ঢাকা, ২০২২-০৬-৩০ | ১৬ আষাঢ়,  ১৪২৯
সর্বশেষ: 
উবার ও লিফট ড্রাইভারদের বেতন বৃদ্ধি নিরাপত্তা নিয়ে শংকিত আমেরিকা -চিকেন ফার্মে বার্ড ফ্লু আতঙ্ক মেডিকেইড হারাচ্ছেন লাখো আমেরিকান পাল্টে যাচ্ছে রাজনীতির হিসাব-নিকাশ! অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় হস্তক্ষেপ না করার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্র বিচার ১২৩ বছর আগে গ্রেপ্তার গাছ, শেকলে বন্দি আজো ফ্রান্স প্রেসিডেন্টকে চড় মারার মাশুল কতটা? কুরআনের আয়াত বাতিলে ‘ফালতু’ রিট করায় আবেদনকারীকে জরিমানা আদালতের দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নতুন রেকর্ড ওয়াক্ত ও তারাবি নামাজের জামাতে সর্বোচ্চ ২০ জন বিদেশে মারা গেছে ২৭০০ বাংলাদেশি আর্থিক ক্ষতি মেনেই সাঙ্গ হলো বইমেলা সুন্দরী মডেলের অপহরণ চক্র ! মোটরসাইকেল উৎপাদনে বিপ্লবে দেশ যুক্তরাজ্যে করোনার আরও মারাত্মক ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত ৮ থেকে ১২ সপ্তাহ বিরতিতে অক্সফোর্ডের টিকা বেশি কার্যকর সবাই সপরিবারে নির্ভয়ে করোনা ভ্যাকসিন নিন: প্রধানমন্ত্রী শেষ রাতে দু’রাকাত নামাজ জীবন পরিবর্তন করে দিতে পারে নতুন করোনাভাইরাস আতঙ্কে ইউরোপ-আমেরিকার শেয়ারবাজারে ধস জুনের মধ্যে আসছে আরও ৬ কোটি করোনার টিকা বাড়িভাড়ায় নাভিশ্বাস, ফের বাড়ানোর পাঁয়তারা অমিতাভের পর অভিষেকও করোনা আক্রান্ত বিশ্ব ধরেই নিচ্ছে বাংলাদেশ জালিয়াতির দেশ : শাহরিয়ার কবির ইরাকে মর্গের পাশে রাত কাটছে বাংলাদেশিদের! বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শক বাংলাদেশের সেঁজুতি সাহা সাহেদর টাকা থাকত নাসির, ইন্ডিয়ান বাবু ও স্ত্রী সাদিয়ার কাছে ‘বাংলাদেশিদের ভোট দিন’ মানবতার সেবায় কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ অনিশ্চিতায় ফেরদৌস খন্দকার কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা থামছেই না বিক্ষোভ অব্যাহত গভর্নরের সিদ্ধান্ত মানছে না মেয়র অভিবাসীরা জিতলেন হারলেন ট্রাম্প করোনার ধাক্কা - মে মাসে রপ্তানি কমেছে ২০ হাজার কোটি টাকার পুলিশ সংস্কার বিল উঠলো মার্কিন কংগ্রেসে লাইফ সাপোর্টে থাকা নাসিমের জন্য মেডিকেল বোর্ড পুনর্গঠন আইসিইউ নিয়ে হাহাকার ঈদের ছুটিতে অনিরাপদ হয়ে উঠছে গ্রামগুলো ঘরে ঘরে ভুতুড়ে বিল, বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে সমন্বয় হবে নিউইয়র্কে ‘ট্রাম্প ডেথ ক্লক’ নিউইয়র্কে জেবিবিএ’র পরিচালক ইকবালুর রশীদ লিটনের মৃত্যু নিজ আয়ে চলা শুরু করলো বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি কবে খুলবে নিউইয়র্ক নিউইয়র্কে এবার নতুন ভাইরাসে শিশুরা আক্রান্ত

পশ্চিমা যুদ্ধবিমানে যেসব চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি ইউক্রেন

প্রকাশিত: ০২:১৫, ২০ জুন ২০২২  

পশ্চিমা উন্নত অস্ত্র নিয়ে সশস্ত্র বাহিনীকে আধুনিকীকরণের ইচ্ছার বিষয়টি নিয়ে কখনোই রাখঢাক রাখেনি ইউক্রেন। বারবারই জানিয়েছে তারা পশ্চিমা অস্ত্র নিয়ে নিজের পুরোনো ভাণ্ডারকে আরও সমৃদ্ধ করতে চায়।

মিগ-২৯, সু-২৭ এবং সু-২৫-এর মতো সোভিয়েত যুগের বিমানের বদলে আধুনিক পশ্চিমা যুদ্ধ বিমানও নিজেদের সামরিক বাহিনীতে যোগ করতে চায় কিয়েভ।

যদিও ইউক্রেনের পাইলটরা রুশ বিমানবাহিনীর বিরুদ্ধে উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছে। তবে পশ্চিমা বিমানে তারা আরও সক্ষমতা অর্জন করবে।

ইউক্রেনের  যুদ্ধবিমান মিগ-২৯ (ফুলক্রাম) পুরানো হয়ে যাচ্ছে। এর যন্ত্রাংশ দুষ্প্রাপ্য এবং এফ-১৬ (ভাইপার) এর সঙ্গে তাল মেলাতে পারে না এই যুদ্ধ বিমান।

ফুলক্রামে 'ফায়ার-এন্ড-ফোরগেট' সক্রিয়-রাডার হোমিং ক্ষেপণাস্ত্রের অভাব রয়েছে। অন্যদিকে রাশিয়ান এসইউ৩৫এস 'বিয়ন্ড ভিজ্যুয়াল রেঞ্জ' লড়াইয়ের জন্য আর্দশ।

সেই তুলনায়, এফ-১৬এস বিভিআরে ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা ও আরও কার্যকর রাডার রয়েছে। আকাশ থেকে স্থল আক্রমণেও তারা সমানভাবে সক্ষম।

এখন প্রশ্ন উঠতে পারে প্রশ্ন উঠতে পারে পশ্চিমারা ইউক্রেনকে সাহায্য করছেই, তাহলে সমস্যা কোথায়? সমস্যাটা আসলে সময়ের।

এসব বিমান চালানোর ব্যাপারে একজন মার্কিন পাইলটকে প্রশিক্ষণ দিতে প্রায় চার থেকে ছয় মাস সময় লাগে।

ইউক্রেনীয় পাইলটদের যেকোনো প্রশিক্ষণ দেশের বাইরে নিতে হবে। যুদ্ধরত অবস্থায় দেশের বাইরে যাওয়া মানে দক্ষ জনবলকে যুদ্ধের ময়দান থেকে সরিয়ে দেওয়া।

তারপর আসে এসব আধুনিক বিমান সরবরাহের প্রশ্ন। কোনো ন্যাটো দেশ যুদ্ধবিমান পাঠাতে পারে।  কিন্তু তারপরে সেই বিমানগুলোকে ঠিকমতো কাজে লাগানোও জরুরি। এটা প্রাথমিক প্রতিরক্ষা নীতির মধ্যেই পড়ে।

এতে সন্দেহ নেই যে ইউক্রেন– স্থল এবং আকাশ উভয় ক্ষেত্রেই পশ্চিমা সরবরাহ করা অস্ত্র কাজে লাগাতে পারবে।  তবে এর জন্য সময়, পরিকল্পনা এবং সংস্থানও জরুরি।  সূত্র: বিবিসি

Space For Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement
সর্বশেষ
জনপ্রিয়