সোমবার   ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩   মাঘ ২৩ ১৪২৯   ১৫ রজব ১৪৪৪

সর্বশেষ:
ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিলেন লুলা যে কোনো দিন খুলবে স্বপ্নের বঙ্গবন্ধু টানেল শীতে কাঁপছে উত্তরাঞ্চল দেশে করোনার নতুন ধরন, সতর্কতা বিএনপির সব পদ থেকে বহিষ্কার আব্দুস সাত্তার ভূঁইয়া নৌকার প্রার্থীর পক্ষে মাঠে কাজ করবো: মাহিয়া মাহি মর্মান্তিক, মেয়েটিকে ১২ কিলোমিটার টেনে নিয়ে গেল ঘাতক গাড়ি! স্ট্যামফোর্ড-আশাসহ ৪ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত বর্ষবরণে বায়ু-শব্দদূষণ জনস্বাস্থ্যে ধাক্কা কোনো ভুল মানুষকে পাশে রাখতে চাই না বাসস্থানের চরম সংকটে নিউইয়র্কবাসী ট্রাকসেল লাইনে মধ্যবিত্ত-নিম্নবিত্ত একাকার! ছুটি ৬ মাসের বেশি হলে কুয়েতের ভিসা বাতিল ১০ হাজার বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত চুক্তিতে বিয়ে করে ইউরোপে পাড়ি আইফোন ১৪ প্রোর ক্যামেরায় নতুন দুই সমস্যা পায়ের কিছু অংশ কাটা হলো গায়ক আকবরের ১৫ দিনে রেমিট্যান্স এসেছে ১০০ কোটি ডলার নারী ফুটবলে দক্ষিণ এশিয়ার চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে আবার বাড়লো স্বর্ণের দাম
৩২১

রক্ত দিয়ে দীর্ঘায়ু লাভ করুন

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  

শীতকালে ভ্রাম্যমান রক্তদান ক্যাম্প দেখা যায় বিভিন্ন এলাকায়। অনেকেই তিন মাস পর পর রক্তদান করে থাকেন। আবার অনেকে রক্তদান করতে ভয় পান। কিন্তু রক্তদানের অনেক উপকারিতা রয়েছে। সেগুলো জেনে নিন-

১. যদি হার্ট ও লিভার ঠিক রাখতে চান তবে অবশ্যই রক্তদান করতে হবে। কারণ হার্ট ও লিভারের নানা রকম সমস্যা হয়ে থাকে রক্তে লোহার মাত্রা বেড়ে গেলে। প্রতি তিন মাস পর পর রক্তদান করলে রক্তে লোহার মাত্রা ঠিক থাকে। সে কারণে হার্ট অ্যাটাক বা লিভারকে রক্ষা করতে চাইলে অবশ্যই রক্ত দিতে হবে।

২. রক্ত দিলে রক্তে লোহার মাত্রা অনেকটা নিয়ন্ত্রণে থাকে। যার কারণে ক্যান্সারের ঝুঁকিও অনেকটাই কমে যায়। বিশেষ করে লিভার বা ফুসফুস ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। এছাড়াও রক্ত দিলে অন্ত্রের ক্যান্সারও রোধ হয়।

 

৩. রক্তদান করার পর শরীরে যে রক্ত ঘাটতি হয়ে থাকে, তা পূরণ করার জন্য শরীরে আবার নতুন কোষ জন্ম নেয়। এর ফলে স্বাস্থ্য অনেক ভালো থাকে। তাই রক্ত দিলে শরীর খারাপ হয় এ ধারণা একদমই ঠিক নয়।

৪. শরীরের রক্ত যদি বেশি পরিমাণে লোহা শোষণ করে তবে এক ধরণের রোগ দেখা দেয়। যা শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তাই এ ধরণের রোগের সম্ভাবনা দূর করার জন্য অবশ্যই রক্তদান করা উচিত।

৫. কারো ওজন যদি খুব বেশি হয় তবে অবশ্যই রক্তদান করতে হবে। এক ব্যাগ রক্ত দিলে ৬৫০ ক্যালরি মেদ শরীর থেকে ঝরতে পারে। সে কারণেই রক্তদান করলে ওজন অনায়েসেই কমাতে পারবেন।

৬. রক্তের ঘাটতি পূরণের কাজ শরীরে অল্প সময়ের মধ্যেই শুরু হয়। কোথাও কেটে রক্ত বের হলে সে জায়গা খুব তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায় বা রক্ত পড়া বন্ধ হয়ে যায়। এ কারণেই আপনি কিছুদিন আগে রক্ত দিলে ঘাটতি পূরণের সময় কোথাও কেটে গেলে সে জায়গা তাড়াতাড়ি ভালো হয়ে যাবে।

৭. রক্তে লোহার পরিমাণ কমে যাওয়ার কারণে কোলেস্ট্ররেলের মাত্রাও কমে আসে। তাই কোলেস্ট্ররেল ঘাটতিজনিত কোনো রোগের সম্ভাবনা কমে যায়।

 

৮. এছাড়াও রক্ত দেয়ার আগে আপনার রক্ত ঠিক আছে কি না, তা পরিক্ষা করে নেয়া হয়। তখন আপনার শরীরে যদি কোন রোগ থাকে তবে তা জেনে যাবেন। তাই রক্তদান করলে বিনামূল্যে আপনার শরীরের বিভিন্ন রোগ সম্পর্কেও সচেতন হতে পারবেন।

৯. যারা নিয়মিত রক্তদান করেন তাদের গড় আয়ু অন্যদের তুলনায় বেশি হয়। তাই দীর্ঘায়ু লাভের জন্য হলেও রক্তদান করা উচিত। রক্ত আপনার শরীরকে সুস্থ রাখছে। কিন্তু আপনার দান করা রক্ত অন্য একজনের অনেক উপকারে লাগতে পারে।

১০. অনেকের শরীরে প্রচুর রক্ত থাকে, এত পরিমাণ রক্ত থাকে যা তার প্রয়োজন নেই। আবার ঐ রক্তের অভাবেই অন্য একজন লোক মারা যেতে পারে। তাই বাড়তি রক্তে দিয়ে অন্যের সেবা করা আমাদের কর্তব্য নয় বরং দায়িত্বও বটে। এটা মূলত একটি সমাজ সেবামূলক কাজ।

সাপ্তাহিক আজকাল
সাপ্তাহিক আজকাল
এই বিভাগের আরো খবর