ঢাকা, ২০২১-০৮-০৬ | ২১ শ্রাবণ,  ১৪২৮
সর্বশেষ: 
অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় হস্তক্ষেপ না করার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্র বিচার ১২৩ বছর আগে গ্রেপ্তার গাছ, শেকলে বন্দি আজো ফ্রান্স প্রেসিডেন্টকে চড় মারার মাশুল কতটা? কুরআনের আয়াত বাতিলে ‘ফালতু’ রিট করায় আবেদনকারীকে জরিমানা আদালতের দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নতুন রেকর্ড ওয়াক্ত ও তারাবি নামাজের জামাতে সর্বোচ্চ ২০ জন বিদেশে মারা গেছে ২৭০০ বাংলাদেশি আর্থিক ক্ষতি মেনেই সাঙ্গ হলো বইমেলা সুন্দরী মডেলের অপহরণ চক্র ! মোটরসাইকেল উৎপাদনে বিপ্লবে দেশ যুক্তরাজ্যে করোনার আরও মারাত্মক ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত ৮ থেকে ১২ সপ্তাহ বিরতিতে অক্সফোর্ডের টিকা বেশি কার্যকর সবাই সপরিবারে নির্ভয়ে করোনা ভ্যাকসিন নিন: প্রধানমন্ত্রী শেষ রাতে দু’রাকাত নামাজ জীবন পরিবর্তন করে দিতে পারে নতুন করোনাভাইরাস আতঙ্কে ইউরোপ-আমেরিকার শেয়ারবাজারে ধস জুনের মধ্যে আসছে আরও ৬ কোটি করোনার টিকা বাড়িভাড়ায় নাভিশ্বাস, ফের বাড়ানোর পাঁয়তারা অমিতাভের পর অভিষেকও করোনা আক্রান্ত বিশ্ব ধরেই নিচ্ছে বাংলাদেশ জালিয়াতির দেশ : শাহরিয়ার কবির ইরাকে মর্গের পাশে রাত কাটছে বাংলাদেশিদের! বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শক বাংলাদেশের সেঁজুতি সাহা সাহেদর টাকা থাকত নাসির, ইন্ডিয়ান বাবু ও স্ত্রী সাদিয়ার কাছে ‘বাংলাদেশিদের ভোট দিন’ মানবতার সেবায় কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ অনিশ্চিতায় ফেরদৌস খন্দকার কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা থামছেই না বিক্ষোভ অব্যাহত গভর্নরের সিদ্ধান্ত মানছে না মেয়র অভিবাসীরা জিতলেন হারলেন ট্রাম্প করোনার ধাক্কা - মে মাসে রপ্তানি কমেছে ২০ হাজার কোটি টাকার পুলিশ সংস্কার বিল উঠলো মার্কিন কংগ্রেসে লাইফ সাপোর্টে থাকা নাসিমের জন্য মেডিকেল বোর্ড পুনর্গঠন আইসিইউ নিয়ে হাহাকার ঈদের ছুটিতে অনিরাপদ হয়ে উঠছে গ্রামগুলো ঘরে ঘরে ভুতুড়ে বিল, বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে সমন্বয় হবে নিউইয়র্কে ‘ট্রাম্প ডেথ ক্লক’ নিউইয়র্কে জেবিবিএ’র পরিচালক ইকবালুর রশীদ লিটনের মৃত্যু নিজ আয়ে চলা শুরু করলো বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি কবে খুলবে নিউইয়র্ক নিউইয়র্কে এবার নতুন ভাইরাসে শিশুরা আক্রান্ত

করোনা: মফস্বলের রোগীতে ঠাসা রাজধানীর হাসপাতালগুলো

প্রকাশিত: ০৬:২৩, ১৮ জুলাই ২০২১  

রাজধানীর সরকারি-বেসরকারি সব হাপসাতাল রোগীতে ঠাসা। আইসিইউ ও সাধারণ শয্যা খালি নেই। রাজধানীর হাসপাতালে ভর্তি ৭০ ভাগ রোগী মফস্বলের। বিভিন্ন জেলা-উপজেলা হাসপাতালে চিকিত্সা সেবা না পেয়ে রোগীরা রাজধানীতে এসেছেন। অধিকাংশ উপজেলা হাসপাতালে রোগী শূণ্য। এদিকে রাজধানীতে বাইরের রোগীদের চাপ যেমন বাড়ছে, তেমনি আবার রাজধানীতে সংক্রমণও বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২০৪ জন। সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ঢাকা বিভাগে। এ বিভাগে একদিনে মারা গেছেন ৮২ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাতে শনাক্ত হয়েছেন ৮ হাজার ৪৮৯ জন। এরমধ্যে কেবল ঢাকা বিভাগেই ৪ হাজার ৪৮০ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে, যা দিনের মোট শনাক্তের ৫০ শতাংশের বেশি। এ কারণে রাজধানীর সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে করোনা রোগীদের সিট পাওয়া যেন সোনার হরিণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। লাশের সংখ্যা বাড়ছে রোজ। হাসপাতালে আর খালি শয্যা নেই, আইসিইউ নেই, সিসিইউ নেই, ফ্লোরে ফাঁকা জায়গা নেই, জায়গা নেই করিডোরে, সিঁড়ির মুখে। একটি বেডের জন্য আরেকটি লাশ বেরোনোর প্রতীক্ষা। গ্রাম থেকে ঢাকায় এসে বেড না পেয়ে অনেক রোগী আবার গ্রামে ফিরে যাচ্ছে। তাদের ভাগ্যে কী হবে কে জানে?

সম্প্রতি প্রতিনিধিরা দেশের অর্ধশতাধিক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখতে পেয়েছেন, জনবল সংকটে সেখান থেকে চিকিত্সা সেবা পাচ্ছেন না রোগীরা। জনবলের অভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষাও বন্ধ। এ কারণে রোগীরা ঢাকায় চলে আসছে। বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকরা বলেন, করোনায় মৃত্যু মাত্র ১ ভাগ। আক্রান্তদের মধ্যে ১০ ভাগের হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন পড়ে। বাকি ৯০ ভাগের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কিংবা বাসায় আইসোলেশনে রেখে সুস্থ করা যায়। কিন্তু জনবল সংকটে উপজেলা হাপসাতালে রোগীরা সেবা পাচ্ছেন না। দেশে প্রায় ৪০ হাজার বেকার ডাক্তার এবং সমসংখ্যক বেকার নার্স রয়েছেন। তাদের নিয়োগ দেওয়া প্রয়োজন। সরকার জনবল সংকট নিরসন করতে নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। তবে তা চাহিদার তুলনায় কম। চাহিদা অনুযায়ী জনবল নিয়োগ দিতে হবে। সংক্রমণ বৃদ্ধির ধারা অব্যাহত থাকলে সামনে অক্সিজেনের তীব্র সংকট দেখা দিতে পারে।

শহীদ সোরাওয়ার্দী হাপসাতালের পরিচালক ডা. খলিলুর রহমান বলেন, এই হাসপাতালে রোগীর চাপ প্রচন্ড। আগত রোগীদের মধ্যে ৭০ থেকে ৮০ ভাগ ঢাকার বাইরের রোগী। এই রোগীর চাপে পুরো হাসপাতালকে কোভিড হাসপাতাল করার প্রস্তুতি চলছে। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাপসাতালেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিদিন রোগী আসছে। করোনা রোগী সামাল দিতে গিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দিশেহারা। ডিএনসিসি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালেও করোনা রোগীর প্রচন্ড চাপ। এই হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নাছির উদ্দিন আহমেদ বলেন, করোনা রোগীদের জন্য ৫০০ শয্যা আছে। রোগী ভর্তি আছে সাড়ে ৫০০। গড়ে প্রতিদিন ৭০ থেকে ৮০ জন রোগীকে ভর্তি করা হয়। এর ৮০ ভাগ রোগীই ঢাকার বাইরের। করোনা রোগীর চাপ সামাল দিতে গিয়ে রীতিমতো হিমশিম খেতে হচ্ছে মুগদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ এবং কোভিড গাইডলাইন ও হাসপাতাল ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. একে আজাদ বলেন, করোনায় আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে মাত্র ১০ ভাগের হাসপাতালে যেতে হয়। ৯০ ভাগ রোগীকে উপজেলার মতো হাসপাতাল কিংবা বাসায় আইসোলেশনে রেখে সুস্থ করা যায়। তিনি বলেন, কোরবানির ঈদ সামনে রেখে এখন মানুষ ঢাকা থেকে গ্রামে যাচ্ছে। সামনে ঘরে ঘরে মানুষ সংক্রমিত হবে। কিভাবে সেটা সামাল দেওয়া হবে আল্লাহ জানে। ঢাকার হাসপাতালে এখনই বেড খালি নেই। উপজেলার হাসপাতালে তীব্র জনবল সংকট। চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী সংকট সবচেয়ে বেশি। ঠিকাদারের মাধ্যমে আউটসোর্সিংয়ে তাদের নিয়োগ দেওয়া হয়। তবে ঠিকমতো বেতন দেওয়া হয় না। অনেকে ১৭ মাস ধরে বেতন পান না। গ্রামাঞ্চলের হাসপাতালে জনবল ৮০ ভাগই শূণ্য। এই প্রেক্ষিতে উপজেলা পর্যায়ে ফিল্ড হাসপাতাল চালু করার পরামর্শ দেন তিনি।

বাংলাদেশ সোসাইটি অব এনেসথেসিওলজিস্টের সভাপতি অধ্যাপক ডা. দেবব্রত বণিক বলেন, বর্তমানে হাসপাতালে আইসিইউ বেড খালি নেই। দৈনিক ১২০০ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। কিন্তু করোনা রোগীদের জন্য রাজধানীসহ সারাদেশে আইসিইউ বেড আছে প্রায় ৭০০। তিনি বলেন, করোনায় আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে মাত্র ৫ থেকে ১০ ভাগের হাসপাতালে আসার প্রয়োজন হয়। উপজেলা হাসপাতালে জনবলসহ পূর্ণাঙ্গ ব্যবস্থা থাকলে গ্রামের রোগীদের ঢাকায় আসার প্রয়োজন হতো না। উপজেলায় বেড ফাঁকা। অথচ ঢাকায় শয্যা খালি নেই। কোন কোন হাসপাতালে ফ্লোরে রেখে রোগীর সেবা দেওয়া হচ্ছে। অনেকে ভ্যাকসিন নিয়েও আক্রান্ত হচ্ছে। তাই মাস্ক পরতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার উপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার ওনার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. মনিরুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, করোনা রোগী বাড়ছে। রাজধানীতে একই সঙ্গে ডেঙ্গু রোগীও বাড়ছে। করোনা নিয়ন্ত্রণ করতে হলে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে, মাস্ক পরতে হবে। রাজধানীর হাসপাতালে বাইরের রোগীদের চাপ প্রতিদিনই বাড়ছে।

প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজ হাপসাতাল ওনার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ড. আনোয়ার খান বলেন, বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে করোনা রোগীর চাপে আমরা দিশেহারা। সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল সমানতালে করোনা রোগীদের চিকিত্সা সেবা দিয়ে যাচ্ছে। ডাক্তার, নার্সসহ স্বাস্থ্য সেবা কর্মীরা আক্রান্ত হচ্ছে, মারাও যাচ্ছে। কিন্তু চিকিত্সা সেবা থেমে নেই। বর্তমানে ভর্তি রোগীদের বেশিরভাগ ঢাকার বাইরের রোগী। করোনা রোগীদের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার রেটও কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে মানবতার সেবা দিয়ে যাচ্ছি। এক্ষেত্রে আমরা কোন লাভের হিসাব দেখি না। তবে সরকারিভাবে আমাদের সহযোগিতা করা হচ্ছে না। সূত্র: ইত্তেফাক

Space For Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement Advertisement
সর্বশেষ
জনপ্রিয়