ঢাকা, ২০২০-১১-২৮ | ১৪ অগ্রাহায়ণ,  ১৪২৭
সর্বশেষ: 
অমিতাভের পর অভিষেকও করোনা আক্রান্ত বিশ্ব ধরেই নিচ্ছে বাংলাদেশ জালিয়াতির দেশ : শাহরিয়ার কবির ইরাকে মর্গের পাশে রাত কাটছে বাংলাদেশিদের! বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শক বাংলাদেশের সেঁজুতি সাহা সাহেদর টাকা থাকত নাসির, ইন্ডিয়ান বাবু ও স্ত্রী সাদিয়ার কাছে ‘বাংলাদেশিদের ভোট দিন’ মানবতার সেবায় কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ অনিশ্চিতায় ফেরদৌস খন্দকার কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা থামছেই না বিক্ষোভ অব্যাহত গভর্নরের সিদ্ধান্ত মানছে না মেয়র অভিবাসীরা জিতলেন হারলেন ট্রাম্প করোনার ধাক্কা - মে মাসে রপ্তানি কমেছে ২০ হাজার কোটি টাকার পুলিশ সংস্কার বিল উঠলো মার্কিন কংগ্রেসে লাইফ সাপোর্টে থাকা নাসিমের জন্য মেডিকেল বোর্ড পুনর্গঠন আইসিইউ নিয়ে হাহাকার ঈদের ছুটিতে অনিরাপদ হয়ে উঠছে গ্রামগুলো ঘরে ঘরে ভুতুড়ে বিল, বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে সমন্বয় হবে নিউইয়র্কে ‘ট্রাম্প ডেথ ক্লক’ নিউইয়র্কে জেবিবিএ’র পরিচালক ইকবালুর রশীদ লিটনের মৃত্যু নিজ আয়ে চলা শুরু করলো বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি কবে খুলবে নিউইয়র্ক নিউইয়র্কে এবার নতুন ভাইরাসে শিশুরা আক্রান্ত

নিউইয়র্কে ভোজন বিলাসীদের নতুন ঠিকানা ‘জম জম গ্রীল’

প্রকাশিত: ০২:৫৯, ১৪ নভেম্বর ২০২০  


   
 
আজকাল রিপোর্ট
জ্যাকসন হাইটসে হালাল ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবার নিয়ে এলো জম জম গ্রীল। কুইন্সের প্রাণকেন্দ্র জ্যাকসন হাইটসের ৩৭ এভিনিউ এর ওপর ও ৭৩ স্ট্রিটের সন্নিকটে ২৭ অক্টোবর চালু হলো এ রেস্টুরেন্টটি। ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের দাবি, জম জম গ্রীল হবে আগামীতে বাংলাদেশি বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের কাছে নতুন ঠিকানা। কারণ তারা কম মূল্যে ফ্রেশ, হালাল ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবার এখানে পাবেন।
রেস্টুরেন্টের অন্যতম একজন স্বত্ত্বাধিকারী জহিরুল হক আজকালকে বলেন, জ্যাকসন হাইটস এলাকায় আমরাই একমাত্র শতভাগ গ্রীল আইটেম কাস্টমারদের সরবরাহ করছি। প্রি-কুক আইটেম আমাদের নেই। ম্যানহাটানে এ ধরনের একটি ডিশ ২৫-৩০ ডলারে বিক্রি করে। আমরা এখানে ১৫-১৭ ডলারে দিচ্ছি। আমাদের এ প্রতিষ্ঠানে ৬ জন পার্টনার রয়েছেন। আমরা প্রত্যেকেই এখানে বিনা পারিশ্রমিকে শ্রম দিচ্ছি। যার কারণে কম দামে উন্নতমানের খাবার কমিউনিটির ভাইবোনদের দিতে পারছি। যারা একবার এখানে  এসেছেন, তারা বার বার আসছেন। আমাদের প্রত্যেকেই জীবন পরিচালনার জন্য অন্য কাজ করি। সাইড বিজনেস রয়েছে। রেস্টুরেন্ট থেকে কোনো বেতন নেই না। অবসর সময়ে কমিউনিটিকে সার্ভিস দেওয়ার লক্ষ্যেই এ রেস্টুরেন্ট প্রতিষ্ঠা করেছি। জম জমের পার্টনার হিসেবে রয়েছেন জহিরুল হক, মো. ইউসুফ, মো. আনোয়ার, মো. সোহেল, গোলাম মোর্শেদ ও মো. তোফায়েল আহমেদ।
জম জম গ্রীলের ৬ জন মালিকের মধ্যে ৩ জনেরই নিউইয়র্ক সিটির ৫ স্টার হোটেলে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে। রয়েছে ফুড সেফটি ট্রেইনিং। সেখানে সেফ হিসেবে কাজ করছেন আশিকুর রহমান ৩০ বছরের অভিজ্ঞতা নিয়ে। তিনি আগে বাংলাদেশে পূর্বানী হোটেলের শেফ ছিলেন। মধ্যপ্রাচ্যেও শেফ হিসেবে কাজ করেছেন ৩০ বছর।
গ্রীলের অন্যতম পার্টনার মো. সোহেল আজকালকে বলেন, আমরা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ইয়ং জেনারেশনকে আকৃষ্ট করতে ‘হালাল টাকোস’ ও ‘হালাল ফিলি চিজ স্টিক’ খাবারের মেন্যুতে রেখেছি। এ ধরনের খাবারের জন্য এখন আর আমাদের ছেলেমেয়েদের আমেরিকান রেস্টুরেন্টে যেতে হবে না। জনাব সোহেল আরও বলেন, জম জম নামের সাথে একটা ন্যাচারাল গ্ল্যামার রয়েছে। এ থিমটাকে মাথায় রেখে রেস্টুরেন্টের নামকরণ করা হয়েছে।
জম জম গ্রীলের জনপ্রিয় মেন্যুতে রয়েছে ফিলি চিজস্টিক সমোসা, জম জম স্পেশাল টাকোস, ফালাফেল, অল এবাউট হিউমাস পিঠা, মেডিটারিনিয়েন কুইনোয়া সালাদ ও বিফ মেজবানি। এছাড়াও রয়েছে শেফ স্পেশাল বিভিন্ন রকমের বিরিয়ানি ও জম জম স্পেশাল কারি।
আজকালের সাথে আলাপকালে জহিরুল হক বলেন, প্রতিষ্ঠানটি শুরুর প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে কমিউিনিটিকে সার্ভ করা। যার জন্যই ওয়ার্কিং পাটনাররা কোন বেতন নেব না। অন্তত এক বছর এ ব্যাপারে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সাফল্যে পৌছলেও খাবারের দাম না বাড়ানোর চিন্তা রয়েছে আমাদের। ব্যবসার প্রসার ঘটলে ব্রুকলিন, ব্রঙ্কস ও স্ট্যাটেন আইল্যান্ডে আমাদের শাখার বিস্তার ঘটবে বলে আশা রাখি।

 

নিউইয়র্ক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
সর্বশেষ
জনপ্রিয়