মঙ্গলবার , ১৬ জানুয়ারী ২0১৮, Current Time : 11:00 pm
  • হোম »এই সপ্তাহের খবর» ‘শীত মওসুমে নির্মাণ ব্যবসা হ্রাস পায় ৭০ থেকে ৭৫ ভাগ ’
    ব্রুকলিনে বাংলাদেশিদের এখন অলস সময়




‘শীত মওসুমে নির্মাণ ব্যবসা হ্রাস পায় ৭০ থেকে ৭৫ ভাগ ’
ব্রুকলিনে বাংলাদেশিদের এখন অলস সময়

সাপ্তাহিক আজকাল : 05/01/2018

 

আজকাল রিপোর্ট: নিউইয়র্কের ব্রুকলিনের বাংলাদেশিরা অলস সময় কাটাচ্ছেন। শীতের কারণে নির্মাণ কাজ বন্ধ থাকায় বাংলাদেশিদের মাছে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এ ফাঁকে ব্রুকলিন থেকে অন্তত কয়েক হাজার বাংলাদেশি দেশে যাচ্ছেন। যারা দেশে যাচ্ছেন না তাদের অনেকেই পরিবার পরিজন নিয়ে ঘুরতে যাচ্ছেন বিভিন্ন রাজ্যে। দেশে না যাওয়া বাংলাদেশিদের একটি বড় অংশ সন্ধ্যা হলেই চার্চ ম্যাকডোনাল্ডে আড্ডা দিচ্ছেন। নিজেদের মধ্যে সুখ-দু:খ, প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করছেন। এদিকে নির্মাণ শ্রমিকদের একটি বড় অংশ দেশে যাওয়ার কারণে গ্রামের অর্থনীতিও সচল হচ্ছে। ব্যবসা বেড়েছে ট্রাভেল এজেন্সির।
ব্রুকলিন, কুইন্স ও ব্রঙ্কস বরোতে বসবাসকারী ২০ থেকে ২৫ হাজার বাংলাদেশি রয়েছেন, যাঁরা নির্মাণ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। বিশিষ্ট নির্মাণ ব্যবসায়ী সামসুদ্দীন আজাদ বলেন, নিউইয়র্কে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে অন্তত ২০ হাজার লোক এই ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। এর মধ্যে ৬০ ভাগ ব্যবসায়ী হচ্ছেন ব্রুকলিনের চার্চ-ম্যাকডোনাল্ড অ্যাভিনিউ এলাকার বাসিন্দা। শীত এলে নির্মাণ ব্যবসার কাজ ৭০ থেকে ৭৫ ভাগ কমে যায়। তবে বাসাবাড়ি, ভবনগুলোর ভেতরে কাজ থাকে ৩০ ভাগের মতো। এছাড়া শীতের সময় কাজ করাও কষ্টসাধ্য হয়ে ওঠে। এ সময়কে কাজে লাগিয়ে অনেকে দেশে বেড়াতে যান। আমিও এখন বাংলাদেশে অবস্থান করছি।
স্থানীয় অভিবাসী বাংলাদেশিরা বলেন, নির্মাণ ব্যবসাটি স্বাধীন, রোজ-রোজগারও ভালো। আর জীবন ধারণের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বিধায় কন্সট্রাকশন ব্যবসায় অনেকেরই পছন্দ। তাছাড়া এই ব্যবসার সাথে জড়িতদের কর্মকান্ড মূলধারায় প্রশংসিত হওয়ায় নতুন নতুন অনেকেই কন্সট্রাকশন ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ছেন। কিন্তু শীত এলে দৃশ্যপট পাল্টে যায়।
দীর্ঘ দিন ধরে কন্সট্রাকশন ব্যবসায় নিয়োজিত ব্রুকলীনের আবদুল আজিজ বলেন, গ্রীষ্মকালীন ব্যবসা হচ্ছে কন্সট্রাকশন ব্যবসা। সেই মনমানসিকতা নিয়েই আমরা বছরের পর বছর ধরে এই ব্যবসা করে আসছি। মোটামুটি পুঁজি, দায়িত্ব পালনে নিষ্ঠা আর মান সম্মত কাজ করতে পারলে এই ব্যবসায় লাভবান হওয়া যায়। তাছাড়া আমেরিকান মূলধারায় বাংলাদেশিদের কর্মকান্ড, সততা, নিষ্ঠা অনেকেরই মন কেড়ে নেয়ায় এই ব্যবসায় বিশ্বস্থতাও বেড়েছে। আমাদের অনেকে বাংলাশি ব্যবসায়ী আছেন যারা সিটি প্রশাসনের অনেক কাজ বিশেষ করে স্কুল, রাস্তা-ঘাট, ভবন নির্মাণ কাজও করছেন। প্রতিষ্ঠা পেয়েছেন মূলধারার ব্যবসায়ী হিসেবে।
তিনি বলেন, শীত মৌসুমে কন্সট্রাকশন কাজের পরিমাণ কমে যাওয়ায় অনেকেই ছুটি কাটাতে দেশে যাচ্ছেন। আর যারা দেশে না যান তারা ইন্টারিয়র (অভ্যন্তরীন) কাজ করে থাকেন। তবে এই কাজের পরিমাণ বেশী নয়। মূলত: গ্রীষ্মকালীন সময়েই কন্সট্রাকশন কাজ-কর্ম হয়ে থাকে এবং তখন খুব ব্যস্ত সময় কাটাতে হয়। আবার অনেকে এই সময়ে অন্য কাজও করে থাকেন। তার ধারনায় নিউইয়র্কে ১৫/২০ হাজার বাংলাদেশি-আমেরিকান রয়েছেন যারা কন্সট্রাকশন ব্যবসায় জড়িত এবং তারা সফলতার সাথেই ব্যবসা করছেন।
চার্চ ম্যাকডোনাল্ডের বাংলাদেশি আতিক আহমদ বলেন, শীত আসলেই নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়ে যায়। এ জন্য আমাদের প্রস্তুতিও থাকে। শীতের কয়েক মাস বেকারত্বের মতোই কাটাতে হয়। সন্ধ্যার দিকে রেস্তোঁরাগুলোতে আড্ডা দিয়ে সময় পার করি।
তিনি বলেন, নির্মাণ কাজ সন্ধ্যার দিকে শেষ হয়ে যায়। তখনই বিকেলে রেস্তোঁরাগুলোতে আড্ডা হয়। কিন্তু সেই আড্ডা এবং এই আড্ডার মধ্যে পার্থক্য। তখন রাত ৮/৯ টা হলে বাড়ী ফেরার তাড়া থাকে, কারণ ভোরে ওঠে কাজে যেতে হবে। এখন সেই চিন্তা নেই তাই মধ্যরাত পর্যন্ত জম্মেশ আড্ডা বলে জানান আতিক আহমদ।
বাংলাদেশি আরেক জন নজিবুর রহমান। তিনি বলেন, আমি পরিবার পরিজন নিয়ে ১০ জানুয়ারি দেড় মাসের জন্য দেশে যাচ্ছি। প্রতি বছর এই মৌসুমে আমি দেশে যাই। শীত আসলে নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়ে যায়। এই সময় দেশে গেলে পরিবার-পরিবার পরিজনের সঙ্গে সময় কাটানো যায়। আমার গ্রামের লোকজনও আমাদের জন্য অপেক্ষা করে। আমরা গ্রামে গিয়ে টাকা পয়সা খরচ করি। এতে গ্রামীণ অর্থনীতি সচল হয়। এটা দেখে ভালো লাগে।
নির্মাণ ¤্রমিক রফিকুল ইসলাম বলেন, একমাত্র ছেলে এখন বড় হয়েছে। ছেলে বড় হওয়ার পর থেকে শীতের সময় অন্য রাজ্যের স্বজনদের কাছে বেড়াতে যাই। আগামী সপ্তাহেই টেক্সাস যাচ্ছি ছোট বোনের বাড়ীতে। কারণ বেকার বা অলস সময় কাটানোর চেয়ে বেড়িয়ে আসা ভালো।



Chief Editor & Publisher: Zakaria Masud Jiko
Editor: Manzur Ahmed
37-07 74th Street, Suite: 8
Jackson Heights, NY 11372
Tel: 718-565-2100, Fax: 718-865-9130
E-mail: ajkalnews@gmail.com
� Copyright 2009 The Weekly Ajkal. All rights reserved.