ঢাকা, ২০২১-১২-০৯ | ২৪ অগ্রাহায়ণ,  ১৪২৮
সর্বশেষ: 
অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় হস্তক্ষেপ না করার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্র বিচার ১২৩ বছর আগে গ্রেপ্তার গাছ, শেকলে বন্দি আজো ফ্রান্স প্রেসিডেন্টকে চড় মারার মাশুল কতটা? কুরআনের আয়াত বাতিলে ‘ফালতু’ রিট করায় আবেদনকারীকে জরিমানা আদালতের দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নতুন রেকর্ড ওয়াক্ত ও তারাবি নামাজের জামাতে সর্বোচ্চ ২০ জন বিদেশে মারা গেছে ২৭০০ বাংলাদেশি আর্থিক ক্ষতি মেনেই সাঙ্গ হলো বইমেলা সুন্দরী মডেলের অপহরণ চক্র ! মোটরসাইকেল উৎপাদনে বিপ্লবে দেশ যুক্তরাজ্যে করোনার আরও মারাত্মক ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত ৮ থেকে ১২ সপ্তাহ বিরতিতে অক্সফোর্ডের টিকা বেশি কার্যকর সবাই সপরিবারে নির্ভয়ে করোনা ভ্যাকসিন নিন: প্রধানমন্ত্রী শেষ রাতে দু’রাকাত নামাজ জীবন পরিবর্তন করে দিতে পারে নতুন করোনাভাইরাস আতঙ্কে ইউরোপ-আমেরিকার শেয়ারবাজারে ধস জুনের মধ্যে আসছে আরও ৬ কোটি করোনার টিকা বাড়িভাড়ায় নাভিশ্বাস, ফের বাড়ানোর পাঁয়তারা অমিতাভের পর অভিষেকও করোনা আক্রান্ত বিশ্ব ধরেই নিচ্ছে বাংলাদেশ জালিয়াতির দেশ : শাহরিয়ার কবির ইরাকে মর্গের পাশে রাত কাটছে বাংলাদেশিদের! বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শক বাংলাদেশের সেঁজুতি সাহা সাহেদর টাকা থাকত নাসির, ইন্ডিয়ান বাবু ও স্ত্রী সাদিয়ার কাছে ‘বাংলাদেশিদের ভোট দিন’ মানবতার সেবায় কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ অনিশ্চিতায় ফেরদৌস খন্দকার কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা থামছেই না বিক্ষোভ অব্যাহত গভর্নরের সিদ্ধান্ত মানছে না মেয়র অভিবাসীরা জিতলেন হারলেন ট্রাম্প করোনার ধাক্কা - মে মাসে রপ্তানি কমেছে ২০ হাজার কোটি টাকার পুলিশ সংস্কার বিল উঠলো মার্কিন কংগ্রেসে লাইফ সাপোর্টে থাকা নাসিমের জন্য মেডিকেল বোর্ড পুনর্গঠন আইসিইউ নিয়ে হাহাকার ঈদের ছুটিতে অনিরাপদ হয়ে উঠছে গ্রামগুলো ঘরে ঘরে ভুতুড়ে বিল, বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে সমন্বয় হবে নিউইয়র্কে ‘ট্রাম্প ডেথ ক্লক’ নিউইয়র্কে জেবিবিএ’র পরিচালক ইকবালুর রশীদ লিটনের মৃত্যু নিজ আয়ে চলা শুরু করলো বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি কবে খুলবে নিউইয়র্ক নিউইয়র্কে এবার নতুন ভাইরাসে শিশুরা আক্রান্ত

একান্ত সাক্ষাৎকারে ফাতিমা বারইয়াব

সবার অধিকার নিশ্চিত করবো

প্রকাশিত: ০৪:২২, ৩০ অক্টোবর ২০২১  



 
আগামী ২ নভেম্বর নিউইয়ক সিটির সাধারণ নির্বাচন। কুইন্সের এল্মহার্স্ট, ইস্টএল্মহার্স্ট এবং জ্যাকসন হাইটস নিয়ে সিটি কাউন্সিল ডিস্ট্রিক্ট টুয়েন্টি ফাইভ থেকে লড়ছেন পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত ফাতিমা বারইয়াব। তাঁর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন নূপুর চৌধুরী
আগামী ২রা নভেম্বর নিউইয়ক সিটির সাধারণ নির্বাচন। মেয়র নির্বাচনের পাশাপাশি সিটি কম্পট্রোলার, ডিস্ট্রিক্ট এর্টনি, জাজ অব দ্য সিভিল কোর্ট ডিস্ট্রিক্ট, পাবলিক এডভোকেট, বরো প্রেসিডেন্ট, মেম্বার অব দ্য সিটি কাউন্সিল, জাজ অব দ্য সিভিল কোর্ট (কাউন্টি) প্রভৃতি পদেও অনুষ্ঠিত হবে ভোট। জুনের ২২ তারিখ প্রাইমারি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী বাছাইয়ের পর এই সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আগাম ভোট শুরু হয়েছে ২৩ অক্টোবর। চলবে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত।
২ নভেম্বর নির্বাচনে এই এলাকা থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ডেমোক্র্যাট প্রাইমারির টিকিট পাওয়া শেখর ক্রিশনান ও রিপাবলিকান পার্টির টিকিট পাওয়া শাহ শহীদুল হক। তাদের সাথে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির ডাইভারসিটি পার্টি লাইনে লড়াই করবেন ফাতিমা।
নূপুর চৌধুরী: সেন্ট জোন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে বায়োলজিতে পড়াশোনা করেছেন। কোন বিষয় বিবেচনায় নিয়ে আপনি রাজনীতিতে আসলেন?
ফাতিমা বারইয়াব: সত্যি বলতে, আমি কখনই রাজনীতিতে আসার কথা ভাবিনি। কিন্তু জ্যাকসন হাইটসে বাবার সাথে খুব অল্প বয়সে যখন রেস্টুরেন্টে কাজ শুরু করি তখন থেকে নতুন নতুন অভিজ্ঞতা জমা হতে থাকে। একটা সময় আমার মনে হয়েছে, আমাদের কমিউনিটি নিজেদেরকে সঠিকভাবে উপস্থাপন করতে পারছে না। আইন প্রণয়ন, স্থানীয় পর্যায়ে সরকার কিভাবে কাজ করে এসব বিষয়ে জানার ক্ষেত্রে আমাদের অনেক ঘাটতি রয়েছে। আমি যখন নিউইয়র্কে হাইস্কুলে পড়াশোনা শুরু করি, তখন থেকেই বুঝতে শুরু করি যে, রাজনৈতিক কাঠামোর মধ্যে প্রবেশ না করলে কোন সমস্যার সমাধান করা সম্ভব নয়। এই সব বিষয় চিন্তা করেই আমার রাজনীতিতে আসার আগ্রহ তৈরি হয়।
নূপুর চৌধুরী: নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটস, এলমহার্স্ট নিয়ে গঠিত ডিস্ট্রিক্ট টুয়েন্টি ফাইভ এমন একটি স্থান যেখানে বহু জাতিগোষ্ঠীর মানুষের বসবাস। বৈচিত্র্যময় এই জনগোষ্ঠীর জন্য কি ধরণের পরিকল্পনা সামনে এনে নির্বাচনের মাঠে নেমেছেন?
ফাতিমা বারইয়াব:  শুধু নিজের কমিউনিটির নয়, আমি প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতে চাই জ্যাকসন হাইটসের সব কমিউনিটির জন্য। এই শহরে ১৮০টিরও বেশি জাতিগোষ্ঠীর মানুষ বসবাস করে। অনেকে ভিন্ন সংস্কৃতি, আচার-আচরণে নিজেদের সেভাবে মেলে ধরতে পারে না। এটা খুবই হতাশার বিষয়। আমি  সবার জন্যই কাজ করতে চাই। মানুষ যে দেশেরই অভিবাসী হোক না কেন তার নিজস্ব মূল্যবোধ রয়েছে। আছে নিজেকে এগিয়ে নেয়ার প্রয়াস। আমি এমন একজন মানুষ হিসেবে নিজেকে পরিচিত করতে চাই যেন সবাই যার যার সমস্যাগুলো নির্দ্বিধায় আমাকে খুলে বলতে পারে। সে জন্যই আমি এবার সিটি কাউন্সিলের নির্বাচনে লড়ছি।
নূপুর চৌধুরী:  নিউইয়র্কে  অপরাধ প্রবণতা অনেক বেড়ে গেছে। এছাড়া কোভিড পরবর্তী আর্থিক সঙ্কটের বিষয়টি আছে। এক্ষেত্রে ডিস্ট্রিক্ট টুয়েন্টি ফাইভে প্রধান কি সমস্যা রয়েছে বলে আপনি মনে করেন এবং এগুলোর সমাধানে আপনি কি কি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন?
ফাতিমা বারইয়াব: আমি মনে করি সব কমিউনিটিতেই অনেক সমস্যা রয়েছে। তার মধ্যে সবেচেয়ে দৃশ্যমান এবং গুরুত্ব দেয়ার মতো সমস্যা বলবো নিম্নমানের জীবন-যাত্রা। করোনা মহামারির সময় তা অনেক বেশি ছিলো। বর্তমানে সংক্রমণ কমে আসায় তা কিছুটা কমেছে। এছাড়া, এলাকাগুলো পরিস্কার পরিচ্ছন্ন নয়। অর্থাভাবে নানা ধরনের অপরাধে জড়িয়ে পড়ার মতো ঘটনাও ঘটছে অনেক। এ  বিষয়গুলোর দিকেই নজর দিতে হবে বেশি। গুটি কয়েকজন অপরাধে জড়ানোর কারণে পুরো পুলিশ ডিপার্টমেন্টের কাছেই কমিউনিটির ভাতমূর্তি ক্ষুন্ন হয়। এসব কারণে আমাদের কমিউনিটিকে নিরাপদ এবং পরিচ্ছন্ন কমিউনিটি হিসেবে পরিচয় দিতে পারিনা। যদি সিটি হলে যেতে পারি তবে এসব চিহ্নিত সমস্যাগুলো সমাধানে কাজ করবো। ক্ষুদ্র সম্প্রদায়ের মানুষগুলো দিনরাত পরিশ্রমের পরও প্রাপ্য সম্মানটুকু পাচ্ছেন না শুধু কিছু সমস্যার কারণে। অনেক নারী এমনকি আমি নিজেও নিউইয়র্ক সিটির ম্যাস ট্রানজিট নিয়ে ভীত। কারণ এটা নিরাপদ নয় এখন। সব কিছু মিলিয়ে আমার প্রত্যাশা, কোভিড পরবর্তী সময়ে কমিউনিটির মানুষের আর্থিক অবস্থার উন্নতি করার এবং জীবন যাত্রার মান আরো বাড়ানোর দিকে নজর দেয়া। অপরাধ প্রবণতা কমিয়ে আনার চেষ্টা করা।
নূপুর চৌধুরী: নির্বাচনী এলাকাকে অপরাধ মুক্ত ও নিরাপদ রাখতে সুস্পষ্ট কি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন ভোটারদের?  
ফাতিমা বারইয়াব: এলাকাকে নিরাপদ রাখতে অবশ্যই আমার নিজস্ব কিছু পরিকল্পনা রয়েছে। প্রথমত আমি যে বিষয়টির ওপর নজর দিতে চাই, তা হলো গৃহহীন মানুষদের নিয়ে। তাদের সুপথে পরিচালিত করতে কমিউনিটির ভালো অবস্থানে থাকা ব্যক্তি এবং নিউইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টের সহযোগিতা প্রয়োজন। তাদের মধ্যকার সংযোগই বাস্তুচ্যুতদের সব ধরনের অপরাধ থেকে দূরে থাকতে সহায়তা করবে। এছাড়া এনওয়াইপিডি নানা ধরনের এনগেজমেন্ট প্রোগ্রাম করে থাকে। যেখান থেকে সুন্দর-সুকৃঙ্খল জীবনের দিক নির্দেশনা পায় সবাই।
দ্বিতীয়ত, ৯১১ এ কল করলে পুলিশ যেমন সবধরনের সহায়তা দিতে এগিয়ে আসে, সাথে এম্বুলেন্সও আসে, তেমনি মানসিক সংকটে যারা ভুগছেন তাদের বিশেষ সহয়তা দিতে সমাজকর্মীরা আসবেন এমন একটি সার্ভিস চালু করা যায় কিনা চেষ্টা করে দেখবো। কারণ, মানসিক অশান্তি আর চাপের কারণে অনেকে বিপজ্জনক কিছু করে ফেলতে পারেন। তাদের সহায়তা দিতে কাজ করবে এই সার্ভিস। যদিও ৯১১ সার্ভিসটি অনেক বৃহৎ পরিসরে রয়েছে। আমরা সীমিত পরিসরেই এটা শুরু করতে পারি।
নূপুর চৌধুরী: ‘আজকাল’ এবং ‘আইবি টিভি’ বাংলা ভাষাভাষিদের গণমাধ্যম। তাই আরেকটি প্রশ্ন করতেই হয়। বাংলাদেশি কমিউনিটির মানুষের জন্য আপনার কোন আলদা পরিকল্পনা আছে কি?
ফাতিমা বারইয়াব: আমি বাংলাদেশি কমিউনিটিতে গিয়ে তাদের সমস্যার কথা শুনেছি। আমার কাছে মনে হয়েছে তাদের আর্থিক সহায়তার প্রয়োজন, ব্যবসা দাঁড় করানোর জন্য পুঁজির প্রয়োজন। সংখ্যালঘু হওয়ায় আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়াটা জরুরি বলে আমি মনে করি। এছাড়া চাকুরীর সুযোগ তৈরি করে দেয়ার বিষয়টাও গুরুত্বপূর্ণ। সিটির বিভিন্ন চাকুরীতে কিভাবে বাংলাদেশিদের নিয়োগ দেয়া যায় সে বিষয়টি নিশ্চয়ই গুরুত্ব পাবে আমার কাছে। এছাড়া কমিউনিটির মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য স্পেশালাইড স্কুল এবং উচ্চতর শিক্ষার সুযোগ তৈরি করতে কাজ করব আমি।  
নূপুর চৌধুরী:  আগামী দোসরা নভেম্বরের নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে আপনি কতটুকু আাশাবাদী?
ফাতিমা বারইয়াব: অবশ্যই জয়ের ব্যাপাওে আমি আত্মবিশ্বাসী। আমি মনে করি নিজের কমিউনিটির বাইরেও বাংলাদেশি কমিউনিটিসহ অন্যান্য কমিউনিটির মানুষ আমাকে ভোট দেবেন। এ ব্যাপারে আমি আত্মবিশ্বাসী।
নূপুর চৌধুরী: কিন্তু ২২ জুন ডেমোক্র্যাটিক প্রাইমারি নির্বাচনে দলীয় টিকিট পেতে ব্যর্থ হয়েছেন। এক্ষেত্রে ২রা নভেম্বরের নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে কিভাবে আত্মবিশ্বাসী হচ্ছেন?
ফাতিমা বারইয়াব: আমি মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়েছি। বিভিন্ন কমিউনিটিতে গিয়ে তাদের সমস্যাগুলো শুনেছি। তারপরও বলবো এক্ষেত্রে সবার সহযোগিতা খুব প্রয়োজন। আমার কাছে ক্যাম্পেইন মানে শুধু মানুষের সাথে দেখা করা ছিলোনা। আশা করছি মানুষ একজন সৎ, যোগ্য লোককেই পছন্দ করবে। তাছাড়া প্রচারণায় নেমে আমি কখনো মানুষকে মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে প্রতারিত করতে চাইনা।  আমি যা করতে পারবো, যতটুকু করার সামর্থ্য রাখব একজন সিটি কাউন্সিল মেম্বার হিসাবে, আমি সে অনুযায়ী বাস্তবসম্মত প্রতিশ্রুতিই দিচ্ছি। তাই আশা করছি আমার এই সততার কারণে ২রা নভেম্বরের নির্বাচনে আমাকে সবাই ভোট দেবেন। আর সবশেষে বাংলাদেশি ভোটারদের কাছে আমার আবেদন, সৎ এবং যোগ্য একজন প্রার্থী হিসেবে ২রা নভেম্বর আমাকে আপনারা জয়ী করবেন।  

 

Space For Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement
সাক্ষাৎকার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
সর্বশেষ
জনপ্রিয়