই ব্রণ না। মূলত মাস্ক পরার কারণেই এই ব্রণগুলো হয়ে থাকে। এসব ব্রণ হয় বলে কিন্তু মাস্ক পড়া ছেড়ে দেওয়াও সম্ভব না। নিয়মিত মুখ পরিষ্কার করলে ও ত্বকের যত্ন নিলে সহজেই এটি নিয়ন্ত্রণে রাখা ও বড় ধরণের ক্ষতি থেকে বাঁচা সম্ভব। 

তবে প্রত্যেকের ত্বক একরকম না। সবাই একইরকম ব্যবস্থা নিলে তাতে কাজ নাও হতে পারে। আর তাই ধীরে-সুস্থে আগাতে হবে। এতে আপনার ত্বকের কোনো ক্ষতি না করেই ত্বক সুস্থ রাখতে পারেন।

মঙ্গলবার, ২৫ আগস্ট ২০২০, ০৪:১২

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য কোভিড ভয়াবহ কেনো ?

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য কোভিড ভয়াবহ কেনো ?

 বিভিন্ন গবেষণা থেকে জানা গেছে, কোভিডের মূলে প্রায় ২৫ শতাংশ ক্ষেত্রে অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিসের হাত থাকে। এবং তার ফলে অনেক রোগীই মারা যান।ব্যাপারটা চিন্তার। কারণ, আমাদের দেশে ডায়াবেটিসের প্রকোপ খুব বেশি। অনিয়মিত জীবনযাপনের ফলে ৩০ যেতে না যেতেই বহু মানুষ এর কবলে পড়েন বা পড়ছেন। কাজেই কোভিড নিয়েও চিন্তা আমাদেরই বেশি।

বৃহস্পতিবার, ৬ আগস্ট ২০২০, ০২:২২

করোনা ঝুঁকি কাদের বেশি? আমাদের কতটা ভীত হওয়া উচিত?

করোনা ঝুঁকি কাদের বেশি? আমাদের কতটা ভীত হওয়া উচিত?

বিশ্বজুড়ে প্রলয় সৃষ্টিকারী আণুবীক্ষণিক জীব নভেল করোনাভাইরাসকে বলা হচ্ছে 'অদৃশ্য ঘাতক'। এর চেয়ে ভয়ঙ্কর আর কী হতে পারে? এটি এমন একটি প্রাণঘাতী মারণাস্ত্র যা আমরা চোখে দেখতে পাই না, আর যখন এটি আক্রান্ত করে, এর চিকিৎসা করানোও সম্ভব হয় না। আর তাই স্বাভাবিকভাবেই অনেক মানুষ বাইরে বের হতে ভয় পাচ্ছে, স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যেতে ভয় পাচ্ছে। এমনকি বাচ্চাদের স্কুলে পাঠাতেও ভয়ের শেষ নেই।

বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০, ০৪:০৫

মেডিটেশন কতটা উপকারী?

মেডিটেশন কতটা উপকারী?

পৃথিবীজুড়ে যে অস্থিরতা, তার আঁচ লাগছে আমাদের গায়েও। পুরো পৃথিবীর মানুষই এখন কম-বেশি ক্ষতিগ্রস্ত। ভবিষ্যতে কী হতে যাচ্ছে সে সম্পর্কে ধারণা করা সম্ভব নয় কারো পক্ষেই। যত দিন যাবে, এই চরম অনিশ্চয়তা তত বেশি বাড়বে। বাড়ির সবার মানসিক স্বাস্থ্যের উপর তার প্রভাব পড়বে।

বৃহস্পতিবার, ১৪ মে ২০২০, ০২:৩৩

করোনার কারণে যেসব ভালো অভ্যাস গড়ে উঠেছে

করোনার কারণে যেসব ভালো অভ্যাস গড়ে উঠেছে

রোববার, ১২ এপ্রিল ২০২০, ২২:৩২

সেই ছিদ্র দিয়ে ঢুকেছিলো সাপ...

সেই ছিদ্র দিয়ে ঢুকেছিলো সাপ...

সোমবার, ৬ এপ্রিল ২০২০, ২১:৩৯

''সরকারি এক আদেশেই করোনা উধাও''

''সরকারি এক আদেশেই করোনা উধাও''

বুধবার, ১ এপ্রিল ২০২০, ২১:০১

স্বর্ণের প্রকৃত মূল্য

স্বর্ণের প্রকৃত মূল্য

রোববার, ৮ মার্চ ২০২০, ০২:০৪

অ্যান্টার্কটিকায় ক্রমশই কমছে চিনস্ট্র্যাপ পেঙ্গুইন

অ্যান্টার্কটিকায় ক্রমশই কমছে চিনস্ট্র্যাপ পেঙ্গুইন

বৃহস্পতিবার, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২২:১৬

সন্তানের মিথ্যা বলার প্রবণতা কমাবেন যেভাবে

সন্তানের মিথ্যা বলার প্রবণতা কমাবেন যেভাবে

রোববার, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২২:১৮

জন্মদিনে দুই পর্ন তারকা উপহার! (ভিডিও)

জন্মদিনে দুই পর্ন তারকা উপহার! (ভিডিও)

বৃহস্পতিবার, ৩০ জানুয়ারি ২০২০, ২৩:১৮

সূর্যের জন্মেরও আগের বিরল পদার্থের হদিশ!

সূর্যের জন্মেরও আগের বিরল পদার্থের হদিশ!

বৃহস্পতিবার, ৩০ জানুয়ারি ২০২০, ২২:১৬

সর্বশেষ
জনপ্রিয়